মেয়েদের মেট্রো চাপায় ছাড় বিষয়ে সীতারামন কী কেজরিওয়ালের সমালোচনা করেছেন? একটি তথ্য-যাচাই

বুম দেখে যে, অর্থমন্ত্রী সীতারামনের বক্তব্য বলে যে উদ্ধৃতি দেওয়া হয়েছে, তা একটি ভুয়ো পেজ থেকে পোস্ট করা হয়েছে।

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের নামের এক মেকি ফেসবুক পেজ থেকে নেওয়া উদ্ধৃতি ভাইরাল হয়েছে। তাতে মেট্রোতে মেয়েদের যাতায়াতের ক্ষেত্রে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের ভাড়া মুকুবের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করা হয়েছে।

‘নির্মলা সীতারামন’ নামের ওই ভুয়ো ফেসবুক পেজ একটি ক্যাপশন শেয়ার করে। তাতে বলা হয়, “একজন দিনমজুর মেট্রো ভাড়া দেবে, আর দিল্লির একজন উচ্চবিত্ত মহিলাকে ভাড়া গুনতে হবে না। এ কেমন ব্যবস্থা? অরবিন্দ কেজরিওয়াল, আপনার নির্বুদ্ধিতার কি কোনও সীমা নেই? বিনা পয়সায় সবকিছু পাইয়ে দেওয়াই কি আপনার ভোটে জেতার একমাত্র উপায়?”

ওই পোস্টটিকে কেন্দ্র করে প্রায় ১৪,০০০ প্রতিক্রিয়া আর ৪,০০০ মন্তব্য এসেছে।

পোস্টটি যা ভাইরাল হয়েছে।

পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

পোস্টটির স্ক্রিনশট সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া পোস্টটির স্ক্রিনশট।

তথ্য-যাচাই

যেটিকে অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের ফেসবুক পেজ বলে চালানো হয়েছে, সেটি ভুয়ো। সেটি তাঁর অফিসিয়াল পেজ নয়। সেটিতে নীল ‘রাইট’ চিহ্নও নেই। তাছাড়া সীতারামনের পদবির বানানও ভুল। তাতে ‘ত’-এর বদলে লেখা হয়েছে ‘থ’।

পেজটিতে নীল রাঙা ‘রাইট’ চিহ্ন দেওয়া নেই আর নামের বানান মেলে না।

সীতারমনের নিজস্ব ফেসবুক পেজের নাম `@nirmala.sitharaman’, ‘Nirmlasitharaman’ নয়।

মন্ত্রীর অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ।

প্রায় ২,১৪,৮১১ লাইক নিয়ে মেকি ফেসবুক পেজটি একের পর এক পোস্ট করে থাকে, কিন্তু কখনওই জানায় না যে সেটি একটি ফ্যান পেজ।

টুইটার অ্যাকাউন্ট (নির্মলাসীতারামন), যেটি ওই মেকি ফেসবুক পেজের সঙ্গে লিংক করা ছিল, সেটাকে সাসপেন্ড করা হয়েছে।

বুম অর্থমন্ত্রীর অফিসে যোগাযোগ করলে জানানো হয় যে, মন্ত্রী এধরনের কোনও অভিমত প্রকাশ করেননি।

সীতারামনের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজেও ওই নির্দিষ্ট তারিখে ওই রকম কোনও পোষ্ট করা হয়নি। তাছাড়া মন্ত্রীর সাম্প্রতিক সব বক্তব্য আমরা সার্চ করি। তাতে সীতারামনের ওই ধরনের কোনও মন্তব্য দেখা যায়নি।

Claim Review :  বিত্ত মন্ত্রী নির্মালা সীতারামন বলেছেন, একজন রোজের শ্রমিক তার মেট্রো ভাড়া দেবে, যেখানে একজন দিল্লির বড়লোকের মেয়ের ছাড় দেওয়া হবে
Claimed By :  FAKE FACEBOOK PAGE
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story