কেকে পক্ষাঘাতের বিষ-বড়ি মেশানোর ভিডিওটি কি সত্যি? একটি তথ্য যাচাই

এই কেকের সংস্থা মোটেই চিনের নয় এবং তারা তাদের পণ্যের অফিশিয়াল প্যাকেজিংয়ে কোনও ট্যাবলেট দেওয়া নেই।

একটি কেক-এর মোড়ক সংক্রান্ত একটি ভিডিও ইদানীং সারা বিশ্বে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, প্যাকেট খুললেই তার মধ্যে লুকনো বড়ি চোখে পড়ছে। ভারতে সম্প্রতি এই ক্লিপটি ছড়াল, এবং তাতে দাবি করা হল যে এই চাইনিজ ব্র্যান্ডটি "নতুন কেক বাজারে এনেছে যার মধ্যে ট্যাবলেট দেওয়া আছে।" এই পোস্টটিতে আর দাবি করা হয়েছে যে এই পিল খেলে শিশুরা পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হতে পারে।

ফেসবুকে এই পোস্টগুলি শেয়ার করা হয়েছে সঙ্গে ক্যাপশন দেওয়া হয়েছে, "চাইনিজ সংস্থা লুপ্পো নতুন কেক বাজারে এনেছে যার মধ্যে ট্যাবলেট লুকানো আছে, যা শিশুদের পক্ষাঘাত আক্রান্ত করতে পারে। দয়া করে সব গ্রুপে এই মেসেজ ছড়িয়ে দিন"।

৫০ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে অনেকগুলি লুপ্পো ব্র্যান্ডের কেকের প্যাকেট দেখা যাচ্ছে যার মধ্যে একটি খোলা হচ্ছে। যিনি প্যাকেটটি খুলছেন তাকে দেখা যাচ্ছে না। কেকের মতো দেখতে জিনিসটি প্যাকেট থেকে বার করে গুঁড়ো করে ভেঙ্গে দেখা দেখা যাচ্ছে, তার মধ্যে দুটি ছোটো ছোটো ট্যাবলেট রয়েছে। ভিডিওটির মধ্যেই হাসপাতালে ভর্তি থাকা কিছু শিশুর ছবি দেখা যাচ্ছে। 'চমক' নামের একটি ব্র্যান্ডের ওয়েফার বিস্কুটের ছবিও দেখা যাচ্ছে।
পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে
উপরে ছবিতে দেখানো "চমক" নামের অফারস ব্র্যান্ডটি আনাতা কোম্পানির অধীনস্থ একটি
ইরানীয় ব্র্যান্ড
। ভাইরাল হওয়া ভিডিওর লুপ্পো নামক ব্র্যান্ডের সঙ্গে এটির কোনো সম্পর্ক নেই।
পক্ষাঘাতগ্রস্ত শিশুদের ছবি বারে বারেই দেখানো হয়েছে এই ভিডিওটিতে। তা হোয়াটসঅ্যাপে বিপুল ভাবে শেয়ার করা হচ্ছে।
টুইটিট দেখা যাবে এখানে। টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে
এই ভিডিওটি ফেসবুকে বহু বার শেয়ার করা হয়েছে, যেমন নীচে দেখা যাচ্ছে।

বুমের হোয়াটসঅ্যাপ হেল্পলাইনে এই ভিডিওটি যাচাই করার জন্য বহু বার অনুরোধ এসেছে।

তথ্য যাচাই

২০১৯ সালের অক্টোবরে এই ভিডিওটি প্রথম দেখা যায় এবং এটি মোটেই ভারতের নয়। ভারতে লুপ্পো নামের ব্র্যান্ডের কোনো কেক পাওয়া যায় না। বুম দেখতে পায়, ভিডিওটি ভেঙ্গে দেখলে তুর্কী ভাষায় কিছু লেখা চোখে পড়ে। ৭৫% থেকে ০.২৫ গতিতে ধীরে ধীরে যদি ভিডিওটি দেখা হয় তবে দেখা যাবে, ভিডিওটিতে যে কেকটি 'খোলা' হয়েছে, তার উপর একাধিক ছোট ছোট গর্ত রয়েছে।

ভিডিওটি ৭৫% ধীর গতিতে দেখলে কেকের ছবির উপর গর্ত দেখা যায়।

এ ছাড়া লুপ্পো ব্র্যান্ডের কেক একটি তুরস্কের পণ্য যা ইস্তানবুলের সোলেন কোম্পানির একটি ব্র্যান্ড, মোটেই চিনা ব্র্যান্ড নয়। সোলেন লুপ্পো ব্র্যান্ডের সম্পর্কে খোঁজ করলে দেখা যায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে মেক্সিকো, সারা বিশ্বেই ভাইরাল হওয়া এই ভিডিটিতে দাবি করা হয়েছে যে এই পণ্যটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইজরায়েলে পাওয়া যায়। কথাটা সত্য নয়, কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শুধুমাত্র অনলাইন অর্ডার করলে তবেই এটি পাওয়া যায়।

তুরস্কের তথ্য যাচাইকারী সংস্থা টেইট আগেই এই দাবির সত্যতা যাচাইকরেছে এবং ২০১৯ সালের ২৮ অক্টোবর তারিখে এই ভিডিওর প্রথম কপিটি চিহ্নিত করেছে।

স্বাস্থ্য বিজ্ঞান অনুসারে খাওয়ার কোনো ওষুধ থেকে পক্ষাঘাত হওয়া সম্ভব নয়। ভিডিওটি দেখে এটা মোটেই বোঝা যাচ্ছে না কখন এবং কারা এই কোকোনাট ক্রিম বিস্কুটে ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দিয়েছে। সোশাল মিডিয়ার মন্তব্য থেকে বোঝা যায় ভিডিওটির শেষের দিকে ৪৬ সেকেন্ডের মাথায় যে ভাষায় কথা শোনা যাচ্ছে তা সোরানি ভাষা, টেইটও এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। সোরানি এক ধরনের কুর্দিশ ভাষা যা ইরাকি কুর্দিস্তান অঞ্চলে বলা হয়। ফ্রিজের মধ্যে যে মাংসের ব্র্যান্ড (Ace Aspiliç) দেখা যাচ্ছে তা আর একটি তুরস্কের কোম্পানি, ইরাকে যার বিরাট রপ্তানি বাজার রয়েছে। এর থেকেও মনে হয় যে ভিডিওটি ইরাকেই তৈরি।

সোলেনের একজন মুখপাত্র টেইটকে নিশ্চিত করে জানিয়েছেন এই বিশেষ পণ্যটি (লুপ্পো কোকোনাট ক্রিম কেক) একমাত্র ইরাকে পাওয়া যায়। আন্তর্জাতিক তথ্য যাচাই সংস্থা স্নুপসের কাছে এই সংস্থার পক্ষ থেকে ভাইরাল হওয়া এই ভিডিওর সত্যতা একেবারেই নাকচ করে দেওয়া হয়েছে।
সোলেন কোম্পানির একজন মুখপাত্র স্নুপকে একটি বিবৃতি পাঠিয়েছেন, যেখানে তিনি জানিয়েছেন এই ভিডিওটি "বিভ্রান্তিকর, ভিত্তিহীন এবং মিথ্যে" এবং আরো বলেছেন এই ভিডিওটি "বদনাম করার উদ্দেশ্য নিয়েই বানানো হয়েছে"। ঐ মুখপাত্র আরো জানিয়েছেন যে এই ঘটনার জন্য যারা দায়ী তাদের বিরুদ্ধে তাঁদের কোম্পানি আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছে। এছাড়া সোলেনের যে কারখানায় লুপ্পো কোকোনাট ক্রিম বিস্কুট তৈরী হয় সেখানকার উৎপাদনের পদ্ধতির নানা সার্টিফিকেট এবং নিরাপত্তা সংক্রান্ত নানা তথ্য দিয়েছে। এর ইন্সপেকশনের সব কাজ করে সুইস কোম্পানি এসজিএস।

সূত্র: সোলেন কোম্পানি

কোম্পানির মুখপাত্র স্নুপকে পাঠানো তাদের বিবৃতিতে লুপ্পো বারের বাটার, ক্রিম, চকোলেট ফিলিং তৈরীর ক্ষেত্রে ব্যবহৃত নানান শোধন প্রণালী তুলে ধরেছেন। এই সব প্রণালীতে লম্বায় বা চওড়ায় ৭০০ মাইক্রনের (০.৭ মিলিমিটার) বেশী যেকোনো জিনিস আটকে যায়। তার ফলে ট্যাবলেট বা অন্য যে কোনো জিনিস এর মধ্যে ঢোকানো অসম্ভব, যেমন ভাইরাল ভিডিওতে দাবি করা হয়েছে।

ঐ অঞ্চলের টেইটের সংবাদ সুত্র যা থেকে জানা যায় যে উত্তর সিরিয়ায় তুরস্করের পিস স্প্রিং অপারেশনের পর উত্তর ইরাকে টার্কিশ পণ্য বয়কট করার চেষ্টা চলছে। এই তথ্য ভিডিওটির ইরাকি উৎস সম্পর্কে আরও বেশি করে নিশ্চিত করে।

Updated On: 2020-02-01T12:18:07+05:30
Claim Review :  চীনের কোম্পানি কেকের ভিতরে পক্ষাঘাতের বড়ি লুকাচ্ছে
Claimed By :  Social Media, Whatsapp users
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story