ভাইরাল হল পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল ও বিজেপি নেতাদের ভুয়ো মন্তব্য

বুম যাচাই করে দেখেছে রাজ্যপাল ও বিজেপি নেতাদের পুরনো ছবির সঙ্গে ভুয়ো মন্তব্যের এই গ্রাফিকগুলির উৎস একটি ভুয়ো ফেসবুক পেজ।

কোভিড-১৯ অতিমারির সংকট চলাকালীন বঙ্গ বিজেপির বিভিন্ন নেতা নেত্রী ও পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়ের ভুয়ো মন্তব্যে গ্রাফিক শেয়ার করা হচ্ছে। বুম যাচাই করে দেখেছে প্রতিটি গ্রাফিকের থাকা বক্তব্য ভুয়ো, তা তৈরি করা হয়েছে পুরনো ছবি যোগ করে। এবং সবকটি ভুয়ো গ্রাফিকের উৎস সান্টু সান্টু নামের একটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট। এই পর্যায়ে বুম আগেই বেশ কয়েকজন বিজেপি নেতা-নেত্রীর ভুয়ো মন্তব্য খণ্ডন করে পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সে সময় ভুয়ো গ্রাফিকগুলির উৎস খুঁজে পায়নি বুম।

১. বিজেপি নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গীয় কি বাঙালিদের শারমেয়র সাথে তুলনা করেছেন

বিজেপির সর্ব ভারতীয় সাধারন সম্পাদক কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ভুয়ো উদ্ধৃতির গ্রাফিকে লেখা ছিল, ''বাঙালিদের যতই খাবার দাও, খাবার পাইনি বলে, সারাদিন কুত্তার মত ঘেউ ঘেউ করে। বিজেপির নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। পশ্চিমবঙ্গে বাঙালি জাতিকে কুকুরের সঙ্গে তুলনা করলেন কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়।" এর সঙ্গে ওই গ্রাফিকটিতে লেখা ছিল, "বাঙালি জাতির উপর আবার ও আঘাত করলেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। বাঙালি জাতিকে কুকুরের সাথে তুলনা করলেন। বিজেপির এই নেতার কথা শুনে বাঙালি জাতির মধ্যে সমালোচনার ঝড়।''


ওই গ্রাফকটি তৈরি করা হয়েছিল কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ২০১৯ সালের একটি সংবাদ সম্মেলনের ছবি নিয়ে। বুম এই ভুয়ো মন্তব্যটি তথ্য যাচাই করে ১৪ এপ্রিল প্রতিবেদন প্রকাশ করে। প্রতিবেদনটি পড়া যাবে এখানে

২. গ্রামের দুস্থ দরিদ্রদের প্রতি অবমানকার মন্তব্য করেছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়

ভাইরাল হওয়া ফেসবুক পোস্টে হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়ের একটি আবক্ষ ছবি ব্যবহার করে গ্রাফিকে লেখা হয়েছিল, "লকডাউনের সময় গ্রামে দরিদ্র মানুষের কাছে শরীরের দুর্গন্ধ থাকে। ওদের কাছে যেতে ভয় লাগে" বললেন—বিজেপি নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায়" আর নীচের অংশে লেখা আছে, "হত দরিদ্র বাঙালি জাতি দুর্গন্ধে পরিণত হল। এই বাঙালি জাতি বিজেপির নেত্রীকে ভোটে পাস করিয়েছিল।"


ওই ভুয়ো গ্রাফিকে ব্যবহার করা হয়ে লকেট চট্টোপাধ্যায়ের একটি পুরনো ছবি। তাঁর বক্তব্যের কোনও সত্যতা খুঁজে পায়নি বুম। ১৩ এপ্রিল বুমের খণ্ডন করা প্রতিবেদনটি পড়া যাবে এখানে

৩. বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষের রাজ্যে রেশন বন্টন নিয়ে কটু মন্তব্য করেছেন
প্রাক্তন এই আইপিএস আধিকারিক ও বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষের মন্তব্যের ভুয়ো মন্তব্যের গ্রাফিটিতে লেখা হয়েছিল, ''বাংলার মানুষের মধ্যে হিংসার বীজ সবথেকে বেশি। তাই বাংলাকে চাল গম দেওয়া অর্থহীন। ভারতী ঘোষ।'' পরে লেখা হয়েছে, ''তীর্যক বাক্য গরিবরা খেতে না পেলে আমার কিছু যায় আসে না।'' পোস্টারটির ক্যাপশনে লেখা ছিল, ''বিজেপির নেত্রী ভারতী ঘোষ বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন। গরীবরা খেতে না পেলে আমার যায় আসে না। এছাড়াও বাংলার মানুষ কে বললেন হিংসা ছাড়া কিছুই বোঝে না।''

বুম ভারতী ঘোষকে নিয়ে ভাইরাল হওয়া এই পোস্টের মন্তব্যের তথ্য যাচাই করে জানতে পারে উদ্ধৃতিটা ভুয়ো। বুমের খণ্ডন করা ২২ এপ্রিল ২০২০ প্রকাশিত প্রতিবেদনটি পড়া যাবে এখানে

অন্যান্য ভুয়ো বক্তব্যের গ্রাফিক্স

এই সপ্তাহে বিজেপির রাজ্য সম্পাদক সায়ন্তন বসু, বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা আসানসোলের সংসদ বাবুল সুপ্রিয়, রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়ের ভুয়ো মন্তব্য বুমের নজরে এসেছে। নিচে ভুয়ো মন্তব্য নিয়ে তৈরি গ্রফিক পোস্টগুলি দেওয়া হল।

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

পোস্টটি আর্কাইভ করা আছে এখানে

বুম যাচাই করে দেখে উপরের বিজেপি নেতা-নেত্রী কিংবা পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়ের মন্তব্য, কোনটিই সত্যি নয়।

আরও পড়ুন: বিজেপি কর্মীরা মুসলিম মহিলাদের ভেক ধরেছে বলে ছড়ালো সম্পর্কহীন ছবি

ভুয়ো মন্তব্যের উৎস

বুম দেখে উপরের ভুয়ো মন্তব্যগুলি ছড়ানো হচ্ছে "সান্টু সান্টু" নামের একটি ফেসবুক পেজ থেকে। এই পেজটি থেকে আরও অন্যান্য একই ধরণের ভুয়ো মন্তব্যের গ্রাফিক্স তৈরি করা হচ্ছে। পেজটি আর্কাইভ করা আছে এখানে


৫ এপ্রিল ২০২০ প্রকাশিত হিন্দুস্থান টাইমসের রিপোর্ট অনুযায়ী করোনা পরিস্থিতিতে ভুয়ো খবর ছড়ানোর অপরাধে এ রাজ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে ৩০ জনেরও বেশি মানুষকে। ভুয়ো খবর রুখতে সোশাল মিডিয়ায় রাজ্য পুলিশের তরফে কড়া নজরদারি রাখা হচ্ছে বলে খবরে প্রকাশ

আরও পড়ুন: আমদাবাদে পুলিশের ওপর পাথর ছোঁড়ার ভিডিওকে কলকাতার ঘটনা বলা হল

Show Full Article
Next Story