জয়পুরে উচ্ছেদ অভিযান এনআরসি বিরোধকারীদের উপর পুলিশি হামলার ভিডিও বলে শেয়ার করা হল

বুম অনুসন্ধান করে দেখেছে যে ভিডিওটি ২০১৯ সালের অগস্ট মাসের, রাজস্থানে বেআইনি নির্মাণ উচ্ছেদ অভিযানে বাধা দেওয়ার।

রাজস্থানের জয়পুরে পুলিশের বেআইনি দখল উচ্ছেদের একটি ভিডিও মিথ্যে দাবি নিয়ে নতুন করে ছড়িয়ে পড়েছে। ভিডিওটিতে মিথ্যে দাবি করা হয়েছে যে এই ফুটেজটি অসমের, যেখানে জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেনশিপ বা এনআরসি) লাগু হওয়ার ফলে সেখানকার মানুষদের নিজেদের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করা হচ্ছে।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে যে সব মহিলা এবং পুরুষরা আত্মরক্ষার চেষ্টা করছেন এবং বাধা দিচ্ছেন, পুলিশ তাদের টানতে টানতে নিয়ে যাচ্ছে।

২১ সেকেন্ডের লম্বা ফুটেজটিতে ক্যাপশন দেওয়া হয়েছে, "অসমে এনআরসি শুরু হয়েছে। ওরা মানুষকে তাদের বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করছে। সংবাদ মাধ্যম বিক্রি হয়ে গেছে তাই তারা এ সব দেখায় না। সুতরাং এই ভিডিও শেয়ার করাটা আমাদের দায়িত্ব।" এনআরসি সংক্রান্ত এই বক্তব্য সহ ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

দ্য হিন্দুতে প্রকাশিত একটি সংবাদ প্রতিবেদন অনুসারে, গত বছর ৩১ অগস্ট অসমে এনআরসি প্রকাশ করা হয়, এবং ১৯,০৬,৬৫৭ জন মানুষ এই নাগরিক পঞ্জি থেকে বাদ পড়েন। মোট ৩,৩০,২৭,৬৬১ জন আবেদনকারীর মধ্যে ৩,১১,২১,০০৪ নাম নথিভুক্ত করা হয়।

এই একই ফুটেজ ইন্সটাগ্রামেও দেখা গেছে।


তথ্য যাচাই

ভিডিওতে পুলিশের উর্দির উপর যে ব্যাজ দেখা গেছে, তা অসম পুলিশের ব্যাজের সঙ্গে মেলে না, এটা দেখে বুম নিশ্চিত হয়েছে যে ভিডিওটি অসমের নয়।

অসম পুলিশের লোগো

এর পর আমরা ভিডিওটির কিছু গুরুত্বপুর্ণ অংশের ফ্রেম নিয়ে রাশিয়ান সার্চ ইঞ্জিন ইয়ান্ডেক্সে রিভার্স ইমেজ সার্চ করি। এর ফলে আমরা দেখতে পাই, গত বছর ২ অগস্ট টুইটারে এই একই ভিডিও আপলোড করা হয়েছিল। ওই ইউজার তখন এই ঘটনাটি রাজস্থানের জয়পুরের বলে চিহ্নিত করেছিলেন।

নির্দিষ্ট সময়কালের মধ্যে এবং এই বিষয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত কিছু শব্দ দিয়ে সার্চ করে আমরা আরও একটি টুইট দেখতে পাই যেটিতে এই একই ভিডিও ছিল। ওই টুইটের ব্যাখ্যা অনুসারে, কানোটয়া (জয়পুর) অঞ্চলের সামরিয়া রোডে এই ঘটনাটি ঘটে। সেখানে পুলিশ বেআইনি নির্মাণ ভেঙ্গে দেয়।

কার্যত, হিন্দি দৈনিক পত্রিকার একটি সংবাদ প্রতিবেদন সমেত জয়পুর পুলিশ এই টুইটের উত্তর দেয়। ওই প্রতিবেদন অনুসারে গত বছর অগস্টে জয়পুর ডেভেলপমেন্ট অথরিটির (জেডিএ) পক্ষ থেকে যে জবরদখল-বিরোধী অভিযান হয়, এই ভিডিওতে তারই একটি অংশ দেখা যাচ্ছে। এই অভিযানে অনুমোদিত সীমার বাইরে বেআইনি ভাবে যে সব দেওয়াল তৈরি করা হয়েছিল, পুলিশ তা ভেঙ্গে দেয়। এই প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে যে, এই অভিযানে বাধা দেওয়ার জন্য পুরুষরা মহিলাদের সামনে এগিয়ে দেয়।


Updated On: 2020-01-23T17:42:36+05:30
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.