Connect with us

না, জেএনইউ থেকে নিখোঁজ ছাত্র নাজিব আহমেদ আইসিস-এর পতাকা নিয়ে ছবি তোলেননি

না, জেএনইউ থেকে নিখোঁজ ছাত্র নাজিব আহমেদ আইসিস-এর পতাকা নিয়ে ছবি তোলেননি

এটি ২০১৫ সালের মার্চে আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা রয়টার্স-এর তোলা ইরাকের একটি ছবি ।

ইরাকের শিয়া যোদ্ধাদের একটি পুরনো ফোটো নতুন করে সোশাল মিডিয়ায় ভেসে উঠেছে, যা দেখিয়ে বলা হচ্ছে, জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নাজিব আহমেদ নাকি ইসলামি স্টেটে (আইসিস) যোগ দিয়েছেন । ছবিটিতে একদল যোদ্ধাকে একটি কালো পতাকায় রঙ করা দেওয়ালের সামনে দাঁড়িয়ে থাকতে কিংবা হাঁটু মুড়ে বসে থাকতে দেখা যাচ্ছে, যে-পতাকাটি আইসিস-এর নিশান হিসাবে জেহাদিরা ব্যবহার করে ।

ফোটোটির ক্যাপশনে লেখাঃ “একে চিনতে পারছেন? ইনিই সেই জেএনইউ-র কমরেড নাজিব, যিনি আইসিসে যোগ দিয়েছিলেন ।” সঙ্গে নির্দেশ করা হয়েছে ঠিক মাঝখানে হাঁটু মুড়ে বসে থাকা এক তরুণের দিকে যিনি দু-আঙুলে ভি অর্থাৎ বিজয়ের চিহ্ন দেখাচ্ছেনঃ

ছবিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন । আর তার আর্কাইভ সংস্করণ দেখুন এখানে এবং এখানে

“JNU থেকে ডিরেক্ট প্লেসমেন্ট ISIS-তে।

চিনতে পারছেন এনাকে??
আরে এটা আপনাদের কমরেড নজীব!
হ্যাঁ JNU-এর নজীব… আজাদী গ্যাং-এর সেই নজীব!!
ভারতকে টুকরো টুকরো করার স্বপ্ন দেখা গ্যাং-এর নজিব!!
বাম-কামু-মাকুদের প্রিয় শান্তির ছেলে নজীব।যিনি JNU থেকে ডাইরেক্ট প্লেসমেন্ট হয়েছেন ISIS-এ!
সিরিয়া থেকে রাহুল গান্ডু-কেজরিওয়াল-সীতারাম ইয়েচুরিকে সালাম জানিয়েছে।”

ভিপ্লবদীর্ঘজীবীহউক

তথ্য যাচাই

বুম ছবিটির তত্ত্ব-তালাশ করে দেখেছে, এটি ২০১৫ সালের মার্চে আন্তর্জাতিক সংবাদসংস্থা রয়টার্স-এর তোলা ইরাকের একটি ছবি । মূল ছবিটির ক্যাপশন ছিলঃ “ইরাকের শিয়া যোদ্ধারা ২০১৫ সালের ৭ মার্চ আল আলম শহরের কাছে আল কসাইবা নগরে একটি দেওয়ালের কাছে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, যে দেওয়ালটিতে ইসলামি স্টেট জঙ্গিদের ব্যবহৃত একটি কালো পতাকা আঁকা রয়েছে ।” ছবিটি তুলেছেন থায়ির আল সুদানি ।

রয়টার্সের মূল ছবিটি এখানে দেখুন ।

অথচ জেএনইউ-র বায়োটেকনলজি বিভাগের এমএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র নাজিব আহমেদ নিখোঁজ হন ২০১৬ সালের ১৫ অক্টোবর, এই ছবিটি প্রকাশিত হওয়ার এক বছরেরও বেশি কাল পরে ।

বস্তুত, গত বছর টাইমস অফ ইন্ডিয়া এক রিপোর্টে ‘আইসিস-এর প্রতি নাজিবের ঝোঁকে’র কথা প্রচার করে, সে যেসব ওয়েবসাইট ঘাঁটত, সে সংক্রান্ত তথ্যের ভিত্তিতে । এই তথ্য এবং তার ভিত্তিতে রচিত রিপোর্টের মালমশলা আবার দিল্লি পুলিশের সরবরাহ করা, যারা নাকি ওই ওয়েবসাইটগুলি ঘেঁটে দেখেছে । পরে অন্যান্য সংবাদমাধ্যম যখন সেই ভুয়ো রিপোর্টের অসারতা ধরিয়ে দেয় এবং দিল্লি পুলিশও এ ধরনের কোনও তথ্য সরবরাহের কথা অস্বীকার করে, তখন অগত্যা টাইমস অফ ইন্ডিয়াও প্রতিবেদনটি তুলে নেয় ।

এ সংক্রান্ত রিপোর্টটি দেখুন এখানে

গত বছর অক্টোবরে সিবিআই-ও নিখোঁজ ছাত্র নাজিবকে খোঁজা বন্ধ করে দেয় এবং তাকে নিয়ে বানানো ফাইল তাকে তুলে রাখে । এ বিষয়ে আরও জানতে দেখুন এখানে

(BOOM is now available across social media platforms. For quality fact check stories, subscribe to our Telegram and WhatsApp channels. You can also follow us on Twitter and Facebook.)

Claim Review : Missing JNU student Najeeb Ahmed has joined ISIS

Fact Check : FALSE


Continue Reading

Swasti Chatterjee is a fact-checker and the Deputy News Editor of Boom's Bangla team. She has worked in the mainstream media, in the capacity of a reporter and copy editor with The Times of India, The Indian Express and NDTV.com and is now working as a digital detective, debunking fake news.

Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

To Top