নেটিজেনরা বাবুল সুপ্রিয়ের সামনে প্রতিরোধ গড়া যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ভুল শনাক্ত করেছে

বুম শিল্পী আফরিনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে যিনি নিজেও ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। তার প্রোফাইলের স্ক্রিনশট ভাইরাল হওয়ার পর ফোন ও মেসেজে ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বৃহস্পতিবার ধস্তাধস্তি চলার সময় এক ছাত্রীকে প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ের বলপ্রয়োগের অভিযোগের একটি ছবি বিভ্রান্তিকর দাবি সহ সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

ছাত্রীটি হাতকাটা কালো রঙের টপ পরে রয়েছেন যাকে ভুল করে চিহ্নিত করা হয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী জনৈক শিল্পী আফরিন বলে। এবং দাবি করা হচ্ছে সে নিজে থেকে মন্ত্রীর দিকে উদ্ধত হয়েছে তাকে কালিমালিপ্ত করতে।

বুম আফরিনের সঙ্গে কথা বলেছে। তিনি জানিয়েছেন ওই ঘটনায় ভাইরাল হওয়া ছাত্রী অন্যজন ও তিনি নন। ঝামেলার সময় ছাত্রছাত্রী ও বাবুল সুপ্রিয়ের সামনে আসা মেয়েটিকে বুম শনাক্ত করেছে।

পরিবেশ, বন ও আবহাওয়া পরিবর্তন দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় ১৯ সেপ্টেম্বর যাদবপুর ক্যাম্পাসে ভারতীয় জনতা পার্টির ছাত্রসংগঠন এবিভিপি আয়োজিত নবীন বরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়েছিলেন। বাবুল সুপ্রিয় এসএফআই ও বামপন্থী ছাত্র সংগঠনের শতাধিক ছাত্রদের দ্বারা প্রায় ৫ ঘন্টার বেশি ঘেরাও হন। পরে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় তাকে উদ্ধার করতে আসেন। ছাত্ররা বাবুল সু্প্রিয়কে জোর করে বাধা দেন ‘ফ্যাসিস্ট শক্তির’ প্রতিনিধিত্ব করায়।

দুটি ছবি সহ এই পোস্টগুলি একাধিক ফেসবুক পেজে শেয়ার করা হয়েছে। একটিতে বাবুল সুপ্রিয়কে ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে উত্তপ্ত আলোচনা করতে দেখা যাচ্ছে। অন্যটিতে রয়েছে শিল্পী আফরিনের ফেসবুক প্রোফাইলের স্ক্রিনশট। আর দাবি করা হচ্ছে ছবি দুটি একজনেরই।

ফেসবুক পোস্টটিতে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ‌‘‘এই মহিলাগুলিকি সেক্সুয়ালি ফ্রাস্ট্রেটেড?! একটি পুরুষকে জড়িয়ে ধরে তার জামা ছিঁড়ে দিচ্ছে, উইদাউট কনসেন্ট বুক ঠেকাতে যাচ্ছে যাতে ঠেকাতে পারলেই দাবী তোলা যায় মলেস্টেশনের?! নাকি এরা বুঝতে পারছে না এই ছক তামাদি হয়ে হয়ে গেছে? আইনে পুরুষের মলেস্টেড হবার অভিযোগ করার প্রভিশন না থাকার সুযোগে এই যে নোংরামিগুলো করা হচ্ছে এ নিয়ে বৃহত্তর প্রেক্ষিতে আলোচনা হওয়া প্রয়োজন। এখানে যারা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে মলেস্ট করছেন, স্রেফ জেন্ডার মেল নয় বলেই তারা যা খুশী তাই করে, যা খুশী তাই বলে যেতে পারেন কিনা ছবি ভিডিওসহ দেখিয়ে মানুষকে জিজ্ঞাসা করুন। সামান্য নবীনবরণে গান গাইতে এসে একজন গায়ককেই বা এ জাতীয় বামপন্থী নোংরা জীবদের অত্যাচারের মুখোমুখি হতে হবে কেন এটা মানুষের থেকে জানা জরুরী। দুনিয়া জুড়ে কমিউনিস্ট শব্দটা শুনলেই মানুষ ঘৃণা করে কেন এতেই বোঝা যায়।’’

বহু পোস্ট শেয়ার করা হচ্ছে শিল্পী আফরিনের ডিঅ্যাক্টিভেট করা ফেসবুক অ্যাকাউন্টের ছবি সহ যেখানে মিথ্যে দাবি করা হচ্ছে ‘‘আপনি নারীজাতির কলঙ্ক।’’

শুধু তার প্রোফাইলের স্ক্রিনশট নয় বুম খুঁজে পেয়েছে তার একাধিক ছবি যেগুলি একই বয়ানে ভাইরাল করা হয়েছে।

তথ্য যাচাই

বুম নিশ্চিত হয়েছে বাবুল সুপ্রিয়ের সঙ্গে ছবিতে থাকা ছাত্রী শিল্পী আফরিন নয়। যার ফেসবুক পরিচয় তাকে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শনের ছাত্রী হিসেবে বর্ণনা করে।

আমরা আফরিনের সঙ্গে যোগাযোগ করি যিনি ঘটনা পরম্পরায় শিহরিত। তিনি বলেন, ‘‘ওই ছবিটিতে আমি ছিলামনা। আমি কাল থেকে হুমকি ফোন পাচ্ছি তাই প্রোফাইলটা ডিঅ্যাক্টিভেট করে দিই।’’

আফরিন বুমকে জানিয়েছে তার ছবি ভাইরাল হয়ে যাওয়ার পর ফেসবুক মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাকে হয়রানি করা হচ্ছে। দেওয়া হচ্ছে ধর্ষণেরও হুমকি।

‘‘শিল্পী অত্যন্ত ভীত। গতকাল থেকে কটুক্তির বন্যা বয়ে যাচ্ছে। আমরা চেষ্টা করছি তাকে যথাযথ সুরক্ষিত রাখার,’’ একথা বুমকে বলেন এসএফআই-এর যাদপুরের লোকাল কমিটির সভাপতি সন্দীপ নস্কর।

আমরা বাবুল সুপ্রিয়ের সঙ্গে থাকা ছাত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করতে পেরেছি।

বুম সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই পরিস্থিতিতে তার পরিচয় গোপন রাখার।

Show Full Article
Next Story