কলকাতা সবচেয়ে নিরাপদ শহর, চেন্নাই বিপজ্জনক: এনসিআরবি ২০২০ তথ্য

২০১৯ সালে দিল্লির অপরাধ-চিত্র ছিল সবচেয়ে উদ্বেগের, ২০২০ সালে তা ১৬ % হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু চেন্নাইয়ের পর দিল্লি এখনও দ্বিতীয় অসুরক্ষিত মেট্রো শহর।

আরও একবার কলকাতা (Kolkata) দেশের সবচেয়ে নিরাপদ মেট্রোপলিটন শহর (Metropolitan City) বলে স্বীকৃতি পেল, যেখানে অপরাধের হার প্রতি এক লক্ষ জনসংখ্যায় ১২৯.৫l জাতীয় অপরাধ নথিকরণ ব্যুরোর (NCRB) পরিসংখ্যানেই এই তথ্য প্রকাশ পেয়েছে।

এনসিআরবি ২০ লক্ষের বেশি জনসংখ্যা বিশিষ্ট দেশের ১৯টি শহরে ভারতীয় দণ্ডবিধি এবং বিশেষ ও স্থানীয় আইন লঙ্ঘন করে সংঘটিত অপরাধের তথ্য সংগ্রহ করে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে।

এই নিয়ে পর-পর তিন বার কলকাতা দেশের মেট্রো শহরগুলির মধ্যে সবচেয়ে কম অপরাধের শহর বলে স্বীকৃত হল। কলকাতার পরেই এই ৩ বছরে সবচেয়ে কম অপরাধের শহর হিসাবে চিহ্নিত হয়েছে হায়দরাবাদ, এ বছরে যেখানে অপরাধের হার ছিল প্রতি লাখ জনসংখ্যায় ২৩৩টি।

অপরাধের হার কিছুটা কমিয়ে মুম্বই হয়ে উঠেছে দেশের তৃতীয় নিরাপদ শহর, যেখানে অপরাধের হার প্রতি লাখ জনসংখ্যায় ৩১৮.৫।

এর বিপরীত মেরুতে রয়েছে চেন্নাই, যেখানে ২০২০ সালে প্রতি লাখ জনসংখ্যায় অপরাধের হার নথিভুক্ত হয় ১৯৩৬.২।

দিল্লি, অপরাধের হিসাবে ২০১৯ সালে যার স্থান ছিল শীর্ষে, সেখানে তা ১৬ শতাংশ কমে গিয়ে প্রতি লাখে ১৬০৯-এ নেমে এসেছে। আর তাই সবচেয়ে বিপজ্জনক শহরের তালিকাতেও দিল্লি ২০২০ সালে এক ধাপ নেমে চেন্নাইয়ের পিছনে জায়গা পেয়েছে।

বিপজ্জনক শহরের তালিকায় তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান দখল করেছে সুরাট ও আহমেদাবাদ, যেখানে প্রতি লক্ষ মানুষ পিছু অপরাধ সংঘটিত হয়েছে যথাক্রমে ১৩০১ ও ১৩০০টি।

আরও পড়ুন: বিটকয়েন দুর্নীতি বলে আজিম প্রেমজি, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে নিশানা করে ভুয়ো খবর

২০১৮ থেকে অপরাধের হারে পরিবর্তন

এই পরিবর্তন সবচেয়ে চমকপ্রদভাবে লক্ষ্য করা গেছে কোচি শহরে, যেখানে ২০১৮ সালে প্রতি লাখ জনসংখ্যায় অপরাধের হার ছিল দেশের মধ্যে সর্বাধিক— ২৫৭৮.৬। অথচ ২০১৯ সালে এই হার ৩৩ শতাংশ কমে যায় এবং ২০২০ সালে আরও ৪৯ শতাংশ হ্রাস পেয়ে কোচিতে অপরাধ নেমে আসে লক্ষ পিছু মাত্র ৮৬৩.৯-এ।

এর বিপরীতে চেন্নাইতে দেখা গেছে অপরাধের হার ১৩৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে এই শহরকে ২০২০ সালে দেশের সবচেয়ে বিপজ্জনক মেট্রোতে পরিণত করেছে।

দিল্লি এবং জয়পুর, দুটি শহরই গত বছর অপরাধের হারে উল্লেখযোগ্য হ্রাস দেখেছে— দিল্লিতে তা হ্রাস পেয়েছে ১৫ শতাংশ, আর জয়পুরে ৪০ শতাংশ।

অন্যদিকে আহমেদাবাদ, কোয়েম্বাটুর, কোঝিকোড় এবং পুনে শহরে অপরাধের হার ২০২০ সালে উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে— যথাক্রমে ৫৪ শতাংশ, ৫১ শতাংশ, ৫৮ শতাংশ এবং ১২১ শতাংশ।

বিশেষত পুনে শহরে অপরাধের বাড়াবাড়ি এই শহরকে ২০১৯ সালে নিরাপদ শহরের তালিকার তৃতীয় স্থান থেকে ২০২০ সালে সপ্তম স্থানে নামিয়ে দিয়েছে।

আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশের সরকারি বিজ্ঞাপনে কলকাতার উড়ালপুল, ভুল স্বীকার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসে

Updated On: 2021-09-17T16:51:25+05:30
Show Full Article
Next Story