গঙ্গা সাফাই: মোদীকে এক হাত নিতে আরজেডি পুরনো ছবি ব্যবহার করেছে

আরজেডির টুইট করা ছবির দুটি হল ২০১৩ আর ২০১৫ সালের, অন্যটি পাকিস্তানের করাচির

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ২০১৪ সালের দেওয়া গঙ্গা সাফাইয়ের প্রতিশ্রুতিকে ২০১৯’র লোকসভা নির্বাচনের আগে কটাক্ষ করে রাষ্ট্রীয় জনতা দল (আরজেডি) চারটি ছবি টুইট করেছে।

সেগুলির সঙ্গে দেওয়া হিন্দিতে লেখা বক্তব্যে বলা হয়েছে: “কলঙ্কিত মোদীর নির্বাচনী প্রচার করার প্রয়োজন নেই। মিডিয়াকে কোলে বসিয়ে তাদের মুখে কালো টাকা গুঁজে দিলেই প্রচার হয়ে যায়। একটি জোরাল চ্যানেল বলেছে যে, মোদী আসার পর ঘাটগুলি চমৎকার হয়েছে। কিন্তু আসল ছবিটা দেখে নিন।”

হিন্দি বয়ানটি ছিল এ রকম: “दागदार मोदी को अधिक चुनाव प्रचार की ज़रूरत नहीं पड़ती है, गोदी मीडिया का मुँह काले धन से भर दो, चुनाव प्रचार हो जाता है! एक ज्यादा ही तेज चैनल कह रहा है कि मोदी के आने से घाट चकाचक हो गए हैं! आप भी देख लीजिए!”

গঙ্গার অপরিচ্ছন্নতা নিয়ে মোদীকে সমালোচনা করে আরজেডির টুইট

টুইটটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন, আরকাইভ সংস্করণের জন্য এখানে

এই প্রতিবেদন লেখার সময়, টুইটটি ৩৮৯ বার রিটুইট করা হয়েছিল আর লাইক পেয়েছিল এক হাজারটি।

বিহারের বিধানসভায় বিরোধী পক্ষের নেতা আরজেডির তেজস্বী যাদব টুইটটি রিটুইট করেন। আর সেই সঙ্গে আরও বলেন, “বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কথা বলতে গেলে, কোলে বসা মিডিয়ার গলা শুকিয়ে যায়। মোদী নয়, ইস্যু নিয়ে কথা বলুন।”

হিন্দিতে তাঁর লেখার বয়ানটি ছিল এ রকম: “मुद्दों पर बात करने में तो गोदी मीडिया का गला सुख जाता है। #मोदीनहींमुद्देपेआइये ।“

তেজস্বী যাদবের টুইট

টুইটটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন; আরকাইভ সংস্করণ দেখতে, এখানে

এই লেখাটি লেখার সময় পর্যন্ত, তাঁর টুইট ১,৫০০ রিটুইট পেয়েছিল আর লাইক পেয়েছিল ৬,৬০০।

তথ্য যাচাই

বুম চারটি ছবির ক্ষেত্রেই রিভার্স ইমেজ সার্চ করে। দেখা যায়, একটি ছবি ২০১৩ সালের, অন্য একটি ২০১৫ সালের, অপর একটি পাকিস্তানের করাচির, আর বাকিটি সম্পর্কে নিশ্চিতভাবে কিছু জানা যায়নি।

ছবি-১

আরজেডি দ্বারা টুইট করা ১নং ছবি, যেটিকে গঙ্গার সাম্প্রতিক ছবি বলে দাবি করা হয়

সোর্স
শাটারকক

স্টক ফোটো সরবরাহকারী সংস্থা শাটারকক’র জন্য উত্তর প্রদেশে বারাণসীর ঘাটের ওপর ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও ক্লিপ তুলে ছিলেন পল প্রেসকট। ওই ভিডিও থেকেই ছবিটি নেওয়া হয়।

ছবি-২

আরজেডির পোস্ট করা ২ নং ছবি, যেটিকে গঙ্গার সাম্প্রতিক ছবি বলা হয়েছে

গুগুলে রিভার্স ইমেজ সার্চ করে বুম। সার্চ রেজাল্ট থেকে দেখা যায়, ছবিটি প্রথম ব্যবহার হয় জুলাই ১, ২০১৫ সালে লেখা এক রিপোর্টে। ফাউন্ডেশন ফর নন-ভায়লেন্ট অল্টারনেটিভস’র জন্য ‘গ্যাঞ্জেস রিডিয়ুসড টু স্লাজ ইন ভারানসি’ (বারাণসীতে গঙ্গা পাঁকে পর্যবসিত হয়েছে’ নামের ওই রিপোর্টটি লেখেন রুহি কান্ধারি।

গুগুল রিভার্স সার্চের রেজাল্ট অনুযায়ী ২ নং ছবিটি প্রথম দেখা যায় ২০১৫’র এই লেখায়

লেখাটিতে ছবির নীচে ক্যাপশানে বলা হয়: “এখন প্রায় নর্দমায় পর্যবসিত অস্সি নদী থেকে অপরিশোধিত বর্জ্য জল আর নর্দমার ময়লা বারাণসীতে গঙ্গায় গিয়ে মিশছে ।

ছবি-৩

আরজেডির দ্বারা টুইট করা ৩ নং ছবি, যেটিকে গঙ্গার সাম্প্রতিক ছবি বলে দাবি করা হয়েছে

এটি ভারতে গঙ্গার ছবিই নয়। ওটি পাকিস্তানের করাচি শহরে শাটারকক’র জন্য ডেভিড ইভানস মিডিয়ার তোলা একটি ২০-সেকেন্ডের ভিডিও থেকে নেওয়া। ভিডিওটি জুলাই ২৮, ২০১৩ সালে তোলা হয়েছিল।

সোর্স: শাটারকক

ছবি-৪

আরজেডির দ্বারা টুইট করা ৪নং ছবি, যেটিকে গঙ্গার সাম্প্রতিক ছবি বলে দাবি করা হয়েছে

ওই ৪নং ছবিটি সম্পর্কে বিশেষ কিছু জানা যায়নি। কারণ, গুগুলে রিভার্স সার্চ করেও যাচাই করে নেওয়ার মতো কোনও তথ্য উঠে আসেনি।

Claim Review :   অপরিস্কার গঙ্গার ঘাটের ছবি
Claimed By :  রাষ্ট্রীয় জনতা দল
Fact Check :  বিভ্রান্তিকর
Show Full Article
Next Story