২ হাজার টাকার জাল নোট তৈরি চক্রের এই ভাইরাল ভিডিওটি ভারতের নয়

বুম দেখে জাল নোট তৈরির ওই চক্রটি এবছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ঢাকার সবুজবাগে ধরা পড়ে।

বাংলাদেশের পুলিশের একটি দল ভারতীয় টাকা জাল করার একটি চক্রকে পাকড়াও করছে—এমন একটি ভিডিওকে ভারতের ঘটনা বলে প্রচার করা হচ্ছে।

বুম দেখে এটি ঢাকায় বাংলাদেশি পুলিশেরই মেট্রোপলিটন ডিটেক্টিভ বিভাগ চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ফাঁস করেছে।

ভাইরাল ভিডিওটিতে নোট জাল প্রক্রিয়ারই বিভিন্ন স্তর দেখানো হয়েছে, যা ভিডিও ক্যামেরায় তুলে রাখা। কয়েকজন লোক এই প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত, যাদের চারপাশে ৫০০ ও ২০০০ টাকার নোট ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। এবং ভিডিওটির শেষে দেখা যাচ্ছে, একজন জালিয়াত সাংবাদিকদের সঙ্গে বাংলাতেই কথা বলছে।

পুলিশের বক্তব্যঃ আমরা মোট ৪৯ লক্ষ জাল নোট পেয়েছি। আমরা হিটার, কম্পিউটার, আঠা, ল্যামিনেট করার যন্ত্র, রঙ এ সবও পেয়েছি। গোটা ব্যাপারটাই একটা মেশিনে করা হয়। ভিডিওতে পিছন থেকে গানের সুরও ভেসে আসতে শোনা যাচ্ছে।

ভাইরাল হওয়া পোস্টের ক্যাপশনে লেখা: "এই দেশের উন্নতি হবে কী করে ? অপরাধীরা সব এখানে ঘাঁটি গেড়ে রয়েছে l জাল নোট তৈরি হচ্ছে l দেখছেন তো, কী বিপুল পরিমাণ জাল টাকা উদ্ধার হয়েছে!"

ভাইরাল ভিডিওটি নীচে দেখুন এবং পোস্টগুলি আর্কাইভ করা আছে এখানে এবং এখানে


আরও পড়ুন: ২০১৮'র ঢোল-তাসা বাজানোর ভিডিওকে বলা হলো রাম মন্দির স্থাপনের উদযাপন

তথ্য যাচাই

বুম ভিডিওটির একটি স্ক্রিনশট তুলে খোঁজ চালিয়ে দেখেছে, এটি এর আগে ইউ-টিউবে আপলোড করা হয়েছে। ভাইরাল ভিডিওর শেষ দিকে যে সাংবাদিককে মাইক হাতে সাক্ষাৎকার নিতে দেখা যাচ্ছে, তার মাইক্রোফোনের গায়ে যমুনা টিভি কথাটি স্পষ্টাক্ষরে লেখা রয়েছে।

একই ভিডিও আমরা বাংলাদেশের একটি চব্বিশ ঘন্টার চ্যানেল "সময় টিভি"-র ইউটিউব চ্যানেলেও আপলোড হতে দেখি। ২০২০ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি এটি আপলোড হয়, যার বাংলা ক্যাপশন দেওয়া রয়েছে— "ভারতীয় জালমুদ্রা তৈরি করার সময় হাতেনাতে ধরা পড়া।"

খবরে প্রকাশ, ঢাকার মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগ ঢাকারই বাসাবো-কদমতলা এলাকা থেকে৮ জন দুষ্কৃতীকে হাতে-নাতে ধরে ফেলে। আরও জানা যায়, জাল চক্রের পান্ডাকে বসিরুল্লা হিসাবে শনাক্ত করা হয়েছে এবং ঘটনাস্থল থেকে ভারতীয় ৫০০ ও ২০০০ টাকার নোটে প্রচুর অর্থ এবং টাকা জাল করার যন্ত্রপাতিও আটক করা হয়েছে।

রিপোর্টে আরও জানানো হয়েছে যে, চাপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে এই সব জাল নোট পাচার করা হতো।

বাংলাদেশের আরেকটি গণমাধ্যম বাংলাদেশ প্রতিদিনেও বুম একটি প্রতিবেদন খুঁজে পেয়েছে, যাতে এই ঘটনাটির বিশদ বিবরণ দেওয়া হয়েছে। সেখানেও ১৬ ফেব্রুয়ারির পুলিশি গোয়েন্দা অভিযানে নোট জাল করার যন্ত্রপাতি, ৪৯ লক্ষ জাল ভারতীয় টাকা সহ ৮ জন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করার কথা উল্লেখ রয়েছে।

আরও পড়ুন: ২০১৭ সালে বিহারে হাসপাতালের বেডে কুকুর শোয়ার ছবি সাম্প্রতিক বলে ভাইরাল

Updated On: 2020-08-02T10:41:21+05:30
Claim Review :   ভিডিও দেখায় ২০০০ টাকার জাল নোট ছাপানো হচ্ছে
Claimed By :  Facebook Posts
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story