কাশ্মীরি মহিলারা কি ৩৭০ ধারা বাতিলের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করেছেন? একটি তথ্যযাচাই

দুই কিশোর সন্ত্রাসবাদীর অন্তিম যাত্রার ভিডিও এটি। ২০১৮ সালের ১০ ডিসেম্বর তারিখে ঘটনাটি ঘটে কাশ্মীরের হাজিনে।

শেষকৃত্য সম্পন্ন করার একটি মিছিলকে, জম্মু ও কাশ্মীরে এক সাম্প্রতিক প্রতিবাদের দৃশ্য বলে চালানো হয়েছে। সে রাজ্যে সংবিধানের ৩৭০ নং ধারা বাতিল করে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। তারই পরিপ্রেক্ষিতে শেয়ার করা হচ্ছে ওই ভিডিও। ধারা ৩৭০ জম্মু ও কাশ্মীরকে এক বিশেষ মর্যাদা দিয়েছিল।



টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে ৩৯ সেকেন্ডের ভিডিওটি। সঙ্গে দেওয়া ক্যাপশনে বলা হয়েছে, “ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে হাজার হাজার মানুষ গতকাল পথে নেমে ছিলেন নিজেদের দেশকে ভারতের দখলমুক্ত করার জন্য।

ফেসবুকে ভাইরাল

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটির প্রধান ফ্রেমগুলি আলাদা করে ইয়ানডেক্সের মাধ্যমে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে। তার ফলে ইউটিউবে একটি ভিডিওর সন্ধান পাওয়া যায়। সেটির নাম, ‘কাশ্মীরি উইমেন টেক আউট এ প্রসেশন ডিউরিং দ্য ফিউনারেল রাইট অফ টু টিনএজ’ (দুই কিশোরের শেষকৃত্য উপলক্ষে কাশ্মীরি মহিলারা মিছিল বার করেন)। ‘পাকিস্তানি পিপলস পার্টি’ নামের এক ইউটিউব চ্যানেল থেকে সেটি আপলোড করা হয় ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে।



পুরনো ভিডিও।

ভিডিওটির নীচে একটি টিকারে বলা হয়, “১০-১২-১৮। গতকাল ১৪ ও ১৭ বছরের দুই কিশোর বিদ্রোহী নিহত হয়। তাদের শেষকৃত্য সম্পন্ন করার সময়, কাশ্মীরি মহিলারা মিছিল বার করে। # কাশ্মীর”।

এ ছাড়াও, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে করা একটি ফেসবুক পোস্ট দেখতে পাই আমরা। সেটির ক্যাপশনে বলা হয়, “কাশ্মীরের স্বাধীনতার সমর্থনে পথে নেমেছেন মহিলারা।”

‘কাশ্মীর উইমেন ফিউনারেল মিলিট্যান্টস’, এই শব্দগুলি দিয়ে গুগুলে সার্চ করলে, একই ধরনের ছবি দেখতে পাওয়া যায় ছবি সরবরাহকারী ওয়েবসাইট ‘অ্যালামি’তে।

প্রতিবাদের ফটো

২০১৮ সালের ১০ ডিসেম্বর তোলা ছবি।

ছবিটির ক্যাপশনে বলা হয়, “হাজিন, কাশ্মীর, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮। ভারত-অধিকৃত কাশ্মীরের গ্রীষ্মকালীন রাজধানী শ্রীনগর শহর থেকে ৩৫ কিমি দূরে হাজিন’এ দুই কিশোর জঙ্গির শেষকৃত্যে যোগ দিতে মিছিল করে চলেছেন মহিলারা ১০ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে। তিন নিহত জঙ্গির মধ্যে ছিল ১৪ বছরের এক বালক। ৯ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে, শ্রীনগরের উপকন্ঠে মাজিগুন্ড এলাকায়, আঠারো ঘন্টা ধরে চলা গুলির লড়াইয়ে মারা যায় তারা। ক্রেডিট: ফাইজাল খান/প্যাসিফিক প্রেস/অ্যালামি লাইভ নিউজ।”

ওই ঘটনা নিয়ে প্রতিবেদনগুলি

‘রাইজিং কাশ্মীর’এর প্রতিবেদনে বলা হয়, ৯ ডিসেম্বর ২০১৮’য় এক গুলির লড়াইয়ে নিহত হয় দুই কিশোর জঙ্গি—মুদাসির রশিদ, ১৪, ও শাকিব বিলাল শেখ, ১৭। তারা দুজনেই বান্দিপোরা জেলার হাজিনের বাসিন্দা ছিল।

রাইজিং কাশ্মীর আরও জানায়, “ওই নিহত জঙ্গিদের শেষকৃত্যে এক বিশাল জনসমাবেশ হয়। দুজনকেই হাজিনের এক গোরস্থানে কবর দেওয়া হয়।

সংবাদ প্রতিবেদনগুলিতে বলা হয়, নিহত শাকিব বিলাল শেখ ২০১৪ সালে নির্মিত ছবি ‘হায়দার’এ অভিনয় করে ছিল।

সাম্প্রতিক ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, উপত্যকায় তৈরি পুরনো ভিডিও পুনর্ব্যবহার করার দৃষ্টান্ত এই প্রথম নয়। এর আগে, কাশ্মীরে এক অগ্নিকান্ডের ভিডিওকে ৩৭০ নং ধারা বাতিল হওয়ার পর ভারতীয় সেনার নির্যাতনের নিদর্শন হিসেবে চালিয়ে দেওয়া হলে, বুম তার তথ্য যাচাই করে দেখে।

Claim Review :  হাজারে হাজারে কাশ্মীরি কাল রাস্তায় নামে
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FALSE
Next Story