সুরাটের প্রতিবাদ বিক্ষোভে বাস ভাঙচুরের ঘটনা অসত্য ভাবে মুম্বাইয়ের বলে চালানো হচ্ছে

বুম দেখে ঘটনাটি গুজরাটের সুরাটে ঘটেছিল। গণপিটুনির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চলাকালে উত্তেজিত জনতা ওই ভাঙচুর চালায়।

একটি ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একদল লোক ইটপাটকেল ছুঁড়ে একটি বাস ভাঙচুর করছে। ভিডিওটি মিথ্যে দাবি সমেত শেয়ার করা হচ্ছে এই বলে যে, মুম্বাইয়ের বান্দ্রা অঞ্চলের মুসলমান অটোরিকশা চালকরা একটি বাসে হামলা চালায়।

ভিডিওটি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। ক্যাপশনে বলা হয়েছে, “বান্দ্রা থেকে বিকেসি পর্যন্ত বাস রুট খোলার বিরোধিতা করছে ওই রুটের মুসলমান রিকশাওয়ালারা।”

বুমের হেল্পলাইন নম্বরে (+৯১ ৭৭০০৯ ০৬১১১) ভিডিওটি আসে।

বুমের হেল্পলাইনে পাঠানো ভাইরাল ভিডিও।

ওই একই ভিডিও, একই ক্যাপশন সমেত, টুইটারেও শেয়ার করা হয়। এবং অনেকেই মুম্বাই পুলিশকে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে বলে।



টুইটটি দেখা যাবে এখানে। টুইটটি আর্কইভ করা আছে এখানে

ফেসবুকে ভাইরাল

আমরা দেখি ভিডিওটি, ওই মিথ্যে ক্যাপশনসহ, ফেসবুকেও ভাইরাল হয়েছে।

ফেসবুকে ভাইরাল।

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটিকে ফ্রেমে ফ্রেমে ভেঙ্গে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে। তাতে দেখা যায় গুজরাটে সুরাট শহরের একটি ঘটনার ভিডিও সেটি।



সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, ঘটনাটি গুজরাটের সুরাট শহরে ৫ জুলাই ২০১৯ তারিখে ঘটেছিল। সে দিন, গণপিটুনির বিরুদ্ধে একটি মৌন মিছিল বেরিয়ে ছিল ওই শহরে। অনুমতি না থাকার কারণ দেখিয়ে পুলিশ মিছিলটি আটকাতে গেলে, অশান্তি শুরু হয়।

‘আহমেদাবাদ মিরর’ পত্রিকা তার প্রতিবেদনে লেখে, “জনতা পাথর ছুঁড়তে শুরু করলে, পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ব্যবহার করে।”

ঘটনাটি সম্পর্কে আহমেদাবাদ মিররের প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট।

আহমেদাবাদ মিররে আরও বলা হয়, “পরিস্থিতি এমন আকার ধারণ করে যে, জনতা পাথর ছুঁড়তে আরম্ভ করলে, দু’টি বিআরটিসি বাস ও দু’টি পুলিশের গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। উত্তেজিত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ শূন্যে দু’ রাউন্ড গুলি ছোঁড়ে আর প্রায় এক ডজন কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটায়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে সাত ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়।”

বুম আরও দেখে যে, ‘এবিপি অস্মিতা’র খবরে ক্ষতিগ্রস্ত বাসটিকে দেখা যাচ্ছে। ‘এবিপি অস্মিতা’ হল এবিপির গুজরাটি নিউজ চ্যানেল। খবরটি ৫ জুলাই ২০১৯’এ আপলোড করা হয়। শিরোনাম ছিল, “সুরাট: গণপিটুনির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ মিছিলের পরে সংঘর্ষ শুরু।”



ভাইরাল ভিডিওটির ১.৪৯ সময় চিহ্নের মাথায়, জনতা সেই নীল বাসটিকে ঘিরে আছে, দেখা যায়।

আহমেদাবাদ মিররের রিপোর্টে বলা হয়েছিল দুটি বাস ভাঙচুর করা হয়। এবং ভাইরাল ভিডিওটিকে ভাল করে দেখলে, বিক্ষোভকারীদের দ্বারা ঘিরে রাখা দুটি বাসের উপস্থিতি লক্ষ করা যায়। একটি সামনে, একটি পেছনে।

বুম এও লক্ষ করে যে, ‘টিভি৯ গুজরাটি’র মত অন্যান্য সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্টে ক্ষতিগ্রস্ত বাসগুলির যে ছবি প্রকাশিত হয়েছে, তার সঙ্গে ভাইরাল ভিডিওর ছবিগুলি মিলে যাচ্ছে।

ভাইরাল ভিডিওর বাসের ছবির স্ক্রিনশট আর নিউজ ভিডিওর বাসের ছবির স্ক্রিনশট।

সুরাট পুলিশের প্রতিক্রিয়া জানার জন্য বুম তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তাদের বক্তব্য জানা গেলে, এই প্রতিবেদনটি সংস্করণ করা হবে।

Claim Review :  
Claimed By :  বান্দ্রায় মুসলিম রিক্সাচালকদের দ্বারা আক্রান্ত বাস
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story