মরক্কোর একটি ভিডিওকে কুন্নুর এয়ারপোর্টে আগুন লাগার ঘটনা বলে শেয়ার করা হল

২০১৮ সালে বুম একই ভিডিওর তথ্য যাচাই করে তাকে মিথ্যে বলে প্রমাণ করেছিল। ঘটনাটি ঘটেছিল মরক্কোর একটি মলে।

২০১৮ সালের মরক্কোর একটি মলে এক জন লোকের গায়ে আগুন ধরে যায়। সেই ঘটনাটির ভিডিওটিকে শেয়ার করা হল কেরলের কুন্নুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ঘটনা বলে মিথ্যে দাবি করে।

২০ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে এক জন লোককে মলের মধ্যে গায়ে আগুন লাগা অবস্থায় দৌড়তে দেখা যাচ্ছে। নিরাপত্তারক্ষীদের দেখা যাচ্ছে আগুন নেভানোর আপ্রাণ চেষ্টা করতে।

ক্লিপটির সঙ্গে থাকা কন্নড় ক্যাপশনে দাবি করা হয়েছে যে এটি কুন্নুর বিমানবন্দরের ঘটনা। সেখানে এক ব্যক্তি পাওয়ার ব্যাঙ্কের সাহায্যে ফোনে চার্জ করছিলেন। সেই সময় ফোনে বিস্ফোরণ ঘটে এবং আগুন ধরে যায়।

ভিডিওটির ক্যাপশনে কন্নড় ভাষায় দাবি করা হয়েছে, "দুর্ঘটনাটি কুন্নুর বিমানবন্দরে ঘটে। সেখানে এক ব্যক্তি পাওয়ার ব্যাঙ্কের সাহায্যে ফোনে চার্জ করছিলেন। সেই সময় ফোনে বিস্ফোরণ ঘটে আগুন ধরে যায়। সচেতনতা বাড়ানোর জন্য ভিডিওটি শেয়ার করুন"।

(কন্নড় ভাষায় মূল ক্যাপশন: ಕಣ್ಣೂರು ಏರ್ ಪೋರ್ಟ್ನಲ್ಲಿ ಪವರ್ ಬ್ಯಾಂಕ್ ಅನ್ನು ಜೇಬಿನಲ್ಲಿಟ್ಟುಕೊಂಡು ವ್ಯಕ್ತಿಯೊಬ್ಬ ತನ್ನ ಸೆಲ್ ಫೋನ್ ಚಾರ್ಜ್ ಮಾಡುತ್ತಿದ್ದಾಗ ಈ ಅಪಘಾತ ಸಂಭವಿಸಿದೆ. ಸಾರ್ವಜನಿಕರೊಂದಿಗೆ ಜಾಗೃತಿ ಮೂಡಿಸಲು ಇದನ್ನು ಸಾಧ್ಯವಾದಷ್ಟು ಜನರಿಗೆ ಕಳುಹಿಸೋಣ.)

এই একই ভিডিও ২০১৮ সালে ভাইরাল হয়েছিল। সে সময় ভিডিওটিতে দাবি করা হয়েছিল যে দুর্ঘটনাটি দুবাইয়ের একটি মলে ঘটে। তখনও অবশ্য দাবি করা হয় যে মোবাইল ফোনে বিস্ফোরণের ফলেই এই ঘটনা ঘটেছে।

তথ্য যাচাই

২০১৮ সালে বুম এই একই ভিডিওর তথ্য যাচাই করে এবং এটি মিথ্যে বলে প্রমাণ করে। সে সময় অবশ্য ঘটনাটি দুবাইয়ের বলে দাবি করা হয়েছিল।

ভিডিওটি আসলে মরক্কোর আগাদির মার্কেটের। ২০১৮ সালের ৩ জুন সেখানে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। ৩০ বছরের এক ব্যক্তি মল থেকে জিনিস চুরি করতে গিয়ে নিরাপত্তারক্ষীদের হাতে ধরা পড়ে যায় এবং তাকে অনেক টাকা জরিমানা করা হয়। তখন ওই ব্যক্তি নিজের গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়। এই ঘটনাটি সম্পর্কে এখানে আরও বিশদে পড়তে পারেন।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে কুন্নুর আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পক্ষ থেকে তাদের ফেসবুক পেজে ভিডিওটি মিথ্যে প্রমাণ করা হয়। পোস্টটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

Updated On: 2019-11-26T22:54:12+05:30
Claim Review :   পাওয়ার ব্যাঙ্ক ফেটে কুন্নুর বিমানবন্দরে আগুন ধরে যাওয়ার ভিডিও
Claimed By :  TWITTER USERS
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story