পশ্চিমবঙ্গে স্ত্রী ও শিশুর মাটি খুঁড়ে দেহ বের করার ভিডিও সাম্প্রদায়িক রঙ সহ ছড়ানো হল

বুম দেখে ঘটনাটি উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুরের, ২৯ জানুয়ারি এক ব্যক্তি তার স্ত্রী ও শিশুকন্যাকে খুন করে মাটিতে পুঁতে দিয়েছিল।

এক মা ও তার শিশুকন্যার মৃতদেহ মাটি খুঁড়ে তুলে আনার একটি অস্বস্তিকর ভিডিও সোশাল মিডিয়ায় সাম্প্রদায়িক রঙ চড়িয়ে শেয়ার করা হচ্ছে।

একাধিক যাচাই করা টুইটার হ্যান্ডেল থেকে ভিডিও ফুটেজটি শেয়ার করা হয়েছে, যেখানে দেখা যায়, এক ব্যক্তি মাটি খুঁড়ে এক মহিলা ও শিশুর নিষ্প্রাণ দেহ তুলে আনছে। টুইটগুলিতে দাবি করা হচ্ছে, এরা উভয়েই মুসলমান সম্প্রদায়ের, হিন্দুরা যাদের জ্যান্ত কবর দিয়েছে।

ব্রিটেনের হাউস অফ লর্ডস-এর সদস্য নাজির আহমেদ এই মর্মান্তিক ফুটেজটি টুইট করে দাবি করেন, 'ফ্যাসিস্টরা মা ও মেয়েকে কবর দিয়েছিল, কিন্তু তাদের দেহগুলি উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে' ফুটেজটি অস্বস্তিকর বলে বুম সেটি প্রতিবেদনের অন্তর্ভুক্ত করেনি।

আহমেদের টুইটের স্ক্রিনশট নীচে দেওয়া হল। টুইটটি দেখা যাবে এখানে। টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে। যাচাই করা অন্য একটি টুইটার হ্যান্ডেল থেকেও লেখক ফালেহ-আল-সিবলি টুইট করেছেন যে, হিন্দুরা এই মুসলিম মা-মেয়েকে খুন করে মাটিতে পুতে দিয়েছে। টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে


আরও অনেকগুলি হ্যান্ডেল থেকেই এই ফুটেজটি একই দাবি বা ব্যাখ্যা সহ শেয়ার হয়েছে, তার মধ্যে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর একজন মেজরের টুইটও আছে।

ফেসবুকেও একই ব্যাখ্যা সহ ফুটেজটি ভাইরাল হয়েছে।

আরও পড়ুন: মিথ্যা: কোয়েম্বাটুরে রেস্তোরাঁয় বিরিয়ানি বিকচ্ছে হিন্দুদের নপুংসক করতে

তথ্য যাচাই

বুম এ ব্যাপারে নিশ্চিত হয়েছিল যে ফুটেজটি ভারতের বাংলাভাষী অঞ্চলের কোনও ঘটনার; যেহেতু লোকজনকে বাংলায় কথা বলতে শোনা যাচ্ছে। দুঃখ ও শোক প্রকাশের ভাষায় তাঁরা বলছেন—'আহা রে!' পরে যখন শিশুটির দেহ খুঁড়ে পাওয়া যাচ্ছে, তখন এক ব্যক্তিকে শিশুটিকে 'দাদু' বলে ডুকরে উঠতেও শোনা যাচ্ছে। বাংলা ভাষায় নাতি-নাতনিদের এই ভাষাতেই আদর করে ডাকা হয়। ফুটেজটির ১ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের মাথায় একজনকে বাংলায় অন্যজনকে বলতে শোনা যাচ্ছে, দেহগুলি যেভাবে রয়েছে, সেভাবেই থাক।

বাংলা কিওয়ার্ড দিয়ে অনুসন্ধান করে আমরা দেখি, ইআর আখতারুল হক নামে এক ব্যক্তি বিভিন্ন কোণ থেকে তোলা একই ঘটনার তিনটি ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করেছেন।

একটি ভিডিওয় ঘটনাটিকে উত্তরবঙ্গের ইসলামপুরের ঘটনা বলে বর্ণনা করা হয়েছে। বর্ণনাটি হলো: "মাটি খুঁড়ে পাওয়া গেল শিশু ও তার মা। ইসলামপুর।"

মৃতদেহ খুঁড়ে তোলার অন্য একটি ২২ সেকেন্ডের ফুটেজের বর্ণনা এ রকম: "মা ও মেয়েকে ইসলামপুরে তার স্বামী খুন করে পুতে দিয়েছে।"

আরও খোঁজ চালিয়ে আমরা দেখি, এই ফুটেজটিই মহানগর ২৪x৭ সংবাদ ওয়েবসাইটের বুলেটিনে ব্যবহার করা হয়েছে ৩০ জানুয়ারি ২০২০।

বুম ভাইরাল হওয়া ফুটেজের সঙ্গে সংবাদ-প্রতিবেদনের ফুটেজটি তুলনা করেও দেখেছে।

বামে: ভাইারাল হওয়া ভিডিওটির ছবি, ডানে: মহানগর ২৪x৭ এর বুলেটিনের ভিডিও।

ঘটনাটি ঘটেছিল উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুরের সুজালিতে। এবং এটি গার্হস্থ্য হিংসার ঘটনা। আকবর আলম নামে এক ব্যক্তি তার স্ত্রী নুরজাহান এবং দু মাসের শিশুকন্যা রিজওয়ানাকে খুন করে বাড়ির পিছনের আস্তাকুড়ে পুতে দেয়। ক্রুদ্ধ গ্রামবাসীরা এই ঘটনার পর আকবরের বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। মাত্র দু বছর আগে আকবর নুরজাহানকে বিয়ে করেছিল এবং কন্যাসন্তান জন্মানো নিয়ে মনমালিন্য শুরু হয়। ২৯ জানুয়ারি সে মা-মেয়ে দুজনকেই খুন করে মাটিতে পুতে দেয় এবং তারপর গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যায়।

সতর্কবার্তা: নীচের ভিডিওটি অস্বস্তিকর

ঘটনাটি নিয়ে এই সময় ও নিউজ ১৮ বাংলা প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

নীচে এই সময়-এর ব্যবহার করা প্রতিবেদনের স্ক্রিনশট দেওয়া হল:

সতর্কবার্তা: ছবিটি অস্বস্তিকর


Claim Review :  ভিডিওর দাবি মহিলা ও শিশুকে জীবন্ত পুঁতে দেয় হিন্দুরা
Claimed By :  Twitter users and facebook
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story