স্বাধীনতা সংগ্রামী আশালতা সরকারের প্রয়াণের ছবি আবার জিইয়ে উঠলো

বুম যাচাই করে দেখে ২০১৮ সালের মে মাসে প্রয়াত হন আশালতা দেবী। নেটিজেনরা পুরনো ছবি দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছেন।

২০১৮ সালে প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী আশালতা সরকারকে শেষশ্রদ্ধা জানানোর ছবি সোশাল মিডিয়া জিইয়ে তুলে বিভ্রান্তকর ভুয়ো খবর ছড়ানো হচ্ছে। নেটিজেনরা অনেকেই সেই ছবি দেখে আশালতা দেবীর সদ্য প্রয়ানের খবর বলে ভুল করছেন।

ভাইরাল হওয়া ছবিতে থাকা আশালতা দেবীকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো ব্যক্তি, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জয়দীপ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করলো তিনি বুমকে জানান, "আশালতা দেবী মারা যান ২০১৮ সালের ১২ মে। ছবির ব্যক্তি আমি।"

জয়দীপ আরও বলেন, "উনি অনেক বড় মাপের স্বাধীনতা সংগ্রামী। আমাকে ভালোবাসতেন। নানান সমাজসেবামূলক কাজে আমাদের সঙ্গে যোগ দিতেন।"

ফুলে সাজানো মরদেহের ছবিটি শেয়ার করে ফেসবুকে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ''নীরবে চলে গেলেন মাস্টারদার সঙ্গী, বিপ্লবী আশালতা দেবী। তখনকার দিনেই মেয়ে হয়েও স্বাধীনতার জন্য ঝাপিয়ে ছিলেন। শেষ প্রনাম জানাই, হরি ওম।''

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

এই একই ছবির অসম্পাদিত অংশে দেখা যাচ্ছে আশালতা সরকারের মরদেহকে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করছে এক ব্যক্তি। গ্রাফিক লেখা সহ ছবিটি শেয়ার করে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ''কেউ মনে রাখেনা। আশালতা দেবী প্রতি শেষ শ্রদ্ধা রইলো।''

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

আরেকজন ফেসবুক ব্যবহারকারী ছবিটি শেয়ার করে লিখেছেন, ''নীরবে চলে গেলেন মাস্টারদার সঙ্গী, বিপ্লবী আশালতা দেবী..‼ হায়রে বাঙালি, চিনলে না তোমার মতো স্বাধীনতা সংগ্রামীকে! তখনকার দিনেই মেয়ে হয়েও স্বাধীনতার জন্য ঝাপিয়ে ছিলেন..... অন্য খবরের ভিঁড়ে উহ্য থেকে গেলো হয়তো এই খবরটা শেষ প্রনাম জানাই। জয় হিন্দ, জয় ভারত''

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

একজন টুইটার ব্যবহারকারী এই খবরটি শেয়ার করলে মেঘালয়ের রাজ্যপাল তথাগাত রায় সমালোচনা করেন রাজ্যের বাম জামানাকে। টুইটটিকে কোট করে লেখেন, ''ষাট-সত্তর বছরের বামপন্থী কুশিক্ষা কি একদিনে যাবে?''


টুইটটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

আরও পড়ুন: ২০১৭ সালে গোঘাটে বিকাশ রঞ্জন ভট্টাচার্যের হেনস্থার ঘটনা জিইয়ে তোলা হল

তথ্য যাচাই

বুম দেখে আশালতা সরকারের মরদেহের ছবিটি দু'বছরের পুরনো। ২০১৮ সালের মে মাসে তিনি হুগলীর শ্রীরামপুরে প্রয়াত হন।

বুম ফেসবুকে কিওয়ার্ড সার্চ করে দেখে ছবিটি ২০১৮ সালের ১২ মে ফেসবুকে পোস্ট করেন রক্তিম দাস। তিনি ওই পোস্টে ট্যাগ করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী জয়দীপ মুখোপাধ্যায়কে। ছবিটি তিনি ওই ফেসবুক পোস্টের ক্যাপশন লেখেন, ''নীরবে চলে গেলেন মাস্টারদা সঙ্গি বিপ্লবী আশালতা দেবী। হায়রে বাঙালি চিনলে না তোমার স্বাধীনতার সূর্য্য সন্তানকে। শেষ শ্রদ্ধা জানতে আইনজীবী জয়দীপদা।'' ছবিতে আশালতা দেবীকে শেষ শ্রদ্ধা জানান জয়দীপ মুখোপাধ্যায়।


ফেসবুকের পরিচিতি অনুযায়ী রক্তিম দাস 'সমকাল' সংবাদপত্রের কলকাতার সংবাদিক। বুম গুগল সার্চ করে বাংলাদেশের সংবাদপত্র 'সমকাল'-এর ১৩ মে ২০১৮ প্রকাশিত প্রতিবেদটি খুঁজে পায় যার শিরোনাম ছিল, ''বিপ্লবী আশালতা সরকার পরলোকে।'' সমকালের ই-পেপারেও রয়েছে খবরটি।


আইনজীবী জয়দীপ মুখোপাধ্যায় ছবিটি তাঁর ফেসবুক টাইমলাইনে শেয়ার করেন ১৩ মে ২০১৮। এছাড়াও বোধ ম্যাগ ১৩ মে ২০১৮ আশালতা সরকারের মৃত্য়ু সংবাদের প্রতিবেদনে ভাইরাল ছবিটি ব্যবহার করেছে।

চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুন্ঠনে মাস্টারদা সূর্যসেনের সহযোদ্ধা ছিলেন আশালতা দেবী বা আশালতা সরকার। অবিভক্ত বাংলার গাইবান্ধার রংপুরের জন্মান এই বীরাঙ্গনা। ১৯৩৪ সালে যাবজ্জীবন কারাদন্ড হয় তাঁর। ৮ বছর কারাবাসের পর সমাজসেবামূলক কাজে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। হুগলীর শ্রীরামপুরে কার্যত নিঃশব্দে মারা যান তিনি।

Claim Review :   ছবির দাবি প্রয়াত হলেন স্বাধীনতা সংগ্রামী আশালতা দেবী
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story