মিথ্যে দাবি সহ ছড়াল আফগানদের পাকিস্তান সীমান্ত পেরনোর পুরনো ভিডিও

বুম দেখে ২০২০ সালে তোলা ওই ভিডিওতে কোভিড-১৯ বিধি উঠে যাওয়ার পর আফগানদের পাকিস্তান সীমান্ত পেরতে দেখা যায়।

একটি ভিডিওতে, কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ার পর সীমান্ত খুলে দেওয়া হলে, হাজার হাজার আফগানকে (Afgans) পাকিস্তান (Pakistan) থেকে নিজের দেশের দিকে যেতে দেখা যাচ্ছে। কিন্তু মিথ্যে দাবি সমেত ভিডিওটি তালিবানের আফগানিস্তান (Taliban takeover) দখলের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে।

খবরে প্রকাশ যে, ১৫ অগস্ট ২০২১, আফগান সরকারকে উৎখাত করে তালিবান দেশটির দখল নেওয়ার পর, সে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত স্পিন বোলডাক/চমন সীমান্ত দিয়ে সম্প্রতি বহু আফগান পাকিস্তানে প্রবেশ করেছেন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন চিকিৎসা করানোর জন্য রোগী এবং জেল থেকে ছাড়া-পাওয়া আফগান বন্দিরা।

আফগানিস্তান থেকে মানুষের চলে আসার ওই ভিডিওর সঙ্গে নেটিজেনরা ভারতের মোদী সরকারের সিএএ বা নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের প্রসঙ্গ জুড়ে দিয়েছেন। ওই অইন অনুযায়ী, পাকিস্তান, বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে আসা শরনার্থীদের মধ্যে কেবল অ-মুসলমানদেরই ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে।

বাংলায় লেখা ক্যাপশনে বলা হয়েছে, "কিছুক্ষণের জন্য পাকিস্তানি আধিকারিকরা আফগানিস্তান-পাকিস্তান সীমান্ত খুলে দেওয়ার পরের দৃশ্য...দেখুন আত্মঘাতী হিন্দুরা চোখ খুলে দেখুন খুব তো এনআরসি সিএএ-এর বিরোধিতা করেছিলেন এবার এই লোক গুলো পাকিস্তান হয়ে ভারতে আসার চেষ্টা করবে তারপর বলিরপাঠা হবে কারা????????"


পোস্টটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

যাচাই করে দেখার আবেদন সমেত ভিডিওটি বুমের হেল্পলাইন নম্বরেও আসে। সেটির ক্যাপশনে লেখা ছিল, "পাকিস্তান সীমান্ত ভেঙ্গে আফগানিরা পাকিস্তানে ঢুকে পড়ছে।"


আরও পড়ুন: তালিবানের হাতে কপ্টার বলে জি ২৪ ঘন্টা দেখাল ২০২০ সালের লিবিয়ার ভিডিও

তথ্য যাচাই

ভাইরাল ভিডিওটির একটি প্রধান ফ্রেম নিয়ে বুম রিভার্স ইমেজ সার্চ করে। দেখা যায়, ব্রিটেনের দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফ-এর ইউটিউব চ্যানেলে ওই ভিডিওটি ৮ এপ্রিল ২০২০ তে আপলোড করা হয়েছিল। সেখানে, ভিডিওটির ক্যাপশনে বলা হয়, "কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হলে, কয়েক হাজার মানুষ, তড়িঘড়ি পাকিস্তান-আফগানিস্তান সীমান্ত পেরিয়ে যান।"

ভিডিওটির বিবরণে বলা হয়, "সংক্রমণ রুখতে, দু' সপ্তাহের কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হলে, মঙ্গলবার হাজার হাজার আফগান পাকিস্তান সীমান্ত পেরিয়ে স্বদেশের দিকে যেতে শুরু করেন।"

তাতে আরও বলা হয়, "খাইবার পাসের কাছে, টোরখাম-এ সীমান্ত পারাপারের জায়গায় তোলা ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, নথিপত্র যাচাই ও নিভৃতবাসে পাঠানোর সম্ভাবনা এড়াতে, আফগানরা দলে দলে ছুটে সীমান্ত পার হয়ে যান।"

ওই সূত্র ধরে আমরা গুগুল ম্যাপে কিওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করি। তার ফলে, আমরা পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের মধ্যে টোরখাম সীমান্তটি দেখতে পাই্। ভাইরাল ভিডিওতে যে জায়গাটি দেখা যাচ্ছে, সেই জায়গাটিই দেখা যায় গুগুলের ছবিতেও।

তাছাড়া স্টক ফোটো এজেন্সি গেট্টি ইমেজেস-এও আমরা ওই জায়গাটির ছবি দেখতে পাই। ভাইরাল ভিডিও আর গেট্টির ওয়েবসাইটে রাখা টোরখাম-এর ছবি পাশাপাশি বসিয়ে মিলিয়ে দেখা হয়েছে নীচে।

ভাইরাল ভিডিও ও টোরখাম বর্ডারের ছবির তুলনা

৬ এপ্রিল, ২০২০ প্রকাশিত দ্য নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস-এর একটি প্রতিবেদনে বলা হয় যে, কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বিধিনিষেধ উঠে গেলে, সীমান্ত পারাপারের টোরখাম ও চমন পোস্ট দু'টি খুলে দেয় পাকিস্তান। যাতে আটকে-পড়া আফগান নাগরিকরা তাঁদের দেশে ফিরে যেতে পারেন।

টোরখাম বর্ডার পেরিয়ে আফগানিস্তানে ঢোকার জন্য আফগানদের মধ্যে হুড়োহুড়ির দৃশ্য এখানেও দেখা যাবে।

তালিবানরা আফগানিস্তান দখল নেওয়ার পর থেকে বুম একাধিক ভুল ও মিথ্যে খবর খণ্ডন করেছে। আমাদের তথ্য-যাচাইগুলি আপনারা নিচের থ্রেডে দেখতে পারেন।

Claim Review :   তালিবান আফগানিস্তান দখলের সীমান্ত পেরিয়ে পাকিস্তানে ঢুকছে আফগানরা
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story