না, এই ছবিগুলি ইতালিতে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর সঙ্গে সম্পর্কিত নয়

বুম খুঁজে পেয়েছে রাস্তায় ছড়ানো মৃতদেহ, গণকবর ও কফিনের ছবিগুলি ইতালিতে করোনাভাইরাসের জেরে মৃত্যুর সঙ্গে সম্পর্কিত নয়।

সোশাল মিডিয়ায় তিনটি ছবির একটি কোলাজ শেয়ার করে দাবি করা হয়েছে। ছবিগুলি ফেসবুকে শেয়ার করে ভুয়ো দাবি করা হয়েছে। এগুলি ইতালিতে করোনাভাইরাসের প্রকোপে মৃত্যুর ভয়াবহতার ছবি।

ইতালিতে কোভিড-১৯ এর সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৫,৪৭৬ জনের। যা চিনে করোনাভাইরাস অতিমারিতে মৃতের সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেছে। চিনে এপর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৩,২৭৪ জনের। ( সাম্প্রতিক তথ্য দেখুন জনহপকিন্সে)

প্রথম ছবিতে, দেখা যাচ্ছে একটি রাস্তায় সারি সারি মৃত লাশের ছবি। দ্বিতীয়, ছবিতে দেখা যাচ্ছে সারি সারি কফিনের ছবি। তৃতীয়, নীলাভ একটি ছবিতে দেখা যাচ্ছে সারি সারি মৃতদেহকে গণকবর দেওয়া হচ্ছে।

পোস্টটিতে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ''খুবই করুণ পরিস্থিতি ইটালির। কাজের দোহাই দিয়ে বাড়ি থেকে অকারনে বেরোনোর আগে এই দৃশ্যটা একটু মাথায় রাখবেন।''

পোস্টটি দেখা যাবে এখানে। পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

আরও পড়ুন: না, ট্রাম্প রোচে-র তৈরি কোনও করোনাভাইরাস প্রতিষেধক বাজারে ছাড়ার কথা ঘোষণা করেননি

তথ্য যাচাই

বুম রাস্তায় পরে থাকা মৃতদেহ ও নীলাভ গণকবর দেওয়ার দুটি ছবি আগেই খণ্ডন করছে। এই ছবি তিনটির একটির সঙ্গেও ইতালিতে করোনাভাইরাসে প্রাকোপে মৃত্যুর যোগ নেই। বুম ছবি তিনটিকে নীচে খণ্ডন করছে।

প্রথম ছবি জার্মানিতে প্রতিকী প্রতিবাদ

এই ছবিটি ২৪ মার্চ ২০১৪ সালে, জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টে তোলা হয়। একটি নাৎসি কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে যারা মারা যায়, তাদের কথা স্মরণ করে লোকেরা পথচারীদের জন্য একটি নির্দিষ্ট করা জায়গায় শুয়ে পড়েন। ওই শ্রদ্ধা জ্ঞাপন একটি প্রতিবাদ শিল্পের অঙ্গ ছিল। আসল ছবিটি রয়টার্সের সংগ্রহে রয়েছে।

ছবিটি আগে চিনে করোনাভাইরাসের প্রকোপে মত্যু মিছিল বলে ভাইরাল হয়েছিল। বুম তখন ছবিটিকে খণ্ডন করে।

আরও পড়ুন: করোনাভাইরাস সংক্রমণের ফলে চিনের রাস্তায় ছড়ালো শব দেহ? একটি তথ্য যাচাই

দ্বিতীয় ছবি কন্টাজিয়ন সিনেমার দৃশ্য

২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে কল্পবিজ্ঞানের গল্প নিয়ে মুক্তি পাওয়া কন্টাজিয়ন সিনেমার দৃশ্য এটি। ট্রেলারেই রয়েছে দৃশ্যটি। কন্টাজিয়নের কাহিনীর পটভূমিকায় এক মহামারি ভাইরাসের প্রসঙ্গ ছিল যার সংক্রমণ থামাতে আমেরিকা ব্যার্থ হলে সারা বিশ্বে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়। স্কট জে বার্ণসের লেখা এই কাহিনী পরিচালনা করেছিলেন স্টিফেন সোডারবার্জ।

ট্রেলারের ১ মিনিট২৩ সেকেন্ড সময়ে ভাইরাল ছবির ওই গণকবর দেওয়ার দৃশ্যটি দেখা যায়। নীচে ইউটিউব ভিডিও ও ভাইরাল ভিডিওটির তুলনা দেওয়া হল।

তৃতীয় ছবি ল্যাম্পিডুসায় নৌকাডুবির

তৃতীয় ছবিটি তিনটি ছবির কোলাজ যেখানের প্রত্যেকটিতেই সারি সারি কফিন বাক্স সাজানো রয়েছে। ২০১৩ সালের অক্টোবর মাসে ইতালির ল্যাম্পিডুসা উপকূলে অভিবাসীদের নৌকাডুবির ঘটানার ছবি এগুলি। সব ছবিগুলিই একই ঘটনার। ছবিগুলি দেখা যাবে গার্ডিয়ান, মেল অনলাইন ও ইয়াহু নিউজের প্রতিবেদনগুলিতে—এখানে, এখানেএখানে

নিচে প্রতিবেদনগুলি থেকে প্রতিটি ছবির স্ক্রিনশট দেওয়া হল। ক্লিক করে দেখে নিন।


Updated On: 2020-03-23T19:15:12+05:30
Claim Review :   রাস্তায় ছড়ানো মৃতদেহ, গণকবর ও কফিনের ছবিগুলি ইতালিতে করোনাভাইরাসের ভয়াবহ অবস্থার
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story