ছত্তিশগড়ে এক কিশোরীকে নিগ্রহ করার ভিডিও গুজরাটের আরএমভিএম স্কুলের ঘটনা বলে চালানো হচ্ছে

বুম দেখেছে, ভিডিওটি ছত্তিশগড়ের রায়পুরের, যেখানে এক পাদ্রি এক কিশোরীর ভূত তাড়ানোর অজুহাতে তাকে লাঞ্ছনা করছে এবং তার শ্লীলতাহানি করছে

এক ব্যক্তি ভূত তাড়ানোর অছিলায় একটি মেয়ের নিগ্রহ ও শ্লীলতাহানি করছে, এমন একটি অস্বস্তিকর ভিডিও একটি ভুয়ো বিবরণী সহ সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে যে, এটি গুজরাটের আরএমভিএম স্কুলের ঘটনা ।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, এক মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি এক কিশোরীকে চুল ধরে টানছে, নীচে পেড়ে ফেলছে এবং তার অস্থানে হাত দিচ্ছে, যখন এক মহিলা ও একটি শিশু তা দাঁড়িয়ে দেখছে ।

হিন্দিতে ভিডিও ক্লিপটির ক্যাপশন হলঃ “এই ভিডিওটি সব জায়গায় পাঠিয়ে দিন । ইনি বালসাদের আরএমভিএম স্কুলের এক শিক্ষক । ভিডিওটি যতবার সম্ভব শেয়ার করুন । এটি ভাইরাল হলে তার একটা প্রভাব পড়বে । স্কুলটি বন্ধ হয়ে যাবে এবং তদন্তও তাড়াতাড়ি হবে । যাঁদের ভিডিওটি দেখেও দয়া হবে না,তাঁরা না হয় নাই শেয়ার করলেন ।”

এই ভিডিও ক্লিপটি দিল্লি বিজেপির মুখপাত্র তেজিন্দর পাল সিং বাগ্গাও টুইট করেছেন । পরে বুম যখন এটি তুলে ধরে যে, এটি ওই স্কুলকে বদনাম করার জন্য আরও অনেক অনুরূপ ভুয়ো ভিডিওর একটি, তখন সেটি মুছে দেওয়া হয় ।

২০১৭ সাল থেকে ইন্টারনেটে ভুয়ো তথ্য ও গুজব ছড়িয়ে এই স্কুলটির সুনাম নষ্ট করার অপচেষ্টা চলেছে, যাতে অভিভাবকরা তাতে প্রভাবিত হয়ে তাঁদের বাচ্চাদের এই স্কুলে পড়তে না পাঠান । ফলে স্কুলটিতে ভর্তির সংখ্যাও অনেক কমে গেছে ।

আরও পড়ুনঃ কীভাবে গুজপাটের একটি নামি স্কুলকে ভুয়ো খবর ছড়িয়ে ধ্বংস করা হয়েছে

অস্বস্তিকর হওয়ায় বুম ভিডিওটি তার প্রতিবেদনের অন্তর্ভুক্ত না-করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ।

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটিকে মূল ফ্রেমে ভেঙে খোঁজখবর চালিয়ে দেখেছে, এই একই ভিডিও গত বছর ফেব্রুয়ারি মসে দৈনিক ভাস্কর সংবাদপত্র আপলোড করেছিল । ঘটনাটি আসলে রায়পুরের, যেখানে এক পাদ্রি এক কিশোরী মেয়ের ভূত ছাড়ানোর অজুহাতে তার শ্লীলতাহানি করেছিল ।

ঘটনাটি হরিভূমি সংবাদপত্রেও রিপোর্ট হয়েছিল । রিপোর্ট অনুযায়ী দীনেশ সাহু নামে এক ওঝা ও পাদ্রি তার মেয়ের সহপাঠিনীকে এভাবে লাঞ্ছনা করেছিল । ছত্তিশগড়ের চিপলি গ্রামের বাসিন্দা এই কিশোরীর পরিবার রায়পুরের সন্তোষনগরে চলে আসে যেখানে তার উপর এই ভূত ছাড়ানোর লাঞ্ছনা ও শ্লীলতাহানি চলে । ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার পর পুলিশ দীনেশ সাহুকে গ্রেফতারও করে ।

Claim Review :  বালসাদের আরএমভিএম স্কুলের এক শিক্ষক মেয়ের নিগ্রহ ও শ্লীলতাহানি করছে
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story