হাথরস ঘটনা: অভিযুক্তের বাবা বলে ভাইরাল ইউপির বিজেপি নেতার ছবি

বুম দেখে ছবিটি বিজেপি-র যুব মোর্চার কাশী শাখার নেতা ড. শ্যাম প্রকাশ দ্বিবেদীর। উনি একটি অন্য ধর্ষণের মামলায় অভিযুক্ত।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের সঙ্গে প্রয়াগরাজের এক বিজেপি নেতা শ্যাম প্রকাশ দ্বিবেদীর ছবি ভাইরাল হয়েছে। কিন্তু নেটিজেনরা দ্বিবেদীকে হাথরসের কথিত গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তের বাবা বলে তাঁর ভুল পরিচয় দিয়েছেন।

ছবিগুলি এই দাবি সমেত ভাইরাল হয়েছে যে, সন্দীপ নামের একজন অভিযুক্তের বাবার সঙ্গে সরকার ও বিজেপি পার্টির ওপর মহলের লোকজনের যোগাযোগ আছে।
একগুচ্ছ ছবি, যাতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং সহ অন্যান্য বিজেপি নেতার সঙ্গে দ্বিবেদীকে দেখা যাচ্ছে, সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। সঙ্গে দেওয়া
ক্যাপশনে
বলা হয়েছে, "হাথরসের মেয়েকে যে সন্দীপ ধর্ষণ করেছে, তার বাবার স্মরণীয় মুহূর্তগুলি। এগুলিই সব বলে দেয়।"
(হিন্দি বয়ান: हाथरस की बेटी के आरोपी सन्दीप के पिता की कुछ यादगार तस्वीर सबकुछ बयां कर देती है)

একটি ফেসবুক পোস্টের স্ক্রিনশট দেওয়া হল নীচে।

১৪ সেপ্টেম্বর, ২০ বছরের এক দলিত মহিলাকে উচ্চ বর্ণের চারজন পুরুষ গণধর্ষণ ও অন্যভাবেও গুরুতর আঘাত করলে, দিল্লির সাফদারজঙ্গ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ২৯ সেপ্টেম্বর মারা যান। সন্দীপ, তার কাকা রবি এবং তাদের বন্ধু লবকুশ ও রামুকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই মহিলার ভাই অভিযোগ করেন যে,
সন্দীপ
তাঁর 'বোনকে অনুসরণ করত এবং সে ওই চার ব্যক্তিকে সবসময় ভয় পেত।' মহিলাটির ওপর বর্বরোচিত নির্যাতন এবং ৩০ তারিখের ভোরে উত্তরপ্রদেশ পুলিশ তাঁর দেহ পুড়িয়ে দেওয়ায় ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।
ছবিগুলি একই ধরনের বিবরণ সহ বাংলাতেও ভাইরাল হয়েছে। তাতে অনেকেই দ্বিবেদীকে সন্দীপের বাবা বলে ভুল তথ্য দিয়েছেন। আরকাইভ দেখতে এখানে ক্লিক করুন।
তথ্য যাচাই
রিভার্স ইমেজ সার্চ করে বুম দেখে, যে ছবিটিতে দ্বিবেদীকে প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে দেখা যাচ্ছে,
সেটি একটি সংবাদ প্রতিবেদনে ব্যবহার করা হয়। সেখানে প্রয়াগরাজের একজন বিজেপি নেতা হিসেবেই দ্বিবেদীর পরিচয় দেওয়া হয়েছিল

ওই সংবাদ প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রয়াগরাজের এক বিএ ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে তিনি অভিযুক্ত।
জি নিউজ-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, "প্রয়াগরাজে এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করার অভিযোগে, ১৬ সেপ্টেম্বর পুলিশ দ্বিবেদীর বিরুদ্ধে মামলা শুরু করে। অভিযোগটি কর্নেলগঞ্জ পুলিশ স্টেশনে দায়ের করা হয় এবং শ্যাম প্রকাশ দ্বিবেদী ও ড. অনিল দ্বিবেদীর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে।" দ্বিবেদী অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের কারণেই ওই অভিযোগ আনা হয়েছে।
দ্বিবেদী কাশীর বিজেপি যুব মোর্চার ভাইস প্রেসিডেন্ট। আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুন।
প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে দ্বিবেদীর ওই একই ছবি ও রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে তোলা সেলফি আমরা দ্বিবেদীর একটি ফেসবুক পেজে দেখতে পাই। তাঁর টুইটার অ্যাকাউন্টেও মোদীর সঙ্গে তোলা ছবিটিই প্রধান ছবি হিসেবে লাগানো আছে।
তাঁর অন্য একটি ফেসবুক পেজে, দ্বিবেদীর সঙ্গে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ছবি রয়েছে। বুম নিজস্ব উপায়ে ছবিগুলি যাচাই করতে পারেনি। কিন্তু এ ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে ছবিগুলি শ্যাম প্রকাশ দ্বিবেদীর, সন্দীপের বাবার নয়।
তাঁর প্রতিক্রিয়া জানার জন্য বুম দ্বিবেদীর সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তাঁর বক্তব্য জানার পর এই প্রতিবেদন আপডেট করা হবে।
নিউজ-২৪-এর একটি রিপোর্টে সন্দীপের বাবার প্রতিক্রিয়া আছে। তাঁর দাবি, তাঁর ছেলে নির্দোষ ও তাকে ফাঁসান হয়েছে। তিনি আরও বলেন যে, মহিলার ওপর আক্রমণের দু' দিন পরে সন্দীপকে গ্রেপ্তার করা হয়। ইউপির স্থানীয় সাংবাদিকরাও ভিডিওটির দেওয়া খবর সমর্থন করেন।

Updated On: 2020-10-03T11:41:54+05:30
Claim Review :   ছবিতে হাথরস কান্ডের অভিযুক্ত সন্দীপের বাবাকে বরিষ্ঠ বিজেপি নেতাদের সাথে যায়
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story