Connect with us

মোমো চ্যালেঞ্জ একটা ভাঁওতা, কিন্তু এডিট করা পেপ্পা পিগ-মোমো এখনও ইউটিউবে রয়েছে

মোমো চ্যালেঞ্জ একটা ভাঁওতা, কিন্তু এডিট করা পেপ্পা পিগ-মোমো এখনও ইউটিউবে রয়েছে

বুমের তথ্য যাচাই দেখিয়ে দিয়েছে মোমো চ্যালেঞ্জ একটা ধাপ্পা। কিন্তু কিছু ব্যক্তির তামাশা করার জন্য তৈরি মোমোর ছবি পেপ্পা-পিগ কার্টুনের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া ভিডিও এখনও ইউটিউবে রয়েছে।

‘মোমো চ্যালেঞ্জ’ আবার খবরে ফিরে এসেছে। কারণ হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজে বাবা-মা’দের সতর্ক করে বলা হচ্ছে যে, গা-ছমছমে মোমো চরিত্রটি, ইউটিউবে সম্প্রচারিত বাচ্চাদের জনপ্রিয় কার্টুন ‘পেপ্পা পিগ’এ যখন তখন ভেসে উঠছে।

মোমো চ্যালেঞ্জ ২০১৭ আর ২০১৮’তে আতঙ্ক ছড়িয়েছিল। সেটি একটি ইন্টারনেট ভাঁওতা, যেটি দাবি করে সেটি আত্মহত্যায় প্ররোচনা যোগায় এমনই একটা খেলা। এই ব্যাপারে ২০১৮ সালে বুম অনুসন্ধান চালায়। কিন্তু খেলাটি সরাসরি আত্মহত্যায় ইন্ধন জুগিয়েছে তেমন কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। (আরও জানতে এখানে ক্লিক করুন)।

এটি নতুন করে পাকিস্তানের কিছু অঞ্চলে ভাইরাল হতে দেখা গেছে।

বুমের তথ্য যাচাই থেকে জানা যায়, ‘মোমো চ্যালেঞ্জ’ একটি ভাঁওতা। কিন্তু কিছু ব্যক্তির তৈরি ভিডিওতে তামাশা করে মোমোর ছবি জুড়ে দেওয়া হয়েছে ইউটিউবের ‘পেপ্পে পিগ’ কার্টুনের সঙ্গে।

সাম্প্রতিক মোমো চ্যালেঞ্জের প্রত্যাবর্তন ঘটেছে একটি হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজের সাহায্যে। তাতে বলা হয়েছে, “প্রিয় অভিভাবকগণ, যদি আপনার বাচ্চারা (ইউটিউবে) পেপা পিগ বা অন্য কোনও ভিডিও দেখে, তাহলে সাবধান হতে হবে। কারণ, ভিডিও চলাকালে (মোমো) চরিত্রটি এসে যায় আর বাচ্চাদের খারাপ কাজ করতে বলে।”

একটি হোয়াটসঅ্যাপ ফরওয়ার্ড

বুম যে ভিডিওটি দেখে, সেটির শুরুর দৃশ্য হল – একটি লোক তাঁর ফোনে পেপ্পে পিগের একটা এপিসোড দেখছেন ইউুটিউবে। ওই এপিসোডে, পেপ্পা পিগের পরিবার পিকনিকে বেরিয়েছে আর তখনই মোমোর আবির্ভাব ঘটে। এবং দর্শকদের ক্ষতি হয়, তেমন কিছু করতে বলে।

হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল পেপ্পা পিগ ভিডিও যাতে মোমোকে দেখা যাচ্ছে

প্রযোজ্য কী ওয়ার্ড ব্যবহার করে সার্চ করলে, ফেসবুকে বুম আরও কিছু ভিডিওর সন্ধান পায়।

ফেসবুক সার্চ

ইউটিউব অ্যাকাউন্ট ‘হেদার হরভজন’ ভিডিওটি তৈরি করে। ওই ‘হেদার হরভজন’ চ্যানেলটির খোঁজ করা হয় গুগুল সার্চের সাহায্যে। দেখা যায়, হোয়াটসঅ্যাপে ভাইরাল হওয়া ওই চ্যানেলটি ইউটিউব তুলে দিয়েছে, কারণ ইউটিউবের কমিউনিটি গাইডলাইন লঙ্ঘন করেছিল সেটি।

হেদার চ্যানেলের গুগুল সার্চ

‘পেপ্পা পিগ’ একটি ব্রিটিশ অ্যানিমেশন সিরিজ। ইউটিউবে সেটির অফিসিয়াল চ্যানেলের নাম হল ‘পেপ্পা পিগ’—অফিসিয়াল চ্যানেল’। কিন্তু যে ভাইরাল ভিডিওটি ইউটিউবে রয়েছে সেটি আলাদা।

বুম ‘পেপ্পা পিগ’ সিরিয়ালের ২০০৪ সালে তৈরি ‘পিকনিক’ নামের একটি এপিসোডের সন্ধান পায়। সেটিতে মোমো চরিত্রের আবির্ভাব ঘটে না।

তা ছাড়া, ‘পেপ্পা পিগ—অফিসিয়াল চ্যানেল’ দ্বারা ১০ এপিসোড বুম খুঁটিয়ে দেখে, কিন্তু তাতে মোমো চরিত্রটিকে কোথাও দেখা যায় না। বা সেগুলি ‘হ্যাক’ করা হয়েছে তেমন লক্ষণও ছিল না, যদিও ‘টাইমস অফ ইন্ডিয়া’র একটি লেখায় তেমনটাই বলা হয়েছিল। (ওই রিপোর্টের আরকাইভ সংস্করণ দেখতে এখানে ক্লিক করুন)।

এ পর্যন্ত ইউটিইব যা বলেছে

ফেব্রুয়ারি ২৭, ২০১৯ ইউটিউব টুইট করে জানায় যে মোমো চ্যালেঞ্জকে প্রোমোট করছে, সে রকম কোনও ভিডিও তাদের চোখে পড়েনি।

মোমো সংক্রান্ত বিষয়বস্তু এখনও ইউটিউবে দেখা যাচ্ছে

ইউটিউবের বক্তব্য সত্ত্বেও, বুম তাতে মোমোর অস্তিত্ব দেখতে পায়। ‘পেপ্পা পিগ বনাম মোমো’ আর ‘পেপ্পা পিগ এবং মোমো’ নামে সার্চ করলে, গোলমেলে বিষয়বস্তু এখনও দেখতে পাওয়া যায় ওই প্ল্যাটফর্মে।

তাছাড়া, ‘পেপ্পা পিগ মোমো’ নাম দিয়ে সার্চ করলে, চ্যানেল ‘রাইভার লুর’ দ্বারা একটি ২০০৭ সালের ভিডিও সামনে আসে। সেটিতে, পাপ্পা পিগ, পেপ্পা পিগের বাবা, তার স্ত্রীকে খুন করে। ওই ভিডিওটি প্রায় ৬.৩ লক্ষ বার দেখা হয়েছে। আর সার্চ রেজাল্টের প্রথম পাতাতেই সেটির উল্লেখ আছে।

ওই চ্যানেলই সম্প্রতি একটি ভিডিও আপলোড করেছে। নাম, ‘পেপ্পা পিগ বনাম মোমো’। একটি পেপ্পা পিগ এপিসোড থেকে নেওয়া ক্লিপের মধ্যে মোমোর ছবি আসতে দেখা যায় সেটিতে।

বুম পেপ্পা পিগের অফিসিয়াল চ্যানেল আর গুগুলের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তাঁদের প্রতিক্রিয়া জানার পর আমরা এই রিপোর্ট আপডেট করব।

(BOOM is now available across social media platforms. For quality fact check stories, subscribe to our Telegram and WhatsApp channels. You can also follow us on Twitter and Facebook.)


Continue Reading

Anmol Alphonso is a fact-checker with BOOM. He has previously interned at IndiaSpend as a fact-checker and was a reporting intern at Times of India, Indian Express, and Mid-Day. He is a post-graduate diploma holder in journalism from St Paul’s Institute of Communication Education, Mumbai.

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top