২০১৪ সালে সংখ্যালঘুদের সম্পর্কে বলা আরএসএস নেতার বিতর্কমূলক মন্তব্য নতুন করে শেয়ার করা হচ্ছে

বুম দেখে সংবাদ বুলেটিনটি ২০১৮ সালের। যখন একজন আরএসএস নেতা রাজেশ্বর সিং মন্তব্য করেছিলেন যে, ২০২১ সালের মধ্যে ইসলাম ও খ্রিস্টধর্মকে নির্মূল করা হবে।

প্রায় ৫ বছর আগের এক ভিডিওতে, আরএসএস প্রচারক রাজেশ্বর সিং বলেন যে, ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর এর মধ্যে ইসলাম ও খ্রিস্টধর্মকে নির্মূল করে দেওয়া হবে। সেই বিতর্কমূলক মন্তব্যের পুরনো ভিডিওটি সাম্প্রতিক বলে আবার শেয়ার করা হচ্ছে।

স্বাধীন সাংবাদিক সি. জে. ওয়েরলেম্যানও বিচলিত করার মতো সিংয়ের ওই মন্তব্যের সংবাদটি শেয়ার করেন। তবে, ভুলবশত উনি বলেন, সিং একজন বিজেপি নেতা।

‘এবিপি নিউজ’এর ২ মিনিট ২০ সেকেন্ডের এক ভিডিও ক্লিপে সিংয়ের ওই মন্তব্য রয়েছে। তাতে উনি বলছেন:

“ভারতের অন্তরাত্মা জেগে উঠেছে। ভারত মাতা এখন উঠে দাঁড়িয়েছেন। তাঁর লক্ষ্যে পৌঁছতে তিনি উদ্গ্রীব। ৩১ ডিসেম্বর ২০২১ হল খ্রিস্টান সন্ত্রাসবাদী আর ইসলামের শেষ দিন। ওই তারিখের মধ্যে খ্রিস্টধর্ম আর ইসলামকে আমরা এই দেশ থেকে মুছে ফেলতে বদ্ধপরিকর। এটা আমার ও আমার কমরেডদের অঙ্গিকার।”

—রাজেশ্বর সিং

রাজেশ্বর সিং হলেন ‘ধর্ম জাগরণ সমিতির’ প্রাক্তন প্রধান। উত্তরপ্রদেশে ওই সংস্থার ‘ঘর ওয়াপসি’ বা হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে আনার কর্মসূচির নেতৃত্ব দেন উনি।

ওয়েরলেম্যানও ভিডিওটি ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ার করেন। সেই সঙ্গে উনি ক্যাপশনে লেখেন, “বিজেপি নেতা রাজেশ্বর সিং বলেছেন যে, ২০২১ সালের মধ্যে ভারতে খ্রিস্টধর্ম আর ইসলামকে শেষ করে দেওয়া হবে। উনি ভারতের ক্ষমতাসীন পার্টির একজন সদস্য। ২০০ মিলিয়ন মুসলমান ও ২৮ মিলিয়ন খ্রিস্টানকে জাতিগতভাবে নির্মূল করার সরকারি পরিকল্পনার কথা উনি বড়াই করে বলছেন।”

এই প্রতিবেদন লেখার সময় অবধি, ভিডিওটি ১,৩৫,০০০ বার দেখা হয়েছিল।



বুম অতীতেও ওয়েরলেম্যান সম্পর্কে তথ্য যাচাই করেছে।

আরও পড়ুন: ৩৭০ ধারা: ২০১৭ সালের বিক্ষোভকে সাম্প্রতিক বলে চালানো হয়েছে

একই ধরনের ক্যাপশান নিয়ে ভিডিওটি ফেসবুকে ফিরে এসেছে।

তাছাড়া, ওই একই ভিডি নিয়ে ওয়েরলেম্যানের ফেসবুক পোস্টটিকে সাম্প্রতিক বলে শেয়ার করেছে ব্লগ ‘সিয়াস্যাট.পিকে’

তথ্য যাচাই

বুম কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করলে, এবিপি নিউজের তৈরি রাজেশ্বর সিং আর মিডিয়ার কথোপকথনের একটি বড় ভিডিও সামনে আসে।



বুলেটিনটি ২০১৪ সালের ডিসেম্বর মাসে ইউটিউবে আপলোড করা হয়। সিংয়ের বিতর্কমূলক মন্তব্যের নিয়ে একাধিক প্রতিবেদন খুঁজে পেয়েছি।



সিংয়ের মন্তব্যে অস্বস্তিতে পড়ে যায় আরএসএস। মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, উত্তরপ্রদেশে তাঁর ধর্মান্তকরণের কর্মসূচি শেষ হলে, সিংকে অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে লম্বা ছুটিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

Show Full Article
Next Story