সাম্প্রদায়িক রঙ মাখিয়ে ছড়াল পথ সুরক্ষা বৃদ্ধি নিয়ে সচেতনতামূলক ভিডিও

বুমকে ভিডিওটির নির্মাতা রাঘবেন্দ্র কুমার জানান চিত্রনাট্যের ভিত্তিতে পথ নিরাপত্তা নিয়ে সচেতনার উদ্দেশ্যে তৈরি করা হয়েছে।

দু'চাকার যান চালানোর সময় মাথায় হেলমেট (helmet) পরার প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সচেতনতা (awareness) বাড়াতে একটি সাজানো ভিডিওকে কাটছাঁট (cropped) করে শেয়ার করা হচ্ছে। আর সেই সঙ্গে দাবি করা হচ্ছে যে, হেলমেট পরতে বলায় মুসলমান (Muslims) তরুণরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন।

ওই ভিডিও যিনি পরিকল্পনা করেন ও তোলেন, সেই রাঘবেন্দ্র কুমার, বা 'হেলমেটম্যান' বলেও যিনি পরিচিত, তাঁর সঙ্গে কথা বলে বুম। তিনি নিশ্চিত করে জানান যে, ভিডিওটি একটি চিত্রনাট্যের ওপর ভিত্তি করে তোলা হয়।

ভাইরাল ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, একটি মোটরবাইকে দুই আরোহী মসজিদের দিকে যাচ্ছেন। রাস্তায় এক ব্যক্তি তাঁদের থামান ও জানতে চান তাঁদের মাথায় হেলমেট নেই কেন। ওই ব্যক্তি হিন্দিতে বাইক আরোহীদের বাড়ি ফিরে গিয়ে হেলমেট পরে আসতে বলেন। তবেই উনি তাঁদের মসজিদে প্রার্থনায় যোগ দিতে যেতে দেবেন বলে জানান। এরপর ফেজ টুপি পরা ওই বাইক আরোহীরা তাঁদের বন্ধুদের ফোন করেন। এবং তাঁরা বন্দুক ও তলোয়ার নিয়ে হাজির হন।

সেখানে একটা হইচই বেধে যায় এবং লোকজনকে তলোয়ার ঘোরাতে দেখা যায়। এক সময়, এক ব্যক্তিকে 'হেলমেট ম্যান' বলে নিজের পরিচয় দিতে শোনা যায়। আরও কিছুটা পরে, ওই ব্যক্তিকে হেলমেট পরার ব্যাপারে সচেতনতা বাড়ানোর চেষ্টা করেতে দেখা যায়, কিন্তু তরুণরা আরও আগ্রাসী হয়ে ওঠে।

ফেসবুকে শেয়ার করা ভিডিওটির সঙ্গে দেওয়া হিন্দি ক্যাপশনে বলা হয়, "মাদ্রাসায় শিক্ষার ফল। উগ্রপন্থার আর এক নাম ইসলাম। বিদ্বেষের আবহে মসুলমানরা লালিত হচ্ছে। মহাসেনা এই ধরনের হিংসার বিরুদ্ধে।"

(হিন্দিতে লেখা ক্যাপশন: मदरसे की शिक्षा का असर, कट्टरता का दूसरा नाम इश्लाम-नफरतों की आगोश में पलता मुसलमान। महासेना इस तरह की हिंसा का विरोध करती है। #संघियोंभारतछोड़ो #महासेना)




ভিডিওটি একই ক্যাপশন সহ টুইটারেও ভাইরাল হয়েছে।





তথ্য যাচাই

আমরা ভিডিওটি ভাল করে দেখি। সেটি তোলার সময়, বাইক আরোহীদের হাসতে দেখা যায়। তার ফলে ভিডিওটি সাজানো বলে মনে হয় আমাদের। সেটির ওপরের এক কোণে 'টুডে দর্পণ' লেখা একটি লোগো দেখা যায়। সেটিকে সূত্র ধরে আমরা ইউটিউবে সার্চ করি। এবং ওই একই নামের একটি চ্যানেলের সন্ধান পাওয়া যায়।

বুম দেখে যে, ওই ভিডিওটির একটি বড় সংস্করণ এ বছর ২৩ মার্চ ইউটিউবে আপলোড করা হয়। সেটির হিন্দিতে লেখা শিরোনামের মানে দাঁড়ায়, "নামাজ পড়তে মসজিদে যাওয়ার পথে এঁদের আটকালে, তাঁরা আগ্রাসী হয়ে ওঠেন। কিন্তু বন্দুক আর তলোয়ারের বিরুদ্ধে হেলমেটেরই জয় হয়।"

(হিন্দিতে লেখা শিরোনাম: नमाजियों को मस्जिद जाने से सड़क पर रोका तो आया गुस्सा,तलवार और बंदूकों पर भारी पड़ा हेलमेट। समझे बात)

কিন্তু ওই ১৩ মিনিটের ভেডিওটিতে কোথাও বলা হয়নি যে সেটি একটি চিত্রনাট্যের ভিত্তিতে তোলা কিনা।

আমরা দেখি যে, ইউটিউবের ভিডিওটির ক্যাপশনে 'হেলমেটম্যান' ও 'রাঘবেন্দ্রকুমার'-এর মতো হ্যাশট্যাগ ব্যবহার করা হয়। সেগুলিকে সূত্র ধরে, আমরা কি-ওয়ার্ড সার্চ করি। তার ফলে, আমরা রাঘবেন্দ্র কুমার বা হেলমেটম্যানের ওপর কিছু সংবাদ প্রতিবেদন দেখতে পাই। ৩৪ বছরের ওই ব্যক্তি বিহারের বাসিন্দা। 'হেলমেট ম্যান' নামে তিনি খ্যাতি অর্জন করেছেন, কারণ পথ নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে উনি হেলমেট বিলি করেন।

আমরা কুমারের ইউটিউব চ্যানেলও দেখতে পাই। এই ভিডিওটি সহ আরও কয়েকটি সচেতনতা বাড়ানোর ভিডিও আপলোড করা আছে তাতে।

এর পর বুম ভিডিওটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে কুমারের সঙ্গে যোগাযোগ করে।

"পথ নিরাপত্তার বার্তা দেওয়া হয়েছে ভিডিওটিতে। পথ দুর্ঘটনায় আমার এক বন্ধুর মৃত্যুর পর থেকে, আমি ৭-৮ বছর ধরে হেলমেট বিতরণ করে আসছি। ওই মসজিদটির কাছে তোলা এটাই আমার প্রথম ভিডিও নয়। বিহারের কাইমুর জেলার বারৌলি গ্রামে ভিডিওটি তোলা হয়। সেটির জন্য একটি চিত্রনাট্য লেখা হয়েছিল। সকলেই সেটা দেখেন ও পথ নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে ওই ভিডিওয় অংশ নিতে রাজি হন," কুমার বুমকে বলেন।

"আমার বার্তাটা খুব সহজ সরল। সেটা হল, আপনার ধর্ম ততক্ষণই আছে, যতক্ষণ আপনার আয়ু আছে। তাই আমি কয়েক বছর ধরে পথ নিরাপত্তার ওপর জোর দিয়ে আসছি। আমার ভিডিওগুলি অনেকবার দেখা হয়েছে। কিন্তু এটা খুবই দুর্ভাগ্যের কথা যে, একটিকে কেটে ছেঁটে ভুয়ো খবর হিসেবে শেয়ার করার ফলে সেটি ভাইরাল হয়ে যায়," বুমকে বলেন কুমার।

রাঘবেন্দ্র কুমার বুমকে এও বলেন যে, কোনও ধর্মকে নেতিবাচক আলোয় দেখানোর উদ্দেশ্য ছিল না তাঁর।

আরও পড়ুন: বিভ্রান্তিকর সংবাদপত্র রিপোর্টের দাবি গুজরাতে বিজেপি ছাড়লেন ২৫ বিধায়ক

Updated On: 2021-05-03T13:01:42+05:30
Claim Review :   ভিডিওর দাবি হেলমেট পরতে বলায় মুসলিম যুবকরা ক্ষিপ্ত আচরণ করছে
Claimed By :  Social Media Pages
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story