পাবাজি মোবাইল লাইট সহ ১১৮ টি অ্যাপ নিষিদ্ধ হল ভারতে

জুন মাস থেকে এই নিয়ে তৃতীয় দফায় ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার চিনা অ্যাপের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করল।

বুধবার চিনের সঙ্গে সম্পর্কিত ১১৮টি অ্যাপ নিষিদ্ধ করেছে ভারত সরকার। তার মধ্যে পাবজি (PUBG) মোবাইল লাইট, অন্যান্য গেমিং অ্যাপ, ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটয়ার্ক সার্ভিসেস (ভিপিএন) এবং ক্যামেরা স্ক্যানারের মত কিছু প্রোডাক্টিভিটি অ্যাপও রয়েছে। ইলেকট্রনিকস ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রক থেকে যে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে, তাতে জানানো হয়েছে যে এই অ্যাপগুলি নিষিদ্ধ করা হয়েছে কারণ এই অ্যাপগুলি ভারতের সার্বোভৌমত্ব, নিরাপত্তা, প্রতিরক্ষা এবং আইনশৃঙ্খলার পক্ষে ক্ষতিকারক বিভিন্ন কার্যকলাপে লিপ্ত ছিল।

ওই মন্ত্রক থেকে জানানো হয়েছে, "উপরিল্লিখিত তথ্যের ভিত্তিতে এবং নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে পাওয়া খবর থেকে জানা গেছে যে এই অ্যাপগুলিতে যে সব তথ্য প্রকাশ করা হয়, যে সব অনুমতি নেওয়া হয় বা যে ভাবে কার্যকরী হয় এবং তথ্য সংগ্রহ করার যে পদ্ধতি অনুসরণ করা হয় তা থেকে বোঝা যায় যে এই অ্যাপগুলি আপত্তিকর ভাবে তথ্য সংগ্রহ করে এবং তা অন্যত্র পাঠায়, যার ফলে যে কোনও ব্যক্তিগত তথ্য বাইরে বেরিয়ে যেতে পারে এবং তা দেশের পক্ষে ক্ষতিকারক হতে পারে।"

পাবজি মোবাইল লাইট একটি মোবাইল-ভিত্তিক গেম। প্লেয়ার আননোন ব্যাটলগ্রাউন্ড নামে অল্পবয়সীদের মধ্যে জনপ্রিয় একটি মোবাইল গেমের টোন্ড-ডাউন ভার্সন হল পাবজি মোবাইল লাইট। অ্যান্ড্রয়েড প্লে স্টোরে এটি প্রায় ১০০ মিলিয়ন বার ডাউনলোড করা হয়েছে। এটি টেনসেন্ট গেমের তৈরি, যাদের ঠিকানা দেওয়া হয়েছে সিঙ্গাপুরের।

আরও পড়ুন: জয়েন্ট এন্ট্রান্স পরীক্ষায় বসছেন? জেনে নিন সমস্ত নিয়ম কানুন

চাইনিজ মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন এই নিয়ে তৃতীয় দফায় নিষিদ্ধ করা হল। লাদাখে ভারতীয় সীমায় চিনের আগ্রাসনের পরই এই পদক্ষেপ করা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। এ ছাড়া চিনা মালিকানার তথ্য প্রযুক্তি সংস্থাগুলির ক্ষেত্রে ভারত (এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশও) তথ্যে নিরাপত্তা নিয়ে বিশেষ চিন্তিত।

এই নিষিদ্ধকরণ শুরু হয় ২৯ জুন। টিকটক নামে ভিডিও শেয়ারিং অ্যাপ যা অল্পবয়সীদের জনপ্রিয় ছিল। এই টিকটক সহ ৫৯টি অ্যাপ সেসময় নিষিদ্ধ করা হয়। এছাড়া অন্যান্য অ্যাপের সঙ্গে শিইন, উইচ্যাট, উইবো, ক্লাব ফ্যাক্টরি এবং ক্যাম স্ক্যানার নিষিদ্ধ করা হয়। ঘটনাক্রমে, বিভিন্ন ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক বা ভিপিএন যা টিকটক ডাউনলো্ড করতে ব্যবহার করা হয় তাও নিষিদ্ধ করা হয়। ২৮ জুলাই দ্বিতীয় দফার নিষিদ্ধকরণের সময় টিকটক লাইট এবং শেয়ারইট লাইটের মত ৪৭টি অ্যাপ নিষদ্ধ করা হয়। তবে সেই সময় যেসব অ্যাপ নিষিদ্ধ করা হয় সেগুলি মূলতঃ ক্লোন অ্যাপ ছিল।

নীচে নোটিফিকেশনটি দেখতে পারেন।

আরও পড়ুন: চিনা অ্যাপ নিষিদ্ধ: টিকটক, ক্যামস্ক্যানারের বিকল্প যা ব্যবহার করতে পারেন

Show Full Article
Next Story