গরম জলে ভাপ, গার্গল ও চা পানেই চিনে সেরে উঠছে কোভিড-১৯ রোগী?

বুম এই ধরণের কোনও পথ্যে চিনে করোনাভাইরাস রোগী ৪ দিনে সেরে ওঠা নিয়ে প্রতিবেদন খুঁজে পায়নি।

দু'জন মহিলার গরম জলে ভাপ নেওয়ার দুটি ছবি বিভ্রান্তিকর ছবি সোশাল মিডিয়ায় করোনাভাইরাস নিরাময়ের সঙ্গে জোড়া হচ্ছে। ওই ছবিগুলিতে দাবি করা হচ্ছে, গরম জলে ভাপ নেওয়া, গরম জলে গার্গল ও চা পানের মাধ্যমেই নাকি চিনে সেরে উঠছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীরা। চারদিন এই পথ্য মেনে চললেই নাকি করোনা দূর করা যাচ্ছে।

ভাইরাল হওয়া ফেসবুক পোস্টটিতে ক্যাপশন লেখা হয়েছে, ''চীনের প্রতিটি বাড়িতেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রুগী আছে। কিন্তু সেখানকার বাসিন্দারা এই ভাইরাস এর জন্য কোনো ওষুধ বা ভ্যাকসিন নিচ্ছেন না। তারা এর চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন। এর পরিবর্তে তারা গরম পানির ভাপ দিয়ে ভাইরাসকে বিনাশ করছেন।এর জন্য তারা মাত্র ৩টি কাজ করছেন। সেগুলো হলোঃ ১. তারা দিনে চারবার কেটলি থেকে গরম জলের ভাপ নিচ্ছেন। ২. দিনে চারবার গরম জল দিয়ে গড়গড়া করছেন। ৩. আর দিনে চারবার গরম চা পান করছেন। এভাবে টানা চারদিন এই ৩টি কাজ করেই ভাইরাসটিকে দমন করছেন তারা। এভাবেই পঞ্চম দিনে হচ্ছেন করোনা নেগেটিভ।''

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

আরও পড়ুন: কালোজিরেতে পাওয়া গেল হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন? তথ্যটি সম্পূর্ণ সত্য নয়

তথ্য যাচাই

ঘরে ঘরে কোভিড-১৯ রোগী?

চিনে মোট কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন ৮৪, ৩৩৮ জন। মারা গেছেন ৪, ৩৩৮ জন। বর্তমানে চিনে চিকিৎসাধীন রয়েছে ১, ৮৩৭ জন। ১১২ জন করোনাভাইরাসের লক্ষনহীন রোগী রয়েছে বর্তমানে। চিনে প্রতিটা বাড়িতে করোনারোগী রয়েছে দাবিটি অসত্য। বেজিংয়ে আবার নতুন করে ৩৬ জন আক্রান্ত হয়েছেন করোনাভাইরাসে

গরম জলে ভাপ নিলে করোনা সারবে?

গরম জলে ভাপ নিলে নাক বন্ধ সর্দিতে উপশম হয়। কিন্তু কোভিড-১৯ সারবে এরকম কোনও নির্ভরযোগ্য গবেষণা খুঁজে পায়নি বুম। ড. বেঞ্জামিন নিউম্যান যিনি টেক্সাসের এ অ্যন্ড এম বিশ্ববিদ্যালয় টেক্সারানার বায়োলজি বিভাগে অধ্যাপনা করেন তিনি মার্চ মাসে এএফপি-কে জানান, গরম জলের ভাপ, হেয়ার ড্রায়ারের গরম ধোয়া কোনওভাবেই কার্যকরী নয়। এগুলি পাগলামো ছাড়া কিছু নয় বলে উল্লেখ করেন তিনি।

গরম জলে গার্গল করলে করোনা সারবে?

গার্গল কিংবা গরম জল খেলে করোনাভাইরাস সংক্রমিত রোগীর সুরাহা হবে এব্যাপারে কোনও নির্ভরযোগ্য গবেষণা খুঁজে পায়নি বুম। করোনাভাইরাস যেহেতু ফুসফুসে সংক্রমণ করে। কিছু ভুয়ো বার্তায় মিথ্যে দাবি করা হয়েছিল যে গরম জল বা জলে ভিনিগার মেশিয়ে গার্গল করলে করোনাভাইরাস আর ফুসফুস অবধি পৌছাতে পারবেনা। এএফপি আগেই তথ্য যাচাই করেছে ভিনিগার সহ গরম জল করোনা রুখতে সহায়ক নয়।

মার্চ মাসে একটি টিকটক ভিডিওতে দাবি করা হয়েছিল গরম জলে গার্গল করলে করোনাভাইরাস সংক্রমণ হবে না। বুম সে সময় এই ভুয়ো তথ্যটির তথ্য-যাচাই করে।

চা খেলে সারাবে করোনাভাইরাস?

এপ্রিল মাসে একটি ভাইরাল বার্তায় মিথ্যে দাবি করা হয়েছিল ডঃ লি ওয়েনলিয়াং, যিনি যিনি নতুন ভাইরাসটি সম্পর্কে প্রথম সতর্ক করেন বিশ্বকে এবং বন্দি অবস্থায় মারা যান, তিনি নাকি পরখ করে দেখেছেন গ্রিন-টি করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কাজ করে। চা পান করলে করোনাভাইরাস সারতে পারে এব্যাপারে কোনও গবেষণাপত্র খুঁজে পায়নি। চা অবসাদ, ক্লান্তিভাব দূর করে মাত্র। বিষয়টি নিয়ে বুমের তথ্যযাচাই পড়া যাবে এখানে

হু-তার নির্দেশিকায় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত আরও বিভিন্ন গুজব খণ্ডন করেছে। প্রতিবেদনটি পড়া যাবে এখানে

গরম জলে ভাপ নেওয়ার স্টক ছবিদুটি নেওয়া হয়েছে গেটটি ইমেজেসআইস্টক ফটো থেকে।

লক্ষণহীন কোভিড-১৯ রোগী কতদিনে সারবে নির্ভর করছে তার প্রতিরোধ ক্ষমতা ও ভাইরাসটির কতটা মাত্রায় শরীরে প্রভাব ফেলছে। সব লক্ষণহীন কোভিড-১৯ রোগী সেরে উঠতে একই সময়ের ব্য়াবধনে সেরে ওঠে না। সম্প্রতি হু জানিয়েছে লক্ষণহীন কোভিড-১৯ রোগী থেকেও ভাইরাসের সংক্রমণ হয়।

আরও পড়ুন: ক্যান্সার নিয়ে ইয়োশিনোরি ওসুমি ও অন্য বিজ্ঞানীর বক্তব্য যা আপনি ভুল জানেন

Claim Review :   চিনে গরম জলে ভাপ, গার্গল ও চা পানেই চিনে ৪ দিনে সেরে উঠছে কোভিড-১৯ রোগী
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story