থরে থরে বই সাজানো চন্দননগরের জগদ্ধাত্রী পুজোর মন্ডপের ছবিটি ২০১৯ সালের

বুম দেখে চন্দননগরের বাগবাজার সার্বজনীন জগদ্ধাত্রী পুজো বর্ণপরিচয় থিমে থাক থাক বই সাজিয়ে প্যান্ডেল করে ২০১৯ সালে।

সোশাল মিডিয়ায় চন্দননগরের বাগবাজার সার্বজনীন জগদ্ধাত্রী পুজোর ২০১৯ সালের মন্ডপের ছবিকে বিভ্রান্তিকর দাবি সহ শেয়ার করা হচ্ছে। ফেসবুকে ছবিটি বিভ্রান্তিকর ক্যাপশন সহ শেয়ার করার ফলে অনেকেই ছবিটিকে এবছরের জগদ্ধাত্রী পুজোর ছবি বলে ভুল করছেন।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ছবিটিতে দেখা যায় থরে থরে বই দিয়ে সাজানো হয়েছে ওই পুজো প্যান্ডেলে প্রবেশপথ।

ছবিটি শেয়ার করে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ''চন্দননগরের একটি পুজো মন্ডপ, কি অসাধারণ ভাবে সাজিয়েছে দেখুন।''

পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

একই ক্যাপশন সহ ছবিটি বিভিন্ন ফেসবুক পেজে শেয়ার করা হচ্ছে। এরকম দুটি ফেসবুক পোস্ট দেখা যাবে এখানেএখানে। পোস্ট দুটি আর্কাইভ করা আছে এখানেএখানে

তথ্য যাচাই

বুম দেখে ছবিটিতে ওই মন্ডপের প্রবেশ পথে 'গবাজার' শব্দটি লেখা হয়েছে। বুম এই থেকে বাগবাজার এলাকার প্যান্ডেল হওয়ার সম্ভাবনা অনুমান করে।

এই সূত্র ধরে ইউটিউবে 'বাগবাজার', 'জগদ্ধাত্রী পুজো' প্রভৃতি কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করে ইউটিউবে ২০১৯ সালের অক্টোবর মাসে আপলোড করা একাধিক ভিডিওর সন্ধান পায়। ২০১৯ সালে বাগবাজার সার্বজনীন জগদ্ধাত্রীর মন্ডপের থিম ছিল 'বর্ণপরিচয়'। ভিডিওগুলি দেখা যাবে এখানে, এখানেএখানে

বুম ফেসবুকে অনুসন্ধান করে 'বাগবাজার সার্বজনীন জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটি' নামে একটি ফেসবুক পেজ খুঁজে পায়।

ওই ফেসবুক পেজে বই সাজিয়ে তৈরি করা মন্ডপের একাধিক ছবি আপলোড করা হয়েছিল আগের বছর।

করোনা পরিস্থিতিতে এবছর কার্যত চন্দননগরের জগদ্ধাত্রী পুজো বেশ ম্লান। সামাজিক সুরক্ষাবিধির পাশাপাশি আলোকসজ্জা সহ শোভাযাত্রায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এবছর তাই অনেকেই ঘটপুজোর মাধ্যমে দেবীর আরাধোনার নন্যতম আচার পালনের চেষ্ঠা করছেন।

'বাগবাজার সার্বজনীন জগদ্ধাত্রী পুজো কমিটি'র ফেসবুক পেজেও ভিড়হীন পুজো পালনের লাইভ চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। ফেসবুক পোস্টে স্বীকার করা হয়েছে করোনা পরিস্থিতির কথাও।

বুম ইউটিউবেও আরেকটি ভিডিও খুঁজে পেয়েছে সেখানেও এবছর ওই পুজো কমিটির ঘটপুজোর মাধ্যমে পুজো পালনের কথা তুলে ধরা হয়েছে।

বুম ২০১৯ সালে চন্দনগরের আলোকসজ্জা বলে ভাইরাল হওয়া বিভ্রান্তিকর ভিডিওর তথ্যযাচাই করেছিল। তুরস্করের ইস্তানবুলেরগালাটা টাওয়ারের আলোকসজ্জাকে দাবি করা হয়েছিল চন্দনগরেরে পুজো মন্ডপের লেসারের আলোক কারিকুরি।

আবার জাপানের টোকিওরডিজনিল্যান্ডের আলেকসজ্জাকে বলা হয়েছিল চন্দননগরের আলো। বুম ওই ভ্রান্তদাবি সহ ভাইরাল হওয়া ভিডিওটিরও তথ্যযাচাই করে।

আরও পড়ুন: ইভিএম কারচুপি নিয়ে প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের ভুয়ো উক্তি ভাইরাল

Updated On: 2020-11-23T14:54:58+05:30
Claim Review :   ছবির দাবি থরে থরে বই সাজিয়ে চন্দনগরের জগদ্ধাত্রী পুজোর মন্ডপ
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story