ভারত বায়োটেকের ভিপি 'কোভ্যাক্সিন' নিচ্ছে, ভাইরাল দাবি নস্যাৎ সংস্থার

ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থাটি জানিয়েছে যে, ছবিটিতে তাদের উৎপাদন টিমের এক সদস্যকে নিয়ম মাফিক রক্ত পরীক্ষা করাতে দেখা যাচ্ছে।

একটি ভাইরাল ছবিতে ভারত বায়োটেক কম্পানির এক কর্মীকে রক্ত পরীক্ষা করাতে দেখা যাচ্ছে। এই ছবি শেয়ার করে মিথ্যে দাবি করা হচ্ছে যে, হায়দ্রাবাদে অবস্থিত ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড-এর (বিবিআইএল) ভাইস প্রেসিডেন্ট তাঁদের 'কোভ্যাক্সিন'-এর প্রথম ডোজটি নিচ্ছেন, ভ্যাক্সিনটির প্রতি আস্থা জ্ঞাপন করতে। একটি বিবৃতিতে, ওই ওষুধ প্রস্তুতকারক দাবিটি উড়িয়ে দিয়ে বলেছে যে, ছবিতে যা দেখা যাচ্ছে তা হল একটি রুটিন পরীক্ষার জন্য রক্ত নেওয়ার দৃশ্য।

ভারত বায়োটেক-এর কোভ্যাক্সিন হল প্রথম ভারতীয় ভ্যাক্সিন যেটিকে পর্যায়-১ ও পর্যায়-২ এর পরীক্ষা চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ভ্যাক্সিনটি ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) ও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজির সহযোগিতায় প্রস্তুত করা হচ্ছে। আইসিএমআর ঘোষণা করেছে যে, ভ্যাক্সিনটি স্বাধীনতা দিবসে দেশ জুড়ে বাজারজাত করা হবে।

এক ব্যক্তি ও একজন স্বাস্থ্যকর্মীর ছবি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। বুমের হোয়াটসঅ্যাপ হেল্পলাইনেও ছবিটি আসে। তাতে দাবি করা হয়, "ভারত বায়োটেকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ডঃ বি কে সাক্সেনা করোনা ভ্যাক্সিন নিচ্ছেন...ক্লিনিকাল ট্রায়াল। প্রথম ডোজটি নেওয়ার পরই উনি বলেন যে, ভারতে উনিই হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি তাঁর ও ভারত বায়োটেকে তাঁর টিমের তৈরি ভ্যাক্সিনটি নিলেন। নিজেদের প্রস্তুত করা ওষুধটির ওপর তাঁর আস্থাটা দেখুন।"


ছবিটি ফেসবুকেও ভাইরাল হয়েছে। আর্কাইভ দেখুন এখানে

আরও পড়ুন: পাকিস্তানের পুরনো ছবি শেয়ার করে মেটিয়াবুরুজে লকডাউন নীতি ভঙ্গ বলা হল

তথ্য যাচাই

একটি টুইট-করা বিবৃতিতে, যেটি বুমকেও পাঠানো হয়, তাতে কম্পানিটি ওই দাবি নস্যাৎ করে দিয়েছে, যদিও ভাইরাল ছবিটিতে যে ব্যক্তিকে দেখা যাচ্ছে, তাঁকে শনাক্ত করা হয়নি। ৩০ জুন ঘোষণা করা হয় যে, তাদের তৈরি ভ্যাক্সিন পর্যায়-১ ও পর্যায়-২ ট্রায়ালের অনুমতি পেয়েছে। সেদিন থেকে কম্পানিটি ও তাদের ভ্যাক্সিনটি লাগাতার খবরের শিরোনামে থেকেছে।
ছবিটিকে বড় করে বুম দেখে যে, রক্ত নিচ্ছেন যে মহিলা স্বাস্থ্যকর্মী, তাঁর ল্যাব-কোটে ভারত বায়োটেকের লোগো রয়েছে। তা থেকে প্রমাণ হয় যে, ছবিটা ওই ওষুধ প্রস্তুতকারকের ওখানেই তোলা হয়।
টুইটারে পোস্ট-করা বিবৃতিতে ভারত বায়োটেক বলে যে, ছবিতে আদৌ ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে না। যেটা দেখা যাচ্ছে তা হল, কম্পানির কর্মীদের রুটিন রক্ত পরীক্ষা। বিবৃতিতে বলা হয় "উৎপাদন টিমের এক সদস্যকে" দেখা যাচ্ছে।
ভি কে শ্রীনিবাস নামে ভারত বায়োটেকের কোনও ভাইস প্রেসিডেন্ট আছেন কিনা তাও সার্চ করে বুম। দেখা যায়, ওই নামে কোনও ভাইস প্রেসিডেন্ট নেই ওই সংস্থার। সেটির ম্যানেজমেন্ট টিমে যাঁদের নাম পাওয়া গেল, তাঁরা হলেন, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ভি কৃষ্ণ মোহন ও চিফ ফাইন্যানসিয়াল অফিসার টি শ্রীনিবাস।
আইসিএমআর-এর সঙ্গে ভারত বায়োটেকের যৌথ কাজ ও পর্যায়-১ ও পর্যায়-২-এর পরীক্ষা চালানোর ছাড়পত্র এসেছে এমন এক সময়ে যখন ভারতে কোভিড-পজিটিভ ব্যক্তির সংখ্যা ২০,০০০-এ পৌঁছেছে।

Updated On: 2020-07-07T11:54:59+05:30
Claim Review :  ভারত বায়োটেকের ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রথম কোভ্যাক্সিনের ডোজ নিচ্ছেন
Claimed By :  Social Media
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story