বাংলাদেশে কুপিয়ে মারার ভিডিওকে ভারতে মুসলিমদের হাতে হিন্দুদের নিধনের ঘটনা হিশেবে ভাইরাল করা হয়েছে

বুম দেখেছে, মূল ভিডিওটি বাংলাদেশের, যাতে খুনের দায়ে অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে মারা হচ্ছে

বাংলাদেশের কুমিল্লা জেলায় সংঘটিত একটি কুপিয়ে হত্যার ঘটনাকে সাম্প্রদায়িক রঙ লাগিয়ে সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করা হচ্ছে যে, এটা নাকি মুসলিমদের দ্বারা হিন্দুদের মারার ছবি । সম্প্রতি ঝাড়খণ্ডে ২৪ বছর বয়স্ক মুসলিম যুবক তাবরেজ আনসারিকে পিটিয়ে মারার ঘটনার প্রেক্ষাপটেই এই ভুয়ো ব্যাখ্যা জুড়ে বাংলাদেশের ভিডিওটি শেয়ার করা হচ্ছে ।

এই লেখার আগে পর্যন্ত মোট ৭১০০০ জন ভিডিওটি শেয়ার করেছে । আর তাতে ক্যাপশন দেওয়া হয়েছেঃ “এটা কি লিঞ্চিং বা গণ-পিটুনিতে হত্যা নয়? নিহত ব্যক্তি হিন্দু এবং ঘাতকরা মুসলিম বলেই কি বুদ্ধিজীবীদের দৃষ্টিতে এটা লিঞ্চিং নয়?”

১২ সেকেন্ডের এই ভিডিও ক্লিপটিতে দেখা যাচ্ছে, পাঁচজন লোক একটা ভারী, বড় পাথর দিয়ে একজনকে মারছে ।

এর আগেও এই ভিডিওটি সাম্প্রদায়িক ব্যাখ্যা সহ সোশাল মিডিয়ায় ঘুরে বেড়িয়েছে l ৬ মাস আগে শেয়ার হওয়া এমন একটি পোস্টে তো এই দাবিও করা হয়েছিল যে, ঘটনাটি পশ্চিমবঙ্গের । তার ক্যাপশন ছিলঃ ‘এক মুসলিম জনতা পাথর দিয়ে এক হিন্দুকে মারছে’।

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটির ফ্রেম ভেঙে অনুসন্ধান চালিয়ে দেখেছে, এটি বাংলাদেশের একটি ঘটনার ছবি l একই ভিডিও আমরা ইউ-টিউবেও খুঁজে পাই, যাতে ক্যাপশন জিলঃ “চেয়ারম্যান মুনির-এর খুনিকে জনতা কুপিয়ে হত্যা করেছে “।

২০১৭ সালের এপ্রিলে ভিডিওটি আপলোড করা হয় ।



বুম এই ঘটনার বেশ কিছু সংবাদ-প্রতিবেদনও খুঁজে পায়, যেগুলি বাংলাদেশের সংবাদ-পোর্টালে প্রকাশিত হয়েছিল ।

ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুনির হুসেনকে খুনের দায়ে অন্যতম অভিযুক্ত আবু সঈদকে(২৮)দাউদকান্দি উপজেলায় কয়েকজন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি কুপিয়ে হত্যা করে । ওই আক্রমণেই অন্য অভিযুক্ত মহম্মদ আলিও(৩৮) গুরুতর আহত হয় ।

আওয়ামি লিগের নেতা মুনির হুসেন ২০১৬ সালে কুমিল্লায় আততায়ীদের গুলিতে প্রাণ হারান

Claim :   এক মুসলিম জনতা পাথর দিয়ে এক হিন্দুকে মারছে
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FALSE
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.