ইরানের জেনারেল সোলেইমানির উপর ড্রোন হামলা বলে ভিডিও গেমের ক্লিপ ভাইরাল

মোবাইল ফোনের একটি ভিডিও গেমের ফুটেজ সোলেইমানির ওপর মার্কিন ড্রোন হামলার দৃশ্য বলে চালানো হচ্ছে।

একটি ভাইরাল ভিডিও ফুটেজ সম্পর্কে দাবি করা হচ্ছে যে সেটি হল সেই ড্রোন হামলার ছবি যা আঘাত হানলে ইরানের জেনারেল কাসেম সোলেইমানি মারা যান। কিন্তু দাবিটি মিথ্যে। ভিডিওটি আসলে একটি ভিডিও গেমের অংশ।

গেমটির নাম 'এসি-১৩০ গানশিপ সিমুলেটার: স্পেশাল অপস স্কোয়াড্রন'। এই গেমটির প্রস্তুতকারক বাইট কনভেয়ার স্টুডিও ওই ফুটেজ ইউটিউবে দেন।

ভিডিওটিতে আকাশ থেকে তোলা ছবিতে গোলা বর্ষণ হতে দেখা যাচ্ছে। আর তার ফলে মাটিতে ধ্বংস হচ্ছে গাড়ির কনভয় বা সারি। ভিডিওটিতে থারমাল ইমেজারির সাহায্য নেওয়া হয়েছে। এবং গাড়িগুলির পরিণতি বোঝা যাচ্ছে তাদের 'হিট সিগনেচার' বা তাপমাত্রার নিরিখে। ভিডিওটির পরের দিকে, ঘটনাস্থল থেকে লোকজনকে পালাতেও দেখা যাচ্ছে হিট সিগনেচারের মাধ্যমে। ভিডিওটিতে আগাগোড়া রেডিওর মত এক যন্ত্রে কথাবার্তার শব্দ শোনা যাচ্ছে। আকাশে মহড়ার এক বিস্তারিত বিবরণ দেওয়া হচ্ছে তাতে। ভিডিওটি নীচে দেখা যাবে।

বায়ুপথে হামলায় ৩ জানুয়ারি ইরানের অভিজাত কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল সোলেইমানি, নিহত হন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে একটি গাড়ির কনভয়ের ওপর আকাশ থেকে হামলা চালানো হয়। ওই আক্রমণে সোলেইমানি সহ ইরানের মদতপুষ্ট এক ইরাকি মিলিশিয়ার নেতারও মৃত্যু হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলছে ওই হামলায় তারা 'রিপার' ড্রোন ব্যবহার করেছিল। কিন্তু ইরান দাবি করছে, হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হয়েছিল ওই আক্রমণে। মনে করা হয়, সোলেইমানি ছিলেন ইরানের দ্বিতীয় ক্ষমতাশালী ব্যক্তি। এই ঘটনা ইরান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে উত্তেজনা বাড়িয়েছে।

ক্লিপটি বুমের হোয়াটসঅ্যাপ হেল্পলাইনে (৭৭০০৯০৬১১১) একাধিকবার আসে। সেটির সঙ্গে দেওয়া ক্যাপশনে বলা হয়, "সোলেইমানির ওপর ড্রোন হামলা।"


অনুসন্ধান করে বুম দেখে ভিডিওটি টুইটার ও ফেসবুকে ছড়িয়েছে।




তথ্য যাচাই

ভিডিওটিকে ফ্রেমে ফ্রেমে ভেঙ্গে বুম রিভার্স ইমেজ সার্চ করে। তার ফলে, ইউটিউবে 'বাইট কনভেয়ার স্টুডিও' নামের একটি ভিডিও সামনে আসে। ভিডিও গেম প্রস্তুতকারক তাদের গেমের একটা অংশ আপলোড করেছিলেন গেমটির প্রস্তুতি কতটা এগোল তা বোঝাতে।। ভিডিওটি ২৫ মে, ২০১৫ সালের, অর্থাৎ সোলেইমানির ওপর আক্রমনের ৪ বছর আগের। ওই ভিডিওটির উদ্দেশ্য ছিল একটি এসি-১৩০ গানশিপ বা বন্দুকধারী হেলিকপ্টারের আক্রমণ ক্ষমতা বোঝা।

ভিডিওটি নীচে দেখা যাবে। সেটি ভাইরাল হওয়া ভিডিওটির সঙ্গে হুবহু মিলে যায়।

তাছাড়া প্রস্তুতকারক ভিডিওটির এক কোণে একটি বার্তা দিয়ে রেখেছেন। তাতে বলা হয়েছে, "অগ্রগতি বোঝানোর ফুটেজ। সমস্ত বিষয়বস্তু পরিবর্তন সাপেক্ষ।"


ভিডিওটি আগেও একবার চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছিল। সেবার রাশিয়ায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের এক উচ্চপর্যায়ের ভুলের কারণেই দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিল সেটি। ২০১৭ সালে, ইসলামিক স্টেট (বা আইএসআইএস) কে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মদতের প্রমাণ হিসেবেই রুশরা ভিডিওটি শেয়ার করেছিল। রুশ প্রতিরক্ষা মন্ত্রক অবশ্য পরে সেটি তুলে নেয়।

বুম আগেও ভিডিও গেম ফুটেজ খারিজ করেছে। তখন ভুয়ো দাবি করা হয়েছিল যে, আইএস সন্ত্রাসবাদীদের ওপর মার্কিন হামলার দৃশ্য।

Updated On: 2020-01-09T18:27:30+05:30
Claim Review :   ভিডিওর দাবি ইরানের জেনারেল সোলেইমানির উপর আমেরিকার ড্রোনের আঘাত হানা
Claimed By :  Social Media users
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story