লোকসভা ভোটের ফলাফলঃ এই লাড্ডুর গল্প অনেক পুরনো

শেষ দফা লোকসভা ভোটের এক দিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচুর পরিমাণে লাড্ডু বানানোর ছবি ছড়িয়ে পড়ে, যাতে দাবি করা হয় যে এ সব আসলে বিজেপি-র জয় উদযাপনের প্রস্তুতি। ছবিগুলি আসলে পুরনো।

প্রচুর পরিমাণে লাড্ডু (উত্তর ভারতের এক রকম মিষ্টি ) বানানোর এক পুরনো ছবি শেষ দফা লোকসভা ভোটের এক দিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। ছবির সঙ্গের ক্যাপশনে দাবি করা হয় যে লোকসভা ভোটে ভারতীয় জনতা পার্টির জয়ের কথা মাথায় রেখে এই সব প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

ক্যাপশনে লেখা হয়, “এই লাড্ডুর স্তূপের দিকে তাকান আর ভাবুন, মোদী কত ভোটের ব্যবধানে জিততে চলেছেন। জয় জয় শ্রীরাম”।

হিন্দি: लड्डुओं क़ा पहाड़ देख के समझ लो चमचों मोदी की विजय कितनी भयंकर होने वाली है । जय जय श्री राम |)

ভাইরাল পোস্ট

কনক মিশ্র-র নামের ফেসবুক প্রোফাইল থেকে শেয়ার করা ছবির আরকাইভড ভার্সন এখানে দেখতে পাবেন।

এই একই ছবি একই ক্যাপশনের সঙ্গে ফেসবুকের বিভিন্ন ব্যক্তিগত এবং গ্রুপ প্রোফাইল থেকে শেয়ার করা হয়েছে।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া পোস্ট

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া পোস্ট

তথ্য যাচাই

বুম ছবিটিকে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখেছে যে ছবিটি আগেও ভাইরাল হয়েছে, তবে অন্য দাবির সাথে।

এ বছর জানুয়ারি মাসে এই ছবিটি শেয়ার করা হয়েছিল এই ক্যাপশনের সঙ্গে: হরিয়ানায় জেজেপি-র আবস্থা বেশ খারাপ। জেজেপি-র হাল দেখুন। তাদের ২০ কুইন্টাল লাড্ডু এখন বিজেপি খাবে।

হিন্দি: हरयाणा में जेजेपी का हुआ हाल बेहाल | ये देखो जेजेपी का हाल | अब इनके 20 कुंतल लड्डू बीजेपी वाले मज़े करेंगे | बहुत उड़ रहे थे ये सब 2 दिन पहले से |)

অন্য একটি পোস্টে একই ছবি ব্যবহার করা হয়েছে, তবে ক্যাপশনটি আলাদা

জানুয়ারির ২৮ তারিখে হরিয়ানার জিন্দ আসনটিতে উপনির্বাচন হয় এবং বিজেপি তাতে জয়ী হয়। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে এই পোস্টটি সেই সময় ভাইরাল হয়। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে দুষ্মন্ত চৌটালার তৈরি জননায়ক জনতা পার্টি (জেজেপি) ওই উপনির্বাচনে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে।

তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে সেই সময় বিবিসি হিন্দি এই ছবিটির ফ্যাক্ট চেক করেছিল এবং ছবিটি যে ভুয়ো, তা জানিয়েছিল।

আসল ছবি?

বুমও দেখতে পায় যে ২০১৮-র অগস্টে বিভিন্ন ফেসবুক পেজ ও টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে একই ছবি সম্পূর্ণ আলাদা বিবরণের সঙ্গে শেয়ার করা হয়েছে।



আমরা ২০১৮ সালের আর একটা টুইট দেখতে পাই যাতে বলা হয় যে রোহতকে মহা কবীর ভান্ডারা দেওয়ার জন্য এই লাড্ডু তৈরি করা হয়েছে।



যদিও টুইটে এবং ফেসবুকে শেয়ার হওয়া এই ছবি ও ভাইরাল হওয়া পোস্টের ছবি এক নয়, তবে পিছনের সাদা আচ্ছাদন একই বলে মনে হয়।

ভাইরাল হওয়া পোস্টের ছবি ও টুইটারের ছবির তুলনা

বুম যদিও এই ছবিটি কোথা থেকে নেওয়া হয়েছে তা নিশ্চিত করে জানতে পারেনি, তবে ছবিটিকে যে ২০১৮ সালের জুন মাস থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা যাচ্ছে, তা চিহ্নিত করতে পেরেছে।

Claim Review :   লাড্ডুর স্তূপের দিকে তাকান আর ভাবুন, মোদী কত ভোটের ব্যবধানে জিততে চলেছেন।
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story