পুলওয়ামা কাণ্ড: ইন্দোনেশিয়ার ভিডিও শেয়ার করে ছড়ানো হল ভ্রান্তি

এক বন্দুকবাজকে কাবু করছেন ইন্দোনেশিয়ার দুই সেনা, একমাসের পুরনো এমন একটি ভিডিও ব্যাপক ভাবে ছড়ানো হল। ভিডিওটি দেখে বোঝা যাচ্ছে না যে এটি সত্যি কোনও সন্ত্রাসবাদী হামলা, না কি নেহাতই সেনাদের মহড়া

ইন্দোনেশিয়ার একটি ভিডিও ব্যাপক ভাবে ভাইরাল হয়েছে যাতে দেখা যাচ্ছে এক বন্দুকধারী ব্যক্তি একটি সেনা কমপ্লেক্সে ঢোকার চেষ্টা করছে, এবং দুই জওয়ান তার হাত থেকে বন্দুকটি কেড়ে নিচ্ছেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীরবিভিন্ন ফ্যানপেজে ভিডিওটি ভাইরালহয়েছে। আর সেখানে দাবি করা হয়েছে যে এটি ভারতীয় জওয়ানদের ছবি।পোস্টটির সঙ্গে দেওয়া মেসেজে বলা হয়েছে, “এই লোকটি ভারতীয়জওয়ানকে গুলি করতে চেষ্টা করছে। তার পরিণতি দেখুন”।

পোস্টের আর্কাইভ ভার্সন এখানে দেখুন।

প্রাউড অব ইন্ডিয়ান আর্মি নামক একটি ফেসবুক পেজে এই বছর ৮ জানুয়ারি ভিডিওটি আপলোড করা হয়। তার পর পোস্টটি ব্যাপক ভাবে শেয়ার করা হয়েছিল। এটি প্রায় ৪১,০০০ শেয়ার পেয়েছিল।পুলওয়ামা হামলার পর পোস্টটি নতুন করে ছড়িয়ে পড়েছে।পুলওয়ামায় সন্ত্রাসবাদী হামলায় ৪০ জন সিআরপিএফ জওয়ান নিহত হয়েছেন। যদিও পোস্টটি প্রায় এক মাসের পুরনো, কিন্তু তাতে যে ৫৩০০০ কমেন্ট করা হয়েছে, তার মধ্যে
১৬০০ কমেন্ট গত ২৪ ঘণ্টায় এসেছে। অর্থাৎ, মোট যত কমেন্ট করা হয়েছে তার ৩০% করা হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়। কয়েকটি বাদ দিলে প্রায় সব কমেন্টে হয় বলা হয়েছে ‘জয় হিন্দ’,নয়তো ওই বন্দুকধারীকে মেরে ফেলার আবেদন করা হয়েছে।পোস্টটি গত ২৪ ঘণ্টায় ফেসবুকে ব্যাপক ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।

তথ্য যাচাই

যখন বুম ভিডিওটিকে আলাদা ফ্রেমে ভাগ করে নিয়ে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে,তখন কয়েকটি পেজের সন্ধান পাওয়া যায়, যেখানে একই ভিডিও আপলোড করা রয়েেছে। প্রায় সবকটি ভিডিওতে একই ধরনের ক্যাপশন রয়েছে। গুগল ট্রান্সলেটরের সাহায্যে আমরা বুঝতে পারি যে ভাষাটি ইন্দোনেশিয়ার। বেশিরভাগ ক্যাপশন অনুবাদ করলে অর্থ দাঁড়ায়, “হায় ঈশ্বর!! এই যুবকটি এনআই-কে চ্যালেঞ্জ করেছে। তার পরিণতি দেখুন”।

তেনতারা ন্যাসনাল ইন্দোনেশিয়া (টিএনআই) বা ইন্দোনেশিয়ান ন্যাশনাল আর্মি হল ইন্দোনেশিয়ার সেনাবাহিনী।



যদিও এটা খুব পরিষ্কার বোঝা যাছে না যে ভিডিও টি সত্যি কোনও সন্ত্রাসবাদী হামলার, নাকি নেহাতই সেনাদের মহড়ার ভিডিও।তবে এটি যে ভারতের ভিডিও নয়,তা নিশ্চিত।

Claim :   A man trying to attack an army jawan was overpowered and disarmed swiftly
Claimed By :  Facebook User Sharvan Patel
Fact Check :  MISLEADING
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.