টিভি বিতর্ক চলা কালে কি একজন টিএমসি নেতা বন্দুক দেখিয়ে ছিলেন? না, সেটা মাইক

একটি টিভি বিতর্কের সময় একজন তৃণমূল কংগেস নেতা মাইক ছোঁড়ার হুমকি দেন। সেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে এই বলে যে, উনি বন্দুক দেখিয়েছিলেন

একটি উত্তেজনাপূর্ণ টেলিভিশন বিতর্ক চলা কালে, একজন অংশগ্রহণকারী তৃণমূল কংগ্রেস নেতা অপর এক বক্তার দিকে মাইক্রোফোন ছুঁড়ে মারার হুমকি দেন। ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে এই মিথ্যে দাবি সমেত যে, ওই মন্ত্রী একটি লাইভ অনুষ্ঠানে বন্দুক বার করে ছিলেন।

ওই ৩.২ মিনিটের ভিডিওতে টিএমসি মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ ও কোচবিহার কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের মধ্যে তীব্র বচসা চলতে দেখা যায়।

কিন্তু ওই ভিডিওর সঙ্গে দেওয়া লিখিত বয়ানে মিথ্যে দাবি করা হয় যে, বিতর্ক চলা কালে ঘোষ বন্দুক বার করেছিলেন। ভিডিওটি ‘জি২৪ঘন্টা’ নিউজ চ্যানেলের বিতর্ক অনুষ্ঠান ‘ক্রসফায়ার’-এর অংশ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করছিলেন মৌপিয়া নন্দী।

ক্যাপশান সহ ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটি নীচে দেখা যেতে পারে, আর তার আর্কাইভ সংস্করণ এখানে

তথ্য যাচাই

ভিডিওটি ভাল করে দেখলে বোঝা যায় যে, রাগের মাথায় ঘোষ মাইক্রোফোনটি হাতে তুলে নেন। অথচ অনেক সোশাল মিডিয়া ব্যবহারকারী দাবি করেন উনি বন্দুক দেখিয়েছিলেন।

ঘোষ তাঁর মেজাজ হারান যখন প্রামাণিক তাঁর ছেলে সম্পর্কে তির্যক মন্তব্য করেন। প্রামাণিক বলেন, “আমি তো প্রশ্ন করতে পারি যে ওনার ছেলে কি নারী পাচারের সঙ্গে যুক্ত? আমি কি সে প্রশ্ন করেছি?”

এ কথা শুনে ঘোষ প্রামাণিককে মাইক ছুঁড়ে মারার হুমকি দেন।



এর পরই গন্ডগোল শুরু হয়ে যায়। দর্শকরা ওই অনুষ্ঠানের রেকর্ডিং বন্ধ করতে উদ্যত হন।

বুম জি২৪ঘন্টা’র সম্পাদক ও চ্যানেলের প্রধান অনির্বাণ চৌধুরির সঙ্গে যোগাযোগ করে। উনি বলেন, “যে কেউ বুঝবেন ওটা বন্দুক নয়, মাইক্রোফোন। যাঁরা ওই ধরনের মেসেজ পাঠান, তাঁরা বদ উদ্দেশ্য নিয়েই তা করে থাকেন।”

যে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়েছিল, সে সম্পর্কে বলতে গিয়ে উনি বলেন, “জেলায় অনুষ্ঠিত লাইভ শো তে, অমন ঘটনা অস্বাভাবিক নয়। সেটা আমরা আমাদের মত করে আয়ত্তে আনি।” ওই অনুষ্ঠানের সঞ্চালক মৌপিয়া নন্দীও টুইট করে জানান যে, জিনিসটা ছিল মাইক্রোফোন, বন্দুক নয়।



বুম তাঁর প্রতিক্রিয়া জানার জন্য রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সঙ্গেও যোগাযোগ করে। তাঁর বক্তব্য জানা গেলে এই প্রতিবেদন আপডেট করা হবে।

Claim Review :   টিএমসি মন্ত্রী একটি লাইভ অনুষ্ঠানে বন্দুক বার করে ছিলেন
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story