নগ্ন পাকিস্তানি বাইক আরোহীর ভিডিও এক ভারতীয় মুসলমান যুবকের বলে চালানো হয়েছে

ক্লিপটি টুইট করেছেন আইনজীবী প্রশান্ত প্যাটেল উমরাও। ক্যাপশনে তিনি বলেছেন, ‘সে ভীত এবং শান্ত। জনতা তাকে ধরলে, সে বলবে আমায় জয় শ্রীরাম বলতে বাধ্য করা হয়েছে।’ যদিও ভিডিওটি আসলে পাকিস্তানের।

ভিডিওটিতে এক নগ্ন পাকিস্তানি যুবক মোটরবাইক নিয়ে খেলা দেখাচ্ছে। ভিডিওটি মিথ্যে দাবি সহ শেয়ার করা হচ্ছে এই বলে যে ঘটনাটি ঘটেছে ভারতে।

ভিডিওটি টুইট করেন এবং তা পরে ডিলিটও করেন আইনজীবী প্রশান্ত পাটেল উমরাও

ক্যাপশনে উনি লিখেছিলেন, ‘সে ভীত এবং শান্ত। জনতা যদি তাকে ধরে, তাহলে সে বলবে “আমায় জয় শ্রীরাম বলতে বাধ্য করা হয়”।’

উমরাও এমন এক প্রেক্ষাপটে টুইট করেছেন যখন ভারতে সংখ্যালঘুদের ওপর গণপ্রহারের ঘটনা বাড়ছে।

সম্প্রতি, ঝাড়খন্ডে, এক মুসলমান যুবককে চোর সন্দেহে নৃশংসভাবে পেটানো হয় এবং বাধ্য করা হয় ‘জয় শ্রীরাম’ বলতে। সে পরে হাসপাতালে মারা যায়।

ভিডিওটি শেয়ার হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই টুইটটি ডিলিট করে দেওয়া হয়। তবে বুম সেটির স্ক্রিনশট নিয়ে রাখতে পেরেছিল। তাছাড়া ওই ভিডিও সংক্রান্ত আলোচনার টুইটার সূত্র বুম আর্কাইভ করতে সক্ষম হয়েছে। আর্কাইভ সংস্করণটি এখানে দেখা যাবে।

উমরাও আগেও ভারতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উদ্দেশ্যে মিথ্যে তথ্য প্রচার করেছিলেন। বুম এবং আরও একটি তথ্য-যাচাই সংস্থা তাঁর ওই কারসাজি ধরে ফেলে। (আরও পড়তে, এখানেএখানে ক্লিক করুন)

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটি খুঁটিয়ে দেখে। কম বয়সী অনেককে দেখা যায় তাতে। তাদের পরনে কুর্তা-পাজামা আর মাথায় ফেজ টুপি।

এরপর আমরা ‘নেকেড ইয়ুথ ডাজ হুইলি’, এই শব্দগুলি ব্যবহার করে ইউটিউবে সার্চ করলে, ওই একই ভিডিও সামনে আসে। সেটির ক্যাপশনে লেখা ছিল, ‘সাহসী ছেলে শেহরোজ খান, নগ্ন হয়ে জনসমক্ষে।’

ইউটিউব সার্চের ফলাফল।

‘শেহরোজ খান নিউড হুইলি পাকিস্তান’ শব্দগুলি দিয়ে সার্চ করলে আমরা ২০১৫ সালের বেশ কয়েকটি প্রতিবেদন দেখতে পাই। আর সেই সঙ্গে ২০১৭ সালে ইউটিউবে আপলোড করা ওই একই ভিডিও সামনে আসে। রিপোর্টগুলিতে বলা হয় ঘটনাটি পাকিস্তানে ঘটেছিল।

নীচে ২০১৭ সালে ইউটিউবে আপলোড করা ভিডিওটি দেওয়া হল।

ভিডিওটিতে নগ্নতার দৃশ্য আছে। সে কথা বিবেচনা করেই ভিডিওটি দেখবেন।



ভিডিওটির সঙ্গে দেওয়া ক্যাপশনে বলা হয়, “শেহরোজ খান, যার আরও এক নাম ‘রকেট’ আবার নগ্ন হয়ে লাহোরের প্রধান সড়কে বাইক চালাচ্ছে।”

ওই ঘটনা সম্পর্কে ২০১৫ সালে প্রকাশিত খবরে ওই নগ্ন বাইক আরোহীকে শেহরোজ খান বলে চিহ্নিত করা হয়। আরও বলা হয়, বিবস্ত্র অবস্থায় বাইক চালানোর জন্য তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। প্রতিবেদনগুলি এখানেএখানে পড়া যাবে।

২০১৫ সালে হাফপোস্টে প্রকাশিত প্রতিবেদন।

বুম আরও কিছু ভিডিওর সন্ধান পায়। তাতে দেখা যায় ওই বালক পুলিশ হেফাজতে রয়েছে।





২০১৫ সালে ইউটিউবে প্রকাশিত হসেছিল।

Show Full Article
Next Story