কম্পিউটারে তৈরি ভাইরাল ভিডিওয় একটি এ-৩৮০ বিমান ও তেলের ট্যাঙ্কারের মধ্যে সংঘর্ষের সম্ভাবনার ছবি দেখানো হয়েছে

বুম দেখে ভিডিও ক্লিপটি একজন পাকিস্তানি ভিডিও গেম খেলোয়াড়ের ইউটিউব থেকে নেওয়া।

কম্পিউটারে তৈরি একটি ভিডিওর অংশ সোশাল মিডিয়ায় এক মিথ্যে দাবি সমেত ভাইরাল হয়েছে। বলা হয়েছে, ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে কী ভাবে একটি ৫৫০ জন যাত্রীবোঝাই এয়ারবাস এ-৩৮০ বিমান ও একটি তেলের ট্যাঙ্কারের মধ্যে প্রচন্ড ধাক্কা শেষ মুহূর্তে এড়ানো সম্ভব হয়।

ওই ৫১ সেকেন্ডের ক্লিপটিতে দেখা যাচ্ছে একটি তেলবাহী ট্যাঙ্কার রানওয়ের ওপর দিয়ে আড়াআড়ি ভাবে চলে যাচ্ছে আর তার ওপর অবতরণ করতে চলেছে বিরাট প্লেনটি। একেবারে শেষ মুহূর্তে তার গতিপথ পাল্টাতে পারে প্লেনটি এবং এক চুলের জন্য দুর্ঘটনা থেকে বেঁচে যায়।

ভিডিও ক্লিপটি বুমের হোয়াটসঅ্যাপ হেল্পলাইনে (৭৭০০৯০৬১১১) পাঠান এক ব্যক্তি। তিনি জানতে চান সেটি আসল না নকল।

হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ

ভিডিওটির সঙ্গে দেওয়া ক্যাপশনে বলা হয়, “পাইলটের দক্ষতার দৌলতে ৫৫০ যাত্রী সমেত বিশ্বের বৃহত্তম এ-৩৮০ প্লেন একটি জ্বালানি পবিরহনকারী ট্যাঙ্কারের সঙ্গে সংঘর্ষ এড়াতে সক্ষম হয়।”


ফেসবুকে ভাইরাল

ভিডিওটি ফেবসুকেও ভাইরাল হয়েছে।

ফেসবুকে পোস্ট

পোস্টটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন, আর আর্কাইভ সংস্করণ দেখতে এখানে

তথ্য যাচাই

ভিডিওটি খুঁটিয়ে দেখলে পরিষ্কার হয়ে যায় যে, সেটি কম্পিউটারে তৈরি-করা ছবি। দেখে মনে হয়, সেটি কোনও একটি কম্পিউটার গেম থেকে নেওয়া। তাই ‘এ এ-৩৮০ ফ্লাইট অ্যাকসিডেন্ট উইথ ফুয়েল ট্যাঙ্কার’ (একটি এ-৩৮০ উড়ানের সঙ্গে জ্বালানি ট্যাঙ্কারের সংঘর্ষ) শব্দগুলি দিয়ে আমরা ইউটিউবে সার্চ করি।

দেখা যায় ‘দ্য ইউআই গেমার’ নামের এক ইউটিউব চ্যানেল ওই একই ভিডিও আপলোড করেছিল ২০ জুন, ২০১৯ তারিখে। সেটির নাম দেওয়া হয়েছিল, ‘জিটিএ-৫ —এ ৩৮০’র অবতরণের সময় একটি “তেলের ট্যাঙ্কার” অসতর্কভাবে রানওয়েতে এসে পড়ে’।



ভাইরাল ক্লিপটির ১.৩৪ সেকেন্ডের মাথায়, ঘটনার একই সিকুএন্স লক্ষ করা যায়।

ক্লিপটি ইউটিউবে আপলোড-করা ভিডিওটির এই অংশ থেকে তুলে নেওয়া হয়। এবং সেটিকে একটা বিপজ্জনক পরিস্থিতির বাস্তব দৃশ্য বলে শেয়ার করা হতে থাকে।

‘গ্র্যান্ড থেফ্ট অটো-৫’ (জিটিএ-৫) একটি রোমাঞ্চকর গেম। সেটি ২০১৩ সালে বাজারে আসে। খেলাটা একজন খেলোয়াড়ের নিজস্ব বা তৃতীয় কোনও ব্যক্তির দিক থেকে খেলা যায়। আর ওই খেলার দুনিয়ায় পায়ে হেঁটে বা গাড়িতে বিচরণ করা যায়।

খেলাটার বিষয় হল চুরি। আর সেই কারণে সেটির মধ্যে অনেকগুলি অভিযান আছে যাতে চালাতে হয় গুলি আর গাড়ি।

ভিডিওটি সম্পর্কে বলতে গিয়ে ইউটিউব ব্যবহারকারী পাকিস্তানের উমের ইমরান বলেন, একটি কৃত্রিম পরিস্থিতি দেখানো হয়েছে তাতে।

“হ্যালো, বন্ধুরা! আরও একটি ভিডিওতে আপনাদের স্বাগত জানাই…এই ভিডিওটিতে আমি একটা পরিস্থিতি তৈরি করেছি যেখানে একটি এয়ারবাস এ-৩৮০ অবতরণের সময় একটি তেলের ট্যাঙ্কার রানওয়েতে এসে পড়ে,” ভিডিওটির বিবরণে বলেন ইমরান।

বুম তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করলে উনি বলেন, “আমার তৈরি ভিডিও কেউ ভুলভাবে ব্যবহার করেছে, সে কথা জেনে আমি আশ্চর্য হচ্ছি। ”

ভিডিওটি প্রথমে ভাইরাল হয় যখন পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতা খুররাম নওয়াজ গান্ডাপুর ভিডিওটিতে যা দেখানো হয়েছে তা ভুলবশত সত্যি ভেবে সেটি টুইট করে বসেন।

ওই টুইটে উনি বলেছিলেন, “এক ভয়াবহ দুর্ঘটনা থেকে একটুর জন্যে বেঁচে গেছে বিমানটি। পাইলটের উপস্থিত বুদ্ধির ফলে অলৌকিকভাবে রক্ষা পেয়েছে।” ওই টুইটটি অবশ্য উনি পরে প্রত্যাহার করে নেন।

ডিলিট-করা টুইট

আর্কাইভ সংস্করণ দেখতে এখানে ক্লিক করুন ।

পাকিস্তানে ভাইরাল-হওয়া ক্লিপ।



Claim Review :   কী ভাবে একটি ৫৫০ জন যাত্রীবোঝাই এয়ারবাস এ-৩৮০ বিমান ও একটি তেলের ট্যাঙ্কারের মধ্যে প্রচন্ড ধাক্কা শেষ মুহূর্তে এড়ানো সম্ভব হয়
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story