"স্ট্যান্ড উইথ ইন্ডিয়া": ভাইরাল হল নেতানিয়াহু, ট্রাম্পের নকল অ্যাকাউন্টের ভুয়ো টুইট

বুম দেখে বিশ্বের নানা দেশের নেতাদের নকল অ্যাকাউন্ট থেকে ভারতকে সমর্থন জানানো অনেকগুলি টুইট ভাইরাল হয়েছে।

বিশ্বের প্রধান রাষ্ট্রনায়কদের অনেকের প্যারডি বা নকল অ্যাকাউন্ট থেকে করা একগুচ্ছ টুইট মাইক্র-ব্লগিং প্ল্যাটফর্মে, বিশেষত টুইটারে ভাইরাল হয়েছে। এই টুইটগুলিতে বলা হয়েছে যে এই নেতারা ভারতকে তাঁদের সমর্থন জানিয়েছেন।

ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প, ট্রাম্পের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প এবং জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে, জার্মান চ্যান্সেলর আঞ্জেলা মার্কেলের নকল অ্যাকাউন্ট আমরা দেখতে পাই এবং দেখি এই সব অ্যাকাউন্ট থেকে 'ভারতের পাশে আছি', এই বার্তা দিয়ে টুইট করা হয়েছে।
এই সব টুইটের উত্তরগুলি দেখলে বোঝা যায় যে, বহু মানুষ এই টুইটগুলিকে এই নেতাদের সত্যিকারের বার্তা বলে ধরে নিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়ার সেন্ট্রাল বোর্ডের ডিরেক্টর এস গুরুমূর্তির মত ব্যক্তিত্বও আছেন। এই টুইটগুলি বহু বার লাইক এবং রিটুইট করা হয়েছে।
ভারত এবং চিনের পারস্পরিক সম্পর্কে উত্তেজনা বৃদ্ধি পাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে টুইটগুলি করা হয়েছে। ভারত এবং চিনের পারস্পরিক সম্পর্কে উত্তেজনা তৈরি হওয়ার ফলে সোমবার রাতে গলওয়ান উপত্যকায় সংঘর্ষ হয়। যার ফলে দুই দেশেরই সেনার প্রাণহানি হয়েছে।

"ভারতের পাশে আছি"— নকল সমর্থনবার্তা

বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নামের একটি অ্যাকাউন্ট (@Netyanyahu) থেকে একটি টুইট করা হয়েছে, যার ক্যাপশন দেওয়া হয়েছে "আমি ভারতের পাশে আছি।" এই টুইটের সঙ্গে একটি ছবি দেওয়া হয়েছে, যাতে ইজরায়েলের প্রধানমন্ত্রী এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে পরস্পরের হাত ধরে থাকতে দেখা যাচ্ছে। এই প্রতিবেদন যখন লেখা হচ্ছে তখন পর্যন্ত এই টুইটটি প্রায় ৬০,০০০ বার রিটুইট করা হয়েছে, এবং ১৪,০০০ লাইক পেয়েছে।

এই অ্যাকাউন্টটি এক ঝলক দেখলেই বোঝা যায় যে এটি একটি নকল অ্যাকাউন্ট এবং এটি নেতানিয়াহুর অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডল নয়।

তবে এই টুইটের লাইক এবং রিটুইটের সংখ্যা এবং যত মানুষ এর উত্তর দিয়েছেন যে তা দেখে বোঝা যায় যে বহু মানুষ এই অ্যাকাউন্টটিকে আসল অ্যাকাউন্ট বলে ধরে নিয়েছেন। অনেকেই ভারতকে সমর্থন করার জন্য কৃতজ্ঞতাও জানিয়েছেন। আবার, এটি যে নকল অ্যাকাউন্ট, অনেকে তাও উল্লেখ করেছেন।

আরবিআই'র সেন্ট্রাল বোর্ডের ডিরেক্টর এস গুরুমূর্তি এই ভুয়ো অ্যাকাউন্টকে আসল ভেবেছেন এবং টুইটটি রিটুইট করেছেন।

নেতানিয়াহুর নকল প্রোফাইলটি ভাল ভাবে লক্ষ করলে বোঝা যাবে যে এক জন ভারতীয় এই অ্যাকাউন্টটি চালান। অ্যাকাউন্টটি ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর মাসে তৈরি করা হয়েছে, তবে গত কয়েকদিন ধরে মাত্র এই অ্যাকাউন্ট থেকে টুইট করা হয়েছে। এই সব টুইটের বেশিরভাগই ভারত-কেন্দ্রিক, বিশেষত ভারত-চিন সাম্প্রতিক দ্বন্দ্ব বিষয়ক। কভারের ছবিতেও রামায়ণের বৈদিক লেখার ইঙ্গিত রয়েছে।
'ভারতের পাশে আছি', এই কিওয়ার্ড দিয়ে বুম টুইটারে সার্চ করে এবং বিভিন্ন দেশের নেতাদের নকল অ্যাকাউন্টের তালিকা দেখতে পায়, যেগুলিতে ভারতকে একই রকম সমর্থন জানানো হয়েছে। আমরা ডোনাল্ড ট্রাম্প, মেলানিয়া ট্রাম্প এবং ইভাঙ্কা ট্রাম্পের নকল অ্যাকাউন্ট দেখতে পাই যেখানে এই একই পোস্ট টুইট করা হয়েছে।

আর্কাইভ সংস্করণ দেখা যাবে এখানে


আর্কাইভ সংস্করণ দেখা যাবে এখানে

আর্কাইভ সংস্করণ দেখা যাবে এখানে

আমরা দেখতে পাই জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেলের এ রকম নকল অ্যাকাউন্ট থেকেও একই টুইট করা হয়েছে।

আর্কাইভ সংস্করণ দেখা যাবে এখানে




পূর্ব লাদাখের গলওয়ান ভ্যালিতে সোমবার রাতে ভারতীয় এবং চিনা সৈন্যবাহিনীর মধ্যে সংঘর্ষের ফলে ২০ জন ভারতীয় সৈনিক প্রাণ হারান। লাইন্ অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোলে ১৯৭৫ সালের পর এটাই সবচেয়ে বড় সংঘর্ষের ঘটনা।

Claim Review :   টুইটের করে বিশ্বনেতারা চিনের বিরুদ্ধে ভারতের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছে
Claimed By :  Twitter
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story