২০১৭ সালে চিনে পুলিশি বর্বরতার একটি ভিডিওকে সাম্প্রতিক বলা হল

বুম দেখে ভাইরাল ভিডিওটি ২০১৭ সালের সেপ্টেম্বর মাসের। সাংহাইয়ের শহরতলিতে গাড়ি পার্ক করা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বিবাদ বাঁধে।

চিনে পার্কিং করা নিয়ে পুলিশের সঙ্গে বিবাদে বাচ্চা সমেত এক মহিলাকে ধাক্কা দিয়ে ফুটপাতে ফেলে দেওয়ার বর্বরচিত ২০১৭ সালের ভিডিওকে সোশাল মিডিয়ায় ও গণমাধ্যমে সাম্প্রতিক ঘটনা বলে চালানো হচ্ছে।

ভারতের পাঠকের সংখ্যার দিক থেকে বৃহত্তম ইংরেজি সংবাদপত্র 'টাইমস অফ ইন্ডিয়া' প্রতিবেদনে স্পষ্ট করে বলা হয়নি যে ভিডিওটি ২০১৭ সালের। শুধু বলা হয়, পুলিশের ওই আচরণের বিরুদ্ধে অনলাইনে ধিক্কার জানিয়েছেন মানুষজন। প্রতিবেদনটিতে শিরোনাম লেখা হয়, "ক্যামেরায় ধরা পড়েছে: বাচ্চা সমেত এক মহিলাকে চিনের পুলিশ নির্মম ভাবে, মাটিতে ফেলে দিয়েছে।"

এক মিনিট ২২ সেকেন্ডের ওই ভিডিওতে বাচ্চা সমেত ওই মহিলার সঙ্গে দুই পুলিশ অফিসারের বচসা হতে দেখা যাচ্ছে। মহিলাটি এগিয়ে গিয়ে একজন পুলিশকে ধাক্কা দেন। কথা কাটাকাটি বাড়তে থাকলে, পুলিশটি মহিলাকে মাটিতে ফেল দেন। তার ফলে বাচ্চাটিও মাটিতে ছিটকে পড়ে যায়। কিছু পথচারী বাচ্চাটিকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসেন, কিন্তু মহিলার সঙ্গে দুই পুলিশ অফিসারের ধস্তাধস্তি চলতে থাকে।

ওই প্রতিবেদনের আর্কাইভ সংস্করণ এখানে দেখা যাবে।

সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিনিয়াপোলিসে পুলিসি অত্যাচারে জর্জ ফ্লয়েড নামের এক কৃষ্ণাঙ্গের মৃত্যু এবং তার প্রতিবাদে বিশ্বজুড়ে 'ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার' আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ভিডিওটি শেয়ার করা হচ্ছে। বেশ কিছু টুইটার ব্যবহারকারী এই বলে ভিডিওটি শেয়ার করেছেন যে, চিনে "পুলিশি অত্যাচারের বিরুদ্ধে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায় না।"
একই দাবি সমেত ভিডিওটি শেয়ার ও রিটুইট করা হয়েছে। টুইটটির আর্কাইভ করা আছে এখানে
ভিডিওটি সাম্প্রতিক কিনা, তা জানতে চেয়ে সেটি বুমের হেল্পলাইন নম্বরে (৭৭০০৯ ০৬১১১) পাঠানো হয়।
তথ্য যাচাই
ভিডিওটির কয়েকটি প্রধান ফ্রেম বেছে নিয়ে রিভার্স ইমেজ সার্চ করলে ২০১৭-র কিছু রিপোর্ট সামনে আসে।
১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তে, 'চায়না গ্লোবাল টিভি নেটওয়ার্ক'-এ প্রকাশিত এক খবর থেকে জানা যায় যে, সাংহাইয়ের শহরতলিতে ঘটনাটি ঘটে। ওই চ্যানেলটির রিপোর্ট অনুযায়ী, ওই মহিলা ও পুলিশের মধ্যে গাড়ি পার্ক করা নিয়ে বচসা বাধে। একজন পুলিশ অফিসার মহিলাটির সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে তাঁকে মাটিতে ফেলে দেন এবং অন্য একজন অফিসারের সাহায্যে তাঁকে মাটিতে আটকে রাখেন।
রিপোর্টে বলা হয়, তাঁরা কোনও রকম আঘাত পেয়েছেন কিনা তা জানতে ওই মহিলা ও তাঁর বাচ্চাটিকে পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়।

ওই ঘটনাটির ভিডিও ২০১৭ সালেও ভাইরাল হয়েছিল। তার ফলে মিউনিসিপাল ব্যুরো অফ পাবলিক সিকিউরিটি একটি বিবৃতি দিতে বাধ্য হয় এবং ওই অফিসারদের সাসপেন্ড করা হয়। ২ সেপ্টেম্বর ২০১৭-য় 'নিউ ইয়র্ক টাইমস' ওই ভিডিওটি সম্পর্কে লেখে

Claim :   ভিডিওতে দেখা যায় সম্প্রতি চিনে পুলিশের দ্বারা বাচ্চা সহ নিগৃহীত হচ্ছে এক মহিলা
Claimed By :  Twitter Users
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.