ফ্লোরিডার বাদুড়ের ঝাঁকের ভিডিওকে করোনাভাইরাসের উৎস মিললো বলে শেয়ার হল

বুম অনুসন্ধান করে দেখেছে যে ভিডিওটি ৮ বছরের পুরনো এবং মোটেও চিনে তোলা নয়।

আমেরিকার ফ্লোরিডায় এক টালির ছাদের তলায় এক সঙ্গে অনেক বাদুড়ের একটি তিন মিনিটের ভাইরাল হওয়া ভিডিওকে মিথ্যে দাবি করা হয়েছে চিনের হুবেই অঞ্চলে নয়া করোনাভাইরাসের উৎসের খোঁজ পাওয়া গেছে।

২০১১ সালের জুলাই মাসের পুরনো এই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে হাতে দস্তানা পরে কর্মীরা একটি পুরানো ছাদের টালি সরাচ্ছে এবং প্রত্যেক টালির তলা থেকে শত শত বাদুড় উড়ে বেরিয়ে আসছে।

যখন ঠিকাদার কর্মীরা একটা একটা করে টালি সরাচ্ছেন তখন সেখানে প্রচুর বাদুড় দেখা যাচ্ছে এবং ছবির সঙ্গে ভিডিওতে নাটকীয় বাজনা শোনা যাছে যার ফলে আশেপাশের সব কথা ও শব্দ ঢেকে গেছে।

ভিডিওটি সোশাল মিডিয়ায় পোস্ট করা হয়েছে, সঙ্গে ক্যাপশন, "করোনাভাইরাসের উৎস খুঁজে পাওয়া গেছে। বাদুড়ের এক ধরনের প্রজাতি ক্রিসেন্থেমাম বাদুড় চিনের হুবেই অঞ্চলের বহু বাড়ির ছাদে দেখা গেছে"।

আমরা বুমের হেল্পলাইন নম্বরেও (+৯১ ৭৭০০৯০৬১১১) ভিডিওটি পেয়েছি।


ভিডিওটি ফেসবুক এবং টুইটারে একই ক্যাপশনের সঙ্গে শেয়ার করা হয়েছে।

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

নীচে ফেসবুক পোস্টগুলির স্ক্রিনশট দেওয়া হল।



বুম খোঁজ করে জানতে পেরেছে যে মিয়ামির একটি ছাদ তৈরির ঠিকাদার কোম্পানি ইস্টুএটা রুফিং আট বছর আগে এই ভিডিওটি আপলোড করে। ভাইরাল ভিডিওতে যে নাটকীয় বাজনা শোনা যাচ্ছে, তা বাদ দিলে আসল ভিডিওতে কর্মীদের স্প্যানিশ ভাষায় কথা বলতে শোনা যাচ্ছে। সেই কোম্পানি ভিডিওটি সম্পর্কে লিখেছে: "আমাদের কর্মীরা যখন এক ক্লায়েন্টের ছাদ সরানো শুরু করে, তখন টালির তলা থেকে শত শত বাদুড় বেরিয়ে আসতে দেখে তারা বিস্মিত হয়ে যায়। এটা একেবারেই অপ্রত্যাশিত ছিল! (আমরা বাদুড় তাড়ানোর সার্ভিস দিই না)। এই ঘটনা ক্যামেরাবন্দী করার জন্য আমাদের প্রোডাকশন ম্যানেজার ড্যানি আরগটেকে বিশেষ ধন্যবাদ"।

ভিডিওটি আসলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঞ্চলের, চিনের কোনও প্রদেশের নয়। নীচে ছাদ তৈরির এই কোম্পানির ইউটিউব চ্যানেলে আসল ভিডিওটি দেখতে পারেন:

২০১৯ সালের এই নতুন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত ৩৬২ জন মারা গেছেন। সন্দেহ করা হচ্ছে যে চিনের হুবেই জেলার উহান শহরের সামুদ্রিক খাদ্যের বাজার থেকে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। ১ কোটি ১০ লক্ষ মানুষের বসতিপূর্ণ এই শহরকে এখন সব রকম যোগাযোগ থেকে বিচ্ছিন্ন করে রাখা হয়েছে। এই অসুখ ছড়িয়ে পড়ে লুনার নিউ ইয়ার উৎসবের সময়, যখন চিন থেকে বহু মানুষ বাইরে যান আবার অনেকে চিনে বেড়াতে আসেন।

ল্যান্সেটে প্রকাশিত স্টাডি অনুসারে এপিডেমিওলজিকালি এবং জেনোমিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে এই ভাইরাসের সঙ্গে সিভিয়ার অ্যাকিউট রেস্পিরেটরি সিন্ড্রোম (এসএএরএস)ভাইরাসের মিল আছে। স্টাডিতে আরও বলা হয়েছে যে যদিও বাদুড় থেকেই মূলত এই ভাইরাস ছড়িয়েছে, কিন্তু উহানের সামুদ্রিক খাদ্যের বাজারে বিক্রি হওয়া এক ধরনের প্রাণী থেকেও মানুষের দেহে এই ভাইরাস ছড়িয়ে থাকতে পারে। এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা ভুয়ো তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে।

বুম এর আগেও করোনাভাইরাসের ব্যাপারে অনেক ভুয়ো মেসেজের তথ্য যাচাই করেছে এবং সেগুলিকে মিথ্যে প্রমাণ করেছে। আমেদের প্রতিবেদগুলি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

আরও পড়ুন: মিথ্যে: চিন করোনাভাইরাস আক্রান্ত ২০,০০০ রুগীকে মারতে কোর্টের অনুমতি চেয়েছে

Updated On: 2020-02-09T10:51:27+05:30
Claim Review :  চিনের হুবেইয়ে ছাদে করোনাভাইরাসের উৎস বাদুড়ের ঝাঁক পাওয়া গেছে
Claimed By :  Social Media users
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story