বিভ্রান্তিকর দাবি সহ জিইয়ে উঠল জেএনইউ ছাত্রী ঐশী ঘোষের ক্ষত মাথার ছবি

বুমকে পাঠানো ঐশী ঘোষের ছবিতে সেলাইয়ের দাগ স্পষ্ট। আঘাতের পরের দিন ৬ জানুয়ারি, ২০২০ তিনি জেএনইউ-এ সংবাদ সম্মেলন করেন।

Claim

জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র পরিষদের সভাপতি ঐশী ঘোষের মাথায় ব্যান্ডেজ বাঁধা ছবি সহ গ্রাফিক পোস্ট মিথ্যে দাবি সহ শেয়ার করা হচ্ছে সোশাল মিডিয়ায়। ঐশী ঘোষের ছবি আগেও শেয়ার করে দাবি করা হয়েছিল—তাঁর মাথার চোট সাজানো তাই মাথায় সেলাইয়ের দাগ নেই। ঐশীর মাথার চোট নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে ফেসবুকে আবার ভাইরাল হওয়া গ্রাফিক পোস্টে লেখা হয়েছে, ‘‘ইনি হচ্ছে সেই কমরেড ঐশী ঘোষ। যে মাথায় ষোলোটা সেলাই নিয়ে ৩০ মিনিটের মধ্যে JNU আন্দোলনে উপস্থিত হয়েছিলেন।’’ পোস্টটিতে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ‘’১৬ টা সেলাই, ভাবা যায়।’’

Fact

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস সহ একধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী ঐশী ঘোষ মুখোশধারী লাঠিসোঁটা হাতে গণআক্রমণের শিকার হন রবিবার ৫ জানুয়ারি ২০২০ সন্ধ্যায়। ওইদিন রাতের দিকে এইমসে ভর্তি হন তিনি। সোমবার ৬ জানুয়ারি সকালে ছাড়া পান ঐশী। সোমবার ঐশী সংবাদ সম্মেলন করেন, যা দেখা যাবে ইন্ডিয়া টুডের ভিডিওতে। সেলাই করার পর ৩০ মিনিটের মধ্যে আন্দোলনে যোগ দেওয়ার দাবিটি সত্য নয়। সোশাল মিডিয়ায় ফেব্রুয়ারি মাসে ভুয়ো খবর ছড়ানো হয় তাঁর মাথায় সেলাইয়ের দাগ নেই এবং তাঁর আঘাতের ব্যাপারে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়। বুম সে সময় তথ্যযাচাই করে যে কপালে আঘাত ও সেলাইয়ের দাগ দৃশ্যমান।

To Read Full Story, click here
Claim Review :   পোস্টের দাবি ঐশী ঘোষ ৩০ মিনিটের মধ্যে মাথা সেলাই করে জেএনইউ-এ আন্দোলনে যান
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story