জেএনইউ-র ২৩ বছরের ছাত্রীকে ভাইরাল হওয়া ভুয়ো ফেসবুক পোস্ট ৪৩ বছরের মহিলা বানিয়ে দিয়েছে

বুম স্নাতকোত্তরের এই ছাত্রী সম্ভাবী সিদ্ধির সঙ্গে যোগাযোগ করে, যাকে ভুল করে এখনও জেএনইউ-তে পাঠরতা ৪৩ বছর বয়স্কা বলে প্রচার করা হচ্ছে।

কয়েকটি সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে চেঁচিয়ে স্লোগান দেওয়া জেএনইউ-র এক ছাত্রীর ছবি জি-নিউজের সম্প্রচার থেকে স্ক্রিনশট নিয়ে সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল করে দাবি করা হচ্ছে যে, সে ৪৩ বছর বয়স্কা, বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার বয়স অনেকদিন পেরিয়েছে এবং এখন তার মেয়ের সঙ্গেই একই সাথে জেএনইউ-তে পড়ছে।

২৩ বছর বয়সী সেই স্নাতকোত্তর ছাত্রীর সঙ্গে বুম যোগাযোগ করেছে।

স্ক্রিনশটে দেখানো হয়েছে, তরুণী ছাত্রীটি কোনও সংবাদ-চ্যানেলের সাংবাদিকের সঙ্গে উত্তেজিত ভাবে কথা বলছে।

স্ক্রিনগ্র্যাবটির ক্যাপশন হলো, “এই ম্যাডাম ৪৩ বছরের প্রবীণা ছাত্রী। আর যেটা সবচেয়ে আশ্চর্যের, তা হলো, তিনি তার কন্যা মোনার সঙ্গে একই সাথে জেএনইউ-তে পড়ছেন।”

(মূল হিন্দিতে: मोहर्तमा JNU की 43 साल की छात्रा है, और कमाल की; बात उनकी बेटी मोना भी JNU की ही छात्रा है)

এই প্রতিবেদন লেখার সময় পর্যন্ত পোস্টটি ৩৫০০ বার শেয়ার হয়েছে। ফেসবুকেও অনেকে পোস্টেই এটি শেয়ার হয়েছে।

হস্টেলের ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে জেএনইউ-তে যে ছাত্র-আন্দোলন চলছে, তার প্রেক্ষিতেই এই পোস্টগুলি ভাইরাল করা হয়েছে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রক জেএনইউ-র আন্দোলনরত ছাত্রদের সব দাবিদাওয়ার শান্তিপূর্ণ মীমাংসার জন্য একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে।

হস্টেল ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদ সোমবারেও অব্যাহত ছিল। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বর্ধিত ফির পরিমাণ কিছুটা কমিয়েছিল, কিন্তু ছাত্ররা বৃদ্ধি সম্পূর্ণ প্রত্যাহার সহ অন্যান্য দাবিদাওয়া মেনে নেওয়ার প্রশ্নে অবিচল রয়েছে।

তথ্য যাচাই

বুম স্ক্রিনগ্র্যাবটি যে ভিডিও থেকে তোলা, জি-নিউজ সম্প্রচারিত সেই ভিডিওটি দেখেছে। ১৫ নভেম্বর ‘ডিএনএ অ্যানালিসিস’-এর নামে এটি সম্প্রচার হয় এবং এতে ‘জি-নিউজ-এর প্রতিবেদকদের সঙ্গে আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের দুর্ব্যবহারের’ বিষয়টাই প্রাধান্য পেয়েছে। ভিডিওটির ২ মিনিট ৫৭ সেকেন্ডের মাথায় আলোচ্য ছাত্রীটিকে দেখা যাচ্ছে।



ছাত্রীর নাম সম্ভাবী সিদ্ধি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরাসি ভাষা বিভাগের স্নাতকোত্তর পাঠরতা। ভাইরাল হওয়া ছবিটি তারই। সম্ভাবী স্বীকারও করলেন— “হ্যাঁ, ওটা আমারই ছবি। আমরা কর্তৃপক্ষের ধামা-ধরা সংবাদ-চ্যানেলের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে চেঁচিয়ে ক্ষোভ জানাচ্ছিলাম”

সম্ভাবী আমাদের আরও জানান, তার বয়স ৪৩ নয় ভাইরাল ভুয়ো পোস্টে যেমনটা প্রচার করা হচ্ছে। তার বর্তমান বয়স ২৩।

প্রতিবাদ জানালেই প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রছাত্রীদের বিরুদ্ধে ভুয়ো অপপ্রচার চালানোর প্রবণতা যথেষ্টই প্রবল।

আরও পড়ুন: জেএনইউ-র ফি বৃদ্ধি বিতর্ক: শেহলা রসিদের ফোটোশপ করা ছবি জিইয়ে তোলা হচ্ছে

Claim :   মেয়ে মনার সঙ্গে ৪৩ বছর বয়সী জেএনইউ-এ পড়ছে
Claimed By :  FACEBOOK POSTS
Fact Check :  FASLE
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.