ভাইরাল ছবিটি উত্তরপ্রদেশে মুসলিমদের ধর্ম পরিবর্তনের ঘটনা নয়

বুম দেখে ভাইরাল ছবিটি ২০১৬ সাল থেকে অনলাইনে রয়েছে। এটি কোনও ধর্ম পরিবর্তনের ঘটনা নয়।

কয়েকজন মুসলমান (Muslim) এক গেরুয়াধারী ব্যক্তিকে ঘিরে আছেন, এমনই এক ছবি সোশাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। সঙ্গে ক্যাপশনে মিথ্যে দাবি করা হযেছে যে, মুসলমানরা হিন্দু (Hindu) ধর্ম অবলম্বন করছেন।

বুম দেখে, ছবিটি ২০১৬ সালে তোলা। এবং দাবিটি মিথ্যে ও সেটির সঙ্গে ছবিটির কোনও সম্পর্ক নেই।

৬ ডিসেম্বর, উত্তরপ্রদেশের ওয়াকফ বোর্ডের সভাপতি ওয়াসীম রিজভি ইসলাম পরিত্যাগ করে হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেন। ইন্ডিয়া টুডে'র প্রতিবেদনে বলা হয়, কোরানের কিছু অংশ বাদ দেওয়ার আবেদন করে রিজভি সুপ্রিম কোর্টে একটি জনস্বার্থমূলক মামলা করেন। সেই জন্য তাঁকে প্রাণ নাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছিল, এমটাই দাবি। ওই রিপোর্টে বলা হয়, রিজভির মতে, কোরানের ওই স্তবকগুলি হিংসা সমর্থন করে। সুপ্রিমকোর্ট তাঁর আবেদন খারিজ করে দেয়। এই পরিপ্রেক্ষিতে ভাইরাল হয়েছে ছবিটি।

অন্য একটি ঘটনায়, এ বছর নভেম্বরের শুরুতে, উত্তরপ্রদেশের মুজাফ্ফরনগরে পাঁচটি মুসলমান পরিবার হিন্দু ধর্ম গ্রহণ করেন। ১৮ বছর আগে তাঁরা ইসলামে ধর্মান্তরিত হয়েছিলেন। পড়ুন এখানে।

একটি ফেসবুক পেজ থেকে ছবিটি শেয়ার করা হয়। সেটির সঙ্গে দেওয়া হিন্দি ক্যাপশনে বলা হয়, "ওয়াসীম রিজভি সনাতন ধর্মে ফিরে আসার পর, মুসলমানরা তাঁদের ভয় কাটিয়ে উঠছেন। উত্তরপ্রদেশে, ৩৪টি মুসলমান পরিবার, সনাতন হিন্দু ধর্মে ফিরে এসেছেন।"

(হিন্দিতে লেখা ক্যাপশন: वसीम रिजवी जी के सनातन धर्म में घर वापसी के बाद मुस्लिमों का डर खुल रहा है,और वो स्वेच्छा से घर वापसी कर रहे है। यूपी में 34 मुस्लिम परिवारों ने कि सनातन हिन्दू धर्म में वापसी)

পোস্টটি দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন।


পোস্টটি দেখার জন্য এখানে ক্লিক করুন।


একই ক্যাপশন সমেত ছবিটি টুইটারেও ভাইরাল হয়েছে।

আরও পড়ুন: ২০১২ সালে অন্ধ্রপ্রদেশের অনুষ্ঠানের ভিডিও ছড়াল দুবাই-এর ঘটনা বলে

তথ্য যাচাই

বুম ছবিটির রিভার্স ইমেজ সার্চ করে দেখে যে, ছবিটি ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ হিন্দি দৈনিক অমর উজালায় একটি প্রতিবেদনের সঙ্গে প্রকাশিত হয়।

ওই প্রতিবেদনের হিন্দি শিরোনামে বলা হয়, "পাকিস্তান মুর্দাবাদ স্লোগান ওঠে জামা মসজিদে"।

(হিন্দিতে লেখা শিরোনাম: जामा मस्जिद पर लगे पाकिस्तान मुर्दाबाद के नारे)


ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ উরিতে আক্রমণের পর, উত্তরপ্রদেশের মথুরাতে, মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ শাহী জামা মসজিদে সমবেত হয়ে পাকিস্তানকে ধিক্কার জানান।

জম্মু ও কাশ্মীরের উরিতে ভারতীয় সেনার ব্রিগেড সদর দফতরে হামলায় ১৯ জন সেনা মারা যান। ওই রিপোর্টে আরও বলা হয় যে, মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষজন শাহী জামা মসজিদে সমবেত হন। এবং সেখানে মসজিদের ইমাম মহম্মদ ওমর কাদ্রি ও মহামন্ডলেস্বর নভাল গিরি তাঁদের সঙ্গে স্লোগান দেন ভারত মাতা কি জয়, হিন্দুস্থান জিন্দাবাদ ও পাকিস্তান মুর্দাবাদ।

ওই ঘটনার একটি ভিডিও অমর উজালার ওয়েবসাইটে ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ আপলোড করা হয়। সেটির হিন্দি শিরোনামে লেখা হয়, "বৃন্দাবন জামা মসজিদে লোকে স্লোগান দেয় 'সন্ত্রাসবাদ মুর্দাবাদ'"।

(হিন্দিতে লেখা শিরোনাম: वृंदावन जामा मस्जिद पर लोगों ने लगाए 'आतंकवाद मुर्दाबाद' के नारे)


২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ করা একটি ফেসবুক পোস্টও দেখতে পায় বুম। সেটিতে ওই একই ছবি শেয়ার করা হয়েছিল। পোস্টটিতে অবশ্য কোনও ক্যাপশন ছিল না।

আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশে বিএসপি পাবে ১৮৫ আসন, ফের ছড়াল এবিপির পুরনো জনমত সমীক্ষা

Claim :   উত্তরপ্রদেশে ৩৪ জন মুসলমান সনাতন হিন্দু ধর্মে ধর্মান্তরিত হয়েছেন
Claimed By :  Social Media
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story
Our website is made possible by displaying online advertisements to our visitors.
Please consider supporting us by disabling your ad blocker. Please reload after ad blocker is disabled.