শাহরুখ খান অভিনীত অস্তিত্বহীন 'টিপু সুলতান' নামের একটি ছবি বয়কট করার ডাক দেওয়া হল

বুম দেখে, টিপু সুলতানের ভূমিকায় শাহরুখ অভিনীত ফিল্মের পোস্টারটি তাঁরই এক অনুরাগীর তৈরি এবং সেটি কোনও আসল সিনেমার পোস্টার নয়।

শাহরুখ খানের এক অনুরাগীর তৈরি 'টিপু সুলতান' নামক একটি কাল্পনিক চলচ্চিত্রের পোস্টার সোশাল মিডিয়ায় জিইয়ে উঠেছে, যেখানে অষ্টাদশ শতকের মাইসুরুর টিপু সুলতানের ভূমিকায় চিত্রতারকা শাহরুখ খানকে দেখানো হয়েছ। এবং অস্তিত্বহীন এই ছবিকে সোশাল মিডিয়ায় বয়কটের ডাক দেওয়া হয়েছে।

শাহরুখ খানের একজন অনুগামীর তৈরী এই পোস্টার চিত্রকর্মটি নেটিজেনদের মধ্যে ভাইরাল হয়েছে। ভাইরাল এই পোস্টারকে ব্যবহার করে চলচ্চিত্র প্রেমীদের 'শের-এ-মাইশোর: টিপু সুলতান, ইন্ডিয়াজ ফার্স্ট ফ্রিডম ফাইটার' (শের-এ-মাইশোর: টিপু সুলতান, ভারতের প্রথম স্বাধীনতা যোদ্ধা) নামের একটি কাল্পনিক এবং অস্তিত্বহীন ছবিকে বয়কট করার ডাক দিয়েছেন একাংশ নেটিজেন। ভাইরাল এই পোস্টারে যদিও টিপুর নামের বানান ভুল লেখা রয়েছে।

বুম এমন কোনও মুক্তি না পাওয়া চলচ্চিত্রের সন্ধান পায়নি যেখানে শাহরুখ খান টিপু সুলতানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

পোস্টারের ছবিতে শাহরুখ খানের মাথার ওপর টিপু সুলতানের শিরবর্মটি সম্পাদনা করে বসানো হয়েছে। আর তাঁকে লোহার শিকলের বর্ম পরে থাকতে দেখা যাচ্ছে।

কিন্তু কাল্পনিক এই পোস্টারটি ভারতের দক্ষিণপন্থী ও হিন্দু জাতীয়তাবাদী অংশের সমর্থকদের মধ্যে বেশ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে, এবং তারা অনেকেই শাহরুখ খানের প্রতি নিজেদের বিরক্তি এবং উষ্মা প্রকাশ করেছে টিপু সুলতানের ভুমিকায় তাকে নির্বাচিত করা হয়েছে বলে।

সাম্প্রদায়িক উস্কানি সহ একটি ফেসবুক পোস্ট, যেটা ৩২,০০০ বারের বেশী ফেসবুকে শেয়ার হয়েছে, সেখানে বলা হয়েছে,

"আপনি চিনতে পারছেন কি? টিপু সুলতানের নাম নিশ্চয়ই শুনেছেন? এটা খুবই দুর্ভাগ্যের বিষয় যে, ভারতে যারা লুঠতরাজ চালায় তাদের ওপর চলচ্চিত্র বানান হচ্ছে এবং মহান যোদ্ধা হিসেবে দেখানো হচ্ছে তাদের। যে লক্ষ লক্ষ হিন্দুর অঙ্গহানি করেছিল আর হাজার হাজার মন্দির ভেঙ্গে ছিল, তাকেই আজ দেশের বীর নায়ক হিসেবে দেখানো হচ্ছে। খুব সুচিন্তিতভাবেই অভিনেতাকে নির্বাচন করা হয়েছে। কারণ, তিনিও ওই 'জিহাদি' মনোভাবাপন্ন। এবার হিন্দুরা ৩০০-৫০০ টাকার টিকিট কেটে সিনেমাটি দেখবে এবং ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি খুব খুশি হবে। দেশটা আমাদের, টাকাটা আমাদের, নৃশংসতার শিকার হই আমরা, অত্যাচার চালানো হয় আমাদের ওপর, কিন্তু যে অত্যাচার করে, সেইই এখন এ দেশে বীর হয়ে উঠেছে। বাহঃ, বলিউডের ধর্মান্ধ আহাম্মকরা। বয়কট, বয়কট, বয়কট। একাত্মতার পক্ষে আওয়াজ তুলুন।" (ফেসবুক পোস্টের ক্যাপশনের ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদ)।
(ইংরেজী ক্যাপশন: "Do you recognise? Must have heard the name Tipu Sultan? It's unfortunate that in India movies are made on those who plundered the country and they are depicted as great warriors. He who maimed lakhs of Hindus, desecrated thousands temples is today being portrayed as a hero in our country. The actor selected for the role has been carefully chosen as he has the same 'Jihadi' mentality. Now Hindus will buy tickets worth Rs 300-500 to watch the movie and the film industry will enjoy. The country is ours, the money is ours, atrocities were unleashed on us, we were tortured but the perpetrator of all the atrocities has become the hero of this country today. Wow, you bigoted Bollywood buffoons. Boycott, boycott, boycott. Raise your voice for togetherness." - Translated text of the Facebook post.)
নীচে পোস্টারটির ক্যাপশনের স্ক্রিনশট সংযোজন করা হল। এর আর্কাইভ সংস্করণ দেখা যাবে এখানে

একই ধরনের বক্তব্য সমেত পোস্টারটি টুইটারেও ভাইরাল হয়েছে। আর্কাইভ সংস্করণ দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

তথ্য যাচাই

বুম অনুসন্ধান করে দেখে ওই পোস্টারটি শাহরুখ খানের এক অনুরাগী তৈরি করেছিলেন। এবং সেটি প্রচলিত ফিল্ম পোস্টারের মত নয়। এতে কোনও স্বত্বাধিকারীর নামের উল্লেখ নেই। নেই কোনও অভিনেতা অভিনেত্রীর নামও।
এই পোস্টারটি আসলে শাহরুখের একজন অনুরাগীর তৈরি একটি ইউটিউব ট্রেলারের থাম্বনেইল হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছিল। ট্রেলারটির নাম 'টিপু সুলতান ট্রেলার শাহরুখ খান নিউ মুভি', এটি সেপ্টেম্বর ২০১৮ 'তে ইউটিউবে আপলোড করা হয়। কয়েকটি ঐতিহাসিক ছবি, কাহিনীচিত্র আর মাথার বর্ম সমেত খানের ফোটোশপ-করা ছবি মিশিয়ে ট্রেলারের ফুটেজটি তৈরি করা হয়।
ট্রেলারটির শুরুতে একটি 'ডিসক্লেমার' বা ঘোষণা থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় যে, শাহরুখ খান ওরকম কোনও সিনেমায় অভিনয় করছেন না।

নীচে ভিডিওটি দেখুন,

Updated On: 2020-05-13T12:54:20+05:30
Claim Review :   ছবি দেখায় শাহরুখ খান তার আগামী ছবিতে টিপু সুলতানের ভুমিকায় অভিনয় করছেন
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story