Alaska তে গলতে থাকা হিমবাহের ছবি Uttarakhand এর বলে ভাইরাল হল

বুম দেখে ছবিটি আলাস্কার মেন্ডেনহল গ্লেসিয়ারের ১০ বছরের পুরনো একটি ছবি।

আলাস্কার (Alaska) গলতে থাকা মেন্ডেলহল হিমবাহের (Mandenhall Glacier) পুরনো ছবি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে এই মিথ্যে দাবি সমেত যে, ৭ ফেব্রুয়ারি, উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) চামোলীতে (Chamoli) হিমবাহের ধস (Glacier Burst) নামার আগের মুহূর্তের দৃশ্য সেটি।

ছবিটিতে একটি হিমবাহকে ক্রমশ এগিয়ে আসতে দেখা যাচ্ছে।

৭ ফেব্রুয়ারি, উত্তরাখণ্ডেরে রেনি গ্রামের কাছে একটি হিমবাহ ধসে পড়লে, এক বিধ্বংসী হড়পা বান সৃষ্টি হয়। খবরে প্রকাশ, ওই বিপর্যয়ের পর, এখনও পর্যন্ত ৩২ টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে ও ২০৬ জন এখনও নিখোঁজ। ইন্ডো-টিবেটান বর্ডার পুলিশ (ITBP), ভারতীয় সেনা (Indian Army) ও এনডিআরএফ-এর (NDRF) সদস্যরা উদ্ধার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

'দ্য নর্থইস্ট' নামের এক জার্নালের শেয়ার করা ছবিটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। সেটির ক্যাপশনে বলা হয়েছে, "উত্তরাখণ্ডের জন্য প্রার্থনা করুন #উত্তরাখণ্ডডিজাস্টার #গ্লেসিয়ার #গ্লেসিয়ারবার্স্ট।"
পোস্টটির আর্কাইভ এখানে এখানে দেখা যাবে।

তথ্য যাচাই

বুম ছবিটির রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখে, সেটি সরকারি ওয়েবসাইট ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন-এর গ্যালারিতে রয়েছে। সেটির ক্যাপশনে, হিমবাহটিকে আলাস্কার গলতে থাকা মেন্ডেলহল গ্লেসিয়ার বলে চিহ্নিত করা হয়। তাতে আরও বলা হয়, "সঙ্কুচিত হতে থাকা মেন্ডেলহল গ্লেসিয়ারের ওপরে নতুন বনের আবির্ভাব দেখা যাচ্ছে এই ছবিতে। একটি গ্লেসিয়ারের ওপর জঙ্গল গজিয়ে ওঠা বেশ বিরল ঘটনা। কীভাবে এই ল্যান্ডস্কেপ দ্রুত বদলে যাচ্ছে সেটাই ধরা পড়েছে এই ছবিতে।"

তাছাড়া ৫ মার্চ ২০১০-এর লাইভ সায়েন্স-এ আমরা এ বিষয়ে একটি ব্লগ দেখতে পাই। তাতেও ওই একই ছবি ব্যবহার করা হয়। এবং বলা হয়, সেটি আলাস্কার একটি হিমবাহের ছবি। তার থেকে বোঝা যায় যে, ছবিটি অন্তত ১০ বছর আগে তোলা হয়েছিল। বুম নিজস্ব উপায়ে সেটি যাচাই করে দেখতে পারেনি। কিন্তু সেটি যে উত্তরাখণ্ডের ছবি নয়, সে ব্যাপারে বুম নিশ্চিত হতে পেরেছে।
অ্যাডভেঞ্চার জার্নালে প্রকাশিত একটি ব্লগে বলা হয়েছে যে, আলাস্কার গ্লেসিয়ারগুলি প্রায় ৭৫ বিলিয়ন (৭৫০০ কোটি) মেট্রিক টন বরফ হারাচ্ছে প্রতি বছর। ২০১৫ সালে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জিওলজিক্যাল সারভে ও কানাডার ইউনিভারসিটি অফ আলাস্কা ফেয়ারব্যাঙ্কস-এর করা একটি সমীক্ষা থেকে ওই তথ্য পাওয়া যায়। ন্যাশনাল আইস ডেটা সেন্টার-এর (এনএসআইডিসি) হিসেব অনুযায়ী, ২০১৬ তে তাপমাত্র বাড়ার ফলে, হিমবাহগুলি ৭০% দ্রুত হারে গলতে থাকে।
Claim Review :   পোস্টের দাবি ছবিটি উত্তরাখন্ডের সাম্প্রতিক হিমবাহ ধ্বসের।
Claimed By :  The Noprtheast Journal
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story