২০১৭ সালে বিহারে হাসপাতালের বেডে কুকুর শোয়ার ছবি সাম্প্রতিক বলে ভাইরাল

বুম দেখে ছবিটি ২০১৭ সালের। ওই সময় বিহারের মুজাফ্ফরপুরের এক হাসপাতালের ওয়ার্ডে কুকুর ঢুকে পড়েছিল।

বিহারের একটি হাপাতালের ওয়ার্ডে, খাটের ওপর কুকুর শুয়ে থাকার তিন বছরের পুরনো ছবি আবার প্রচারে আনা হয়েছে এই বলে যে, বন্যা-কবলিত বিহারের অবস্থা এমনই। ভাইরাল ছবিতে কুকুরদের হাসপাতালের খালি খাটে শুয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। আবার নতুন করে জাগিয়ে তোলা ছবিটির ক্যাপশনে অতিমারি ও বন্যার সময় হাসপাতালগুলির দুর্ব্যবস্থার জন্য মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের সরকারের সমালোচনা করা হয়েছে।

বর্তমানে, বিহার এক ভয়ঙ্কর বন্যার কবলে পড়েছে। সেখানকার প্রধান নদীগুলি বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে এবং ১০ জেলার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। ওই রাজ্যকে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধেও লড়তে হচ্ছে এবং বর্তমানে সে রাজ্যে চিকিৎসাধীন ব্যক্তির সংখ্যা ৪৫,০০০।

রাষ্ট্রীয় জনতা দলের সদস্য ড. তনভির হাসান ভাইরাল ছবিটি পোস্ট করেন। সঙ্গে-দেওয়া ক্যাপশনে বলা হয়, "ছবিটি মুজাফ্ফরপুর হাসপাতালের। নীতীশ কুমারকে অভিন্দন।

(হিন্দিতে ক্যাপশনের বয়ান: ये तस्वीरें मुज़फ़्फ़रपुर के अस्पताल की है। नीतीश कुमार को बधाई दे दिजीए।)

টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

নীতীশ কুমারের সমালোচনা করে অন্যান্য টুইটার ব্যবহারকারীরাও পোস্টটি শেয়ার করেন।

একই পোস্ট ফেসবুকেও ভাইরাল হয়েছে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

আরও পড়ুন: ২০১৮'র ঢোল-তাসা বাজানোর ভিডিওকে বলা হলো রাম মন্দির স্থাপনের উদযাপন

তথ্য যাচাই

বুম দেখে ছবিটি ২০১৭ সালে মুজাফ্ফরপুরের একটি ঘটনার। তৎকালীন জেলা শাসক সেটির তদন্তও করিয়ে ছিলেন।

'হাসপাতালে কুকুর', হিন্দিতে এই কি-ওয়ার্ড লিখে আমরা সার্চ করি। তার ফলে ৫ ডিসেম্বর ২০১৭ সালে ডি মিশ্র নামের একজন টুইটার ব্যবহারকারীর টুইট আমাদের নজরে আসে। হিন্দি কাগজ 'দৈনিক ভাস্কর'-এর সাংবাদিক হিসেবে তিনি নিজের পরিচয় দেন। উনি ওই কাগজের একটি ক্লিপিং পোস্ট করেন যাতে ওই ছবিটি ব্যবহার করা হয়েছিল। ওই কাগজের রিপোর্টে বলা হয়, ছবিটি বিহারের মুজাফ্ফরপুর শহরের সদর হাসপাতালের ছবি।

ছবিটিতে দু'টি ফটো আছে, যাতে কুকুরদের হাসপাতালের খাটে শুয়ে থাকতে দেখা যাচ্ছে। এবং দু'টি ছবিই দৈনিক ভাস্কর-এর মুজাফ্ফরপুর সংস্করণে ছাপা হয়। হিন্দিতে লেখা প্রতিবেদনটির শিরোনামে বলা হয়, 'এই সার্জিক্যাল ওয়ার্ডটি রাতে কুকুরদের বিশ্রামাগারে পরিণত হয়'। ৫ ডিসেম্বর ২০১৭-য় প্রকাশিত হয় রিপোর্টটি।

খবরের ক্লিপিংটির বাম কোণে ভাইরাল ছবিটি দেখা যায়।

ওয়েবসাইটে দেওয়া রিপোর্টটিতে বলা হয়, রাস্তার কুকুররা বিহারের মুজাফ্ফরপুর শহরের সদর হাসপাতালের সার্জিক্যাল ওয়ার্ডে প্রতি রাতে আশ্রয় নেয়। সেখানে কর্মীর অভাবের ফলে দেখাশোনা হয় না। তাই কুকুররা বিনা বাধায় ঘুরে বেড়ায়। রিপোর্টটিতে আরও বলা হয় যে, ওই ওয়ার্ডে ৪০টি বেড আছে। কিন্তু ১০টি আছে কুকুরদের দখলে। দৈনিক ভাস্কর-এর অন্য একটি রিপোর্টে বলা হয়, মুজাফ্ফরপুরের তৎকালীন জেলা শাসক ধর্মেন্দ্র সিং এই ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দেন এবং সেখানে ওয়ার্ড অ্যটেন্ডেন্ট ও সুরক্ষা কর্মীদের মোতায়েন করার নির্দেশ দেন।

এ বিষয়ে আরও রিপোর্ট দেখা যাবে এখানে, এখানেএখানে

বিহারে সাম্প্রতিক বন্যা সম্পর্কে বেশ কিছু মিথ্যে খবর শেয়ার করা হচ্ছে। এর আগে বুম কিছু ছবির সত্যতা খারিজ করে দেয়। সম্পর্কহীন কিছু পুরনো ছবিকে সম্প্রতি বন্যার সময় বিহারের কোভিড-১৯ চিকিৎসা কেন্দ্রের অবস্থার দৃশ্য বলে চালানো হয়।

আরও পড়ুন: গহলৌতের পুরনো চা ঢালার ছবি ভুয়ো দাবি সহ জিইয়ে উঠলো

Updated On: 2020-08-02T10:17:33+05:30
Claim Review :  ছবির দাবি বিহারের হাসপাতালের বেডে কুকুর
Claimed By :  Facebook Posts & Twitter Users
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story