তালিবানের কব্জায় রাষ্ট্রপতির প্রাসাদ দাবিতে ছড়াল সিরিয়ার ভিডিও

বুম যাচাই করে দেখে ভিডিওটি ২০১৫ সালের মার্চ মাসে সিরিয়ার বিদ্রোহীদের দ্বারা সে দেশের ইদলিব শহর দখল করার দৃশ্য।

২০১৫ সালে একটি ভিডিওতে, উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ার ইদলিব (Idlib) শহরে সশস্ত্র বিদ্রোহীদের ঘুরে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে। কিন্তু সেটি ফেসবুকে এই মিথ্যে দাবি সমতে শেয়ার করা হচ্ছে যে, আফগানিস্তানের কাবুলে, রাষ্ট্রপতি-প্রাসাদ দখল করার পর, তালিবান (Taliban) সদস্যরা আনন্দ করছে।

তালিবানদের দ্বারা আফগানিস্তান দখলের পরিপ্রেক্ষিতে ভিডিওটি শেয়ার করা হচ্ছে। আলজাজিরা তাদের প্রতিবেদনে জানায় যে, ১৫ অগস্ট, ক্ষমতাচ্যুত রাষ্ট্রপতি আশরাফ গনির রাষ্ট্রপতি-প্রাসাদ দখল করে তালিবান। এবং ২০ বছর পর তারা আফগানিস্তানে আবার ক্ষমতায় ফেরে। সেই দিনই রাজধানী কাবুলের পতন হয়। এবং সারা দেশে তালিবান তাদের ক্ষমতা কায়েম করে। গনি দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন, এই খবর ছড়াতে শুরু করলে, আফগান সরকারের পতন হয়।

আরও পড়ুন: ভারতের উদ্বাস্তু সংক্রান্ত নীতি কি আফগান শরণার্থীদের সহায়ক হবে?

২ মিনিট ৪৪ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে একটি পতাকা নামানো হচ্ছে দেখা যায়। সেই সঙ্গে সশস্ত্র বিদ্রোহীরা রাস্তায় ঘুরে ঘুরে "আল্লাহু আকবর" রণধ্বনি দিতে থাকে। সেই সঙ্গে শোনা যায় গুলির শব্দ। বুম দেখে, ভিডিওটি সিরিয়ার ইদলিব শহরের 'সেভেন বাহরত স্কয়ার'-এ তোলা। প্রেসিডেন্ট বাশার-আল আসাদের সেনাবাহিনীর হাত থেকে প্রদেশটি ছিনিয়ে নেওয়ার পর, সিরিয়ার বিদ্রোহীরা ভিডিওটি তোলে। যাদের সঙ্গে আল-কায়েদা'র সহযোগীরাও ছিল।

ফেসবুকে ভিডিওটির ক্যাপশনে বলা হয়েছে, "খুব ভাল...তালিবান কাবুলে রাষ্ট্রপতি-প্রাসাদের দখল নেওয়ায় ও মার্কিন রাষ্ট্রদূত পালিয়ে যাওয়ায়, তালিবান যুদ্ধে জয়ী হয়েছে..."

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে। আর্কাইভ করা আছে এখানে


তথ্য যাচাই

প্রথম কয়েকটি ফ্রেম দেখে আমরা বুঝতে পারি যে, সম্প্রতি তালিবানের আফগানিস্তান দখলের সঙ্গে ভিডিওটির কোনও সম্পর্ক নেই। তাতে সিরিয়ার আরব প্রজাতন্ত্রের জাতীয় পতাকা নামাতে দেখা যাচ্ছে। তাছাড়া, ২৪ সেকেন্ডের মাথায়, কিছু হোর্ডিংয়ে সিরিয়ার জাতীয় পতাকা স্পষ্টতই দেখা যায়।


কয়েকটি প্রধান ফ্রেম দিয়ে রিভার্স ইমেজ সার্চ করার ফলে, ২৯ মার্চ, ২০১৯-এ, সিরিয়ার সংবাদ মাধ্যম 'ওরিয়েন্ট টিভি'র আপলোড-করা একটি পুরনো ভিডিও দেখতে পায় বুম। ভিডিওটির ক্যাপশনে বলা হয়, "ইদলিবের মুক্তি— সিরিয়ার বিপ্লবের ইতিহাসে এক অবিস্মরণীয় মুহূর্ত।" (আরবী ভাষায় আসল শিরোনাম: لحظات لاتنسى من تاريخ الثورة السورية تحرير إدلب)

বিবিসি'র একটি রিপোর্টে (২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯) বলা হয়, ইসলামিক স্টেট-এর (আইএসআইএস) বিরাধী গোষ্ঠী হায়াত তহরির আল-শাম ইদলিব প্রদেশের শহর ও গ্রামগুলি দখল করে নেয়। ২০১৫ সালে বিদ্রোহী ও জিহাদিদের দ্বারা প্রাদেশিক শহর ইদলিব কব্জা হওয়ার ছবিও দেখানো হয় রিপোর্টটিতে।

এটিকে সূত্র ধরে খোঁজ করায়, আমরা ২৯ মার্চ, ২০২৫ আলজাজিরায় প্রকাশিত একটি লেখা দেখতে পাই। সেটির শিরোনামে বলা হয়, "যৌথ অভিযান চালিয়ে সিরিয়ার বিদ্রোহীরা ইদলিব শহর দখল করেছে"।


'ফাত্তা সেনা' নামক যৌথ বাহিনীর দ্বারা ইদলিব শহর দখল সম্পর্কে আরও পড়ুন 'ফাইন্যানসিয়াল টাইমস' ও 'ওয়াশিংটন পোস্ট'।

আরও পড়ুন: আশরাফ ঘানির বিমানে ওঠার ভিডিওটি তালিবানদের কাবুল দখলের পর তোলা নয়

ভিডিওটির ভৌগলিক অবস্থান

গুগুল ম্যাপে খোঁজ করায়, আমরা ইদলিব শহরের দু'টি রাউন্ডঅ্যাবাউট বা গোলচক্কর দেখতে পাই— রাউন্ডঅ্যাবাউট মিরহাব ও সেভেন বাহরত স্কয়ার (সাতটি ঝর্ণা বা আরবিতে دوار السبع بحرات)।

ওই একই সময়ে, ২৮ মার্চ ২০১৫, বিদ্রোহীরা মিরহাব গোলচক্করটি কব্জা করে। রয়টর্স-এর তোলা একটি ছবি দেখা যাবে এখানে

ভাইরাল ভিডিওটিতে ইদলিব শহরের যে সেভেন বহরত স্কয়ারটি দেখা যাচ্ছে, বুম গুগল ম্যাপেও সেটিকে দেখতে পায়। সেভেন বহরত স্কয়ারটির একটি ছবি দেখা যাবে এখানে

ভাইরাল ভিডিওর একটি ফ্রেম ও গুগুল ম্যাপের ছবি নীচে তুলনা করা হয়েছে।


Updated On: 2021-08-19T19:12:06+05:30
Claim Review :   ভিডিও দেখায় তালিবানরা কাবুলে রাষ্ট্রপতি প্রসাদ দখল করেছে
Claimed By :  Facebook Post
Fact Check :  False
Show Full Article
Next Story