রোদ পোহালে পুড়ে ছাই করোনাভাইরাস, ভাইরাল হল ভুয়ো বার্তা

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা বলছে ঠান্ডা কি গরম সব পরিবেশেই ছড়াতে সক্ষম করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯।

সোশাল মিডিয়া ও হোয়াটসঅ্যাপে ছড়ানো বার্তায় দাবি করা হয়েছে রবিবার ভারতে তাপমাত্রা হবে ৩৬ ডিগ্রি। করোনাভাইরাস নাকি ২৬ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রায় সংক্রমণে সক্ষম নয়। আর তাই রবিবার 'করোনা মুক্তি দিবসে' দুপুর ১ টার সময় ছাদে উঠে রোদ পোহালে আর থাকবে না করোনাভাইরাস সংক্রমের আশঙ্ক!

বুম এই তথ্যের স্বপক্ষে বিজ্ঞানসম্মত কোনও গবেষণাপত্র খুঁজে পায়নি।

ভাইরাল বার্তাগুলিতে লেখা হয়েছে, ''করোনার মুক্তি দিবস তারিখ:- 22/03/2020 রবিবার দুপুর ১ টা নাগাদ বাড়ির সমস্ত সদস্যকে ঘরের ছাদ বা ছাদের বাইরে রোদে দাঁড়িয়ে থাকতে হবে, যা করোনার ভাইরাসের মূল দূর করবে। পুরো ভারতে এক সময় করোনাকে নির্মূল করার জন্য এটি সেরা উপায়। কারণ এই ভাইরাসটি 26 ডিগ্রির উপরে তাপমাত্রায় পুড়ে ছাই হয়ে যাবে, 22 তারিখে দুপুরবেলায় তাপমাত্রা 36 ডিগ্রি হবে। তাই প্রস্তুত হোন, এই বার্তাটি সর্বত্র পাঠান। জয় হিন্দ, জয় ভারত 🇮🇳🇮🇳''

পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

হোয়াটসঅ্যাপে শেয়ার হওয়া বার্তাটির ছবিও কেউ কেউ শেয়ার করেছেন ফেসবুকে।

পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

একই বয়ানে ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে পোস্টগুলি।



ফেসবুক সার্চের ফলাফল।

আরও পড়ুন: বুম দেখে যে অডিও ক্লিপটি রেকর্ড করেন চেন্নাইয়ের হাড়ের ডাক্তার ডঃ সন্তোষ জেকব।

বৃহস্পতিবারের বার্তায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী অবশ্য ২২ মার্চ ২০২০ রবিবার সকাল ৭ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত ঘরের বাইরে না বেরিয়ে 'জনতা কার্ফিউ' পালন করার পরামর্শ দিয়েছেন।

তথ্য যাচাই

বুম বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশিকা খুঁজে দেখেছে সেখানে আগেই বলা হয়েছে গরম আবহাওয়া কি ঠান্ডা আবহাওয়া। সমস্ত পরিবেশেই ছড়াতে পারে কোভিড-১৯। একমাত্র বারবার হাত ধোয়া, সংক্রমিত এলাকায় ভ্রমণ, সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শে না আসা হল করোনা মোকাবিলার প্রধান শর্ত। বারবার হাত ধোয়ার নিদান দেওয়ার কারণ মুখ, চোখ, নাকের সংস্পর্শে হাত এলে তা থেকে সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে।


আমাদের দেহের সাধারণ উষ্ণতা ৩৬.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর ভাইরাল বার্তাতে বলা হচ্ছে '৩৬ ডিগ্রি' উষ্ণতায় নিষ্ক্রিয় হয়ে যাবে ভাইরাস! যদিও ভুয়ো বার্তাটি লেখার সময় বর্তাটির লেখক উষ্ণতার একক বসাতে ভুলে গেছেন।

বুম আগেই করোনাভাইরাস সংক্রান্ত এই ধরণের বিভিন্ন গুজব খণ্ডন করেছে। সেখানে দাবি করা হয়েছিল ইউনিসেফ নাকি সেই নির্দেশগুলি দিয়েছে। বস্তুত সেই ভুয়ো বার্তাগুলির সবগুলিই ছিল ভুয়ো।

আরও পড়ুন: করোনাভাইরাস সংক্রান্ত এই 'অ্যাডভাইজারি' ইউনিসেফের নয়

রোদ পোহানো গুজবের নেপথ্যে

১৯ মার্চ ২০২০ বৃহস্পতিবার সংসাদের বাইরে কেন্দ্রীয় স্বান্থ্য প্রতিমন্ত্রী আশ্বিনী কুমার চৌবে বলেন, 'লোকজনের যদি কমপক্ষে ১০-১৫ মিনিট রোদ পোহায় তাহলে সুবিধায় হবে। সূর্যালোক ভিটামিন-ডি প্রস্তুত করবে যা প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এবং তা এই ধরণের ভাইরাসকে (পড়ুন- করোনাভাইরাস) শেষ করে দেবে।'' ১১ টা থেকে ২ টো পর্যন্ত রোদ বেশি থাকে সেসময় এটা করা উচিত, একথাও বলেন চৌবে।


Updated On: 2020-03-21T19:36:33+05:30
Claim Review :   ভুয়ো বার্তার দাবি রোদ পোহালে কোরানাভাইরাস পুড়ে ছাই হয়ে যাবে
Claimed By :  Facebook Posts & WhatsApp message
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story