ইভিএম কারচুপি নিয়ে প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনারের ভুয়ো উক্তি ভাইরাল

বুম দেখে প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তি একাধিকবার ইভিএম দ্বারা নির্বাচনের পক্ষে সাওয়াল করেছেন।

ভারতের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তির একটি ভুয়ো বক্তব্য সোশাল মিডিয়ায় শেয়ার করে দাবি করা হয়েছে, তিনি নাকি বলেছেন গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশে ইভিএম কারচুপি করে ভোটে জয়লাভ করেছে বিজেপি। ২০২১ সালে পশ্চিমবঙ্গের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের প্রেক্ষিতে এই ভাইরাল গ্রাফিক পোস্টটি শেয়ার করা হচ্ছে।

বুম যাচাই করে দেখে প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তি ইভিএম কারচুপি নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি। বরং একাধিকবার তিনি নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে সাওয়াল করেছেন।

ভাইরাল হওয়া গ্রাফিক পোস্টে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ছবি সহ ইভিএমের ছবি ব্যবহার করে লেখা হয়েছে, "গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশে ইভিএম কারচুপি করে ভোটে জিতেছে বিজেপি স্বীকার করলেন প্রাক্তন নির্বাচন কমিশনার কৃষ্ণামূর্তি" (বানান অপরিবর্তিত)

ফেসবুক পোস্টটিতে ক্যাপশন লেখা রয়েছে, "আমরা বাংলায় নির্বাচনে ইভিএম চাই না,, ব্যালট চাই তবেই নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে"
পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। আর্কাইভ করা আছে এখানে

বুম যাচাই করে দেখে ভারতের প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার তারুভাই সুব্বাইয়া বা টি এস কৃষ্ণমূর্তির মন্তব্য়টি ভুয়ো।
টি এস কৃষ্ণমূর্তি ভারতের নির্বাচন কমিশনের মুখ্য নির্বাচকের ভূমিকায় কার্যভার সামলান ২০০৪ সালের ফেব্রয়ারি মাস থেকে ২০০৫ সালের মে মাস পর্যন্ত। ২০০৪ সালের লোকসভা নির্বাচন পরিচালনার প্রধান দায়িত্ব ছিল তাঁর উপরে।

ভাইরাল পোস্টটিতে গুজরাত ও হিমাচলপ্রদেশের নির্বাচনের কথা উল্লেখ থাকায় বুম এই দুই রাজ্যের নির্বাচনের পরে টি এস কৃষ্ণমূর্তি গণমাধ্যমে কোনও মন্তব্য করেছেন কিনা তা খুঁজে দেখে। বুম ২০১৭ সালে ওই দুই রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন ও ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল ও তার প্রেক্ষিতে কৃষ্ণমূর্তির বক্তব্য খতিয়ে দেখে।
গুজরাতের ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ৯৯ টি আসনে জেতে বিজেপি। কংগ্রেস পায় ৭৭ টি আসন। অন্যদিকে হিমাচল প্রদেশে ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনে বিজয়ী দল বিজেপি ৪৪ টি আসনে পায়। ২১ টি আসন পায় কংগ্রেস দল।
পিটিআই সূত্রকে উদ্ধৃত করে একাধিক গণমাধ্যমে এই নির্বাচনের ফলাফলের প্রেক্ষিতে প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তির মন্তব্য প্রকাশ করে। ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭ প্রকাশিত দ্য হিন্দুর প্রতিবেদনে লেখা হয় কৃষ্ণমূর্তি বলেছেন, "গুজারত ও হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচনে সত্যিকারের জয়ী হয়েছে ইভিএম।" কৃষ্ণমূর্তি সে সময় বলেন, "এবার ইভিএমের সমালোচনা বন্ধ হওয়া উচিৎ।" একই মন্তব্য প্রকাশিত হয়ছিল দ্য ট্রিবিউনের প্রতিবেদনেও
দ্য হিন্দুর প্রতিবেদন

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে গুজরাতে বিজেপি আসন পায় ২৬ টি। অন্যদিকে হিমাচল প্রদেশ ওই নির্বাচনে ৪ টি আসনে জেতে বিজেপি। রাজ্য ভিত্তিক ফলাফল দেখুন নির্বাচন কমিশনের ওয়েবাসাইটে

প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমূর্তি এই লোকসভা নির্বাচনের পর আবারও ইভিএম প্রসঙ্গে মুখ খোলেন। ২০১৯ সালের ২৯ এপ্রিল প্রকাশিত ইকনোমিক টাইমসে প্রকাশিত হয়েছিল কৃষ্ণমূর্তির মন্তব্য।

তিনি বলেন "নির্বাচনে হেরে গেলেই সবাই ইভিএম নিয়ে নালিশ করে। আর জিতে গেলে চুপচাপ হয়ে যায়।"

"আমার মনে হয় তারা (ইভিএম-কে দোষারোপ করা দলগুলি) পেপার ব্যালট চায় যা তাদের আরও কারচুপির সুযোগ দেবে," বলেন কৃষ্ণমূর্তি।

বিহারের বিধানসভা নির্বাচনের পর তেজস্বী যাদব সহ বিরোধী দলগুলি নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তোলে। কমিশনের সিদ্ধান্তে খুশি না হলে পুনর্গণনা নিয়ে খোলা রয়েছে আইনি রাস্তা

Claim Review :   প্রাক্তন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার টি এস কৃষ্ণমুর্তি স্বীকার করেছেন গুজরাত ও হিমাচল প্রদেশে ইভিএম কারচুপি হয়েছে
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story